বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > ৬ জুন অপরা একাদশী, জানুন এর শুভক্ষণ, মাহাত্ম্য ও ব্রতকথা
অপরা একাদশী ব্রত করলে বিষ্ণু মনুষ্য জীবন থেকে সমস্ত দুঃখ ও সমস্যা দূর করে অপার পুণ্য প্রদান করে।
অপরা একাদশী ব্রত করলে বিষ্ণু মনুষ্য জীবন থেকে সমস্ত দুঃখ ও সমস্যা দূর করে অপার পুণ্য প্রদান করে।

৬ জুন অপরা একাদশী, জানুন এর শুভক্ষণ, মাহাত্ম্য ও ব্রতকথা

৬ জুন, রবিবার অপরা একাদশী। এর অর্থ অপার পুণ্য। পদ্ম পুরাণ অনুযায়ী, এদিন বামন রূপে বিষ্ণুর পুজোর বিধান রয়েছে।

জৈষ্ঠ্য মাসের কৃষ্ণপক্ষের একাদশী তিথিকে অপরা একাদশী বলা হয়। হিন্দু পঞ্জিকা অনুযায়ী, এ বছর ৬ জুন, রবিবার অপরা একাদশী। এর অর্থ অপার পুণ্য। পদ্ম পুরাণ অনুযায়ী, এদিন বামন রূপে বিষ্ণুর পুজোর বিধান রয়েছে। অপরা একাদশীকে জলক্রীড়া একাদশী, অচলা একাদশী ও ভদ্রকালী একাদশীও বলা হয়।

অপরা একাদশীর মাহাত্ম্য

মনে করা হয় অপরা একাদশী ব্রত করলে বিষ্ণু মনুষ্য জীবন থেকে সমস্ত দুঃখ ও সমস্যা দূর করে অপার পুণ্য প্রদান করে। এই একাদশী পুণ্যদায়ক ও বড় বড় পাপ নাশ করে। অপরা একাদশীর ব্রতর প্রভাবে ব্রহ্ম হত্যা, ভূত যোনি, অন্যের নিন্দা, পরস্ত্রীগমন, মিথ্যা সাক্ষী, মিথ্যা ভাষণ, মিথ্যা শাস্ত্র পাঠ অথবা রচনা, মিথ্যা জ্যোতিষ শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা বা মিথ্যা বৈদ্য হওয়ার পাপ করলে তা নষ্ট হয়। মাঘ মাসে সূর্য যখন মকর রাশিতে বিরাজ করে তখন প্রয়াগে স্নান করলে ব্যক্তি যে পুণ্য লাভ করে, কাশীতে শিবরাত্রি ব্রত করলে যে পুণ্য লাভ করা যায়, গয়ায় পিণ্ডদান করে পূর্বপুরুষদের তৃপ্তি প্রদানকারী ব্যক্তি যে পুণ্য অর্জন করে, বৃহস্পতির সিংহ রাশিতে বিরাজ করার ফলে গোদাবরীতে স্নান করে ব্যক্তি যে ফল লাভ করে ঠিক এমনই অপর একাদশী ব্রত পালন করেও ব্যক্তি এমনই ফল লাভ করতে পারে। এই একাদশীর দিনে উপবাস করে এবং মাহাত্ম্যের গুণগান করলে সহস্ত্র গোদানের ফল লাভ করা যায়।

অপরা একাদশীর শুভক্ষণ

একাদশী তিথি শুরু- ৫ জুন ভোর ৪টে ০৭ মিনিটে।

একাদশী তিথি সমাপ্ত- ৬ জুন সকাল ৬টা ১৯ মিনিটে।

ব্রতভঙ্গের সময়- ৭ জুন সকাল ৫টা ১২ মিনিট থেকে ৭টা ৫৯ মিনিট।

অপরা একাদশী ব্রত বিধি

এদিন সূর্যদয়ের পূর্বে উঠে স্নান করে উপবাসের সংকল্প গ্রহণ করুন। এর পর বিষ্ণুর পুজো করুন। এদিন অন্ন গ্রহণ করবেন না। ফলাহার করতে পারেন। সন্ধেবেলা বিষ্ণুর পুজো করুন। বিষ্ণু সহস্ত্রনাম পাঠ করুন। পরের দিন নিয়মানুযায়ী ব্রত ভঙ্গ করুন। এর পর ব্রাহ্মণদের দান দিন।

মনে রাখবেন হরি বাসরের সময় একাদশী উপবাস ভঙ্গ করতে নেই। উপবাস ভঙ্গ করার আগে হরিবাসর সমাপ্ত হওয়ার প্রতীক্ষা করুন। দ্বাদশী তিথির প্রথম এক চতুর্থাংশ সময়কাল এই হরিবাসর। ব্রতভঙ্গের সবচেয়ে উপযুক্ত সময় প্রাতঃকাল। মধ্যাহ্নে ব্রতভঙ্গ করা উচিত নয়।

অপরা একাদশী ব্রতকথা

শাস্ত্র মতে, প্রাচীন কালে মহীধ্বজ নামক এক ধর্মাত্মা রাজা ছিলেন। তাঁর ছোট ভাই বজ্রধ্বজ পাপী ও অধর্মী ছিল। রাতের অন্ধকারে নিজের বড় দাদার হত্যা করে দেয় বজ্রধ্বজ। এর পর মহীধ্বজের মৃত শরীরকে জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে অশ্বত্থ গাথের তলায় পুঁতে দেয়। অকাল মৃত্যুর কারণে ধর্মাত্মা রাজাকে প্রেত যোনিতে প্রবেশ করেন। প্রেত রূপে সেই অশ্বত্থ গাছে বাস করতে শুরু করেন রাজা। সেই পথে যে-ই যাতায়াত করত, তাঁদের বিরক্ত করত ওই প্রেত। একদিন সৌভাগ্যবশত সেই পথ দিয়ে ধৌম্য নামক এক ঋষি যান। ঋষি প্রেতকে দেখে নিজের তপোবলে সব জানতে পারেন। রাজাকে প্রেত যোনি থেকে মুক্তি দেওয়ার কথা ভাবেন ওই ঋষি। তার পর প্রেতকে অশ্বত্থ গাছ থেকে নামিয়ে পরলোক বিদ্যার উপদেশ দেন। সংযোগবশত সেই সময় জৈষ্ঠ্য মাসের একাদশী তিথি ছিল। ঋষি অপরা একাদশী ব্রত করেন। সেই উপবাসের ফলে প্রাপ্ত পুণ্য তিনি রাজাকে অর্পণ করেন। এই পুণ্যের প্রভাবে রাজা প্রেত যোনি থেকে মুক্ত হন এবং দিব্য দেহ ধারণ করে স্বর্গে গমন করেন।

বন্ধ করুন