বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > ১৪ জানুয়ারি মকর সংক্রান্তি, জেনে নিন পৌরাণিক গুরুত্ব
মকর সংক্রান্তির মহাপুণ্যকাল মুহূর্ত, সকাল ০৮:০৩:০৭ থেকে ০৮:২৭:০৭ পর্যন্ত।
মকর সংক্রান্তির মহাপুণ্যকাল মুহূর্ত, সকাল ০৮:০৩:০৭ থেকে ০৮:২৭:০৭ পর্যন্ত।

১৪ জানুয়ারি মকর সংক্রান্তি, জেনে নিন পৌরাণিক গুরুত্ব

  • পৌষ মাসে সূর্য যখন ধনু রাশি থেকে মকর রাশিতে প্রবেশ করে, তখন মকর সংক্রান্তি পালিত হয়। মনে করা হয়, এ সময় সূর্য নিজের পুত্র শনির সঙ্গে দেখা করতে আসেন।

মকর সংক্রান্তি বা পৌষ সংক্রান্তিকে হিন্দু ধর্মের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎসব মনে করা হয়। পৌষ মাসে সূর্য যখন ধনু রাশি থেকে মকর রাশিতে প্রবেশ করে, তখন মকর সংক্রান্তি পালিত হয়। এ বছর ১৪ জানুয়ারি মকর সংক্রান্তি পালিত হবে। মনে  করা হয়, এ সময় সূর্য নিজের পুত্র শনির সঙ্গে দেখা করতে আসেন। আবার এ সময় সাধারণত শুক্রের উদয় হয়। তাই এর পর থেকেই সমস্ত ধরণের শুভ কাজের সূচনা হয়। কোষ্ঠিতে সূর্য ও শনির পরিস্থিতি দুষ্প্রভাব বিস্তার করলে, এ দিনে বিশেষ পুজো করে তা ঠিক করা যেতে পারে।

মকর সংক্রান্তির শুভক্ষণ:

পুণ্যকাল মুহূর্ত- সকাল ০৮:০৩:০৭ থেকে ১২:৩০:০০ পর্যন্ত। 

মহাপুণ্যকাল মুহূর্ত- সকাল ০৮:০৩:০৭ থেকে ০৮:২৭:০৭ পর্যন্ত।

মকর সংক্রান্তির দিনে সকালে স্নানের পর লাল ফুল ও চাল দিয়ে সূর্যকে জলের অর্ঘ্য দিন। এ সময় সূর্যের বীজমন্ত্র পাঠ করা উচিত। শ্রীমদভাগ্বদের একটি অধ্যায় বা গীতা পাঠ করা উচিত। 

পুরাণ অনুযায়ী প্রচলিত ধারণা:

অসুরদের বিরুদ্ধে বিষ্ণুর বিজয় মকর সংক্রান্তি হিসেবে পালিত হয়। মনে করা হয়, এ দিন বিষ্ণু, মর্ত্যলোকে অসুর সংহার করে, তাদের মাথা কেটে মন্দরা পর্বতে পুতে দিয়েছিলেন। তখন থেকেই বিষ্ণুর জয়ের উৎসব হিসেবে মকর সংক্রান্তি পালিত হয়।

দান-পুণ্য ও স্নানের গুরুত্ব:

এ সময় ভক্তরা গঙ্গা বা অন্য কোনও পবিত্র নদীতে স্নান করেন। পুরাণ অনুযায়ী, এক সময় কৃষ্ণ বলেছিলেন, যে ব্যক্তি মকর সংক্রান্তির দিনে দেহত্যাগ করে, তাঁদের মোক্ষলাভ হয়। 

সিদ্ধিপ্রাপ্তির জন্যও দিনটি বিশেষ:

মনে করা হয়, পূর্ব থেকে দক্ষিণগামী সূর্যের রশ্মির দুষ্প্রভাব থাকে। তবে পূর্ব থেকে উত্তরগামী সূর্যের রশ্মির স্বাস্থ্য ও শান্তি বৃদ্ধি করে। এ কারণে এ সময় শান্তি ও সিদ্ধি লাভ করেন সাধু-সন্তরা। 

মকর সংক্রান্তির দিন থেকেই ঋতু পরিবর্তন আরম্ভ হয়। এ দিন থেকে বসন্তের আগমনের সূচনা হয়।

বন্ধ করুন