বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > লালটে এই রেখা থাকা দৈব আশীর্বাদের লক্ষণ
ভাগ্যরেখা থাকলে, ওই ব্যক্তি সৌভাগ্যবান হন।
ভাগ্যরেখা থাকলে, ওই ব্যক্তি সৌভাগ্যবান হন।

লালটে এই রেখা থাকা দৈব আশীর্বাদের লক্ষণ

  • সামুদ্রিক শাস্ত্র অনুযায়ী, ললাটের প্রথম রেখা ধনের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। একে ধনরেখা বলা হয়।

সমুদ্র শাস্ত্র অনুযায়ী, হাতের রেখার মতো ললাটরেখাও ব্যক্তি সম্পর্কে অনেক তথ্য জানায়। এখানে জানুন মস্তিষ্কের কোন রেখা ব্যক্তি সম্পর্কে কী বলে—

১. মস্তিষ্কের প্রথম রেখা- সামুদ্রিক শাস্ত্র অনুযায়ী, ললাটের প্রথম রেখা ধনের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। ভুরুযুগলের পাশে এই রেখা দেখা যায়। একে ধনরেখা বলা হয়। এই রেখা যত স্পষ্ট হয়, ব্যক্তি তত ধনী হয়। তবে এই রেখা অস্পষ্ট হলে, তা ব্যক্তিকে ভবিষ্যতে আর্থিক সমস্যার মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিতে পারে। পাশাপাশি আর্থিক ওঠা-পড়ার দিকেও ইঙ্গিত করে এমন অস্পষ্ট রেখা।

২. দ্বিতীয় রেখা- এই রেখা ব্যক্তির স্বাস্থ্যের হাল-হকিকত প্রকাশ করে। ভুরুযুগলের পাশের রেখার পরেরটিই হল দ্বিতীয় ললাট রেখা। এই রেখা গাঢ় ও স্পষ্ট হলে ব্যক্তি সুস্বাস্থ্য অধিকারী হয়। কিন্তু এই রেখা পাতলা ও হাল্কা হলে ব্যক্তিকে নানান শারীরিক সমস্যার মধ্য দিয়ে জীবন কাটাতে হতে পারে। 

৩. তৃতীয় রেখা- এই রেখাটি ভাগ্যের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ রেখা। অনেক কম ব্যক্তির ললাটে এই রেখা থাকে। মস্তিষ্কে এই রেখা থাকলে, ওই ব্যক্তি সৌভাগ্যবান হন।

৪. চতুর্থ রেখা- এই রেখা ব্যক্তির জীবনের নানান ওঠা-পড়ার দিকে ইঙ্গিত দেয়। তবে ২৬ থেকে ৪০ বছর পর্যন্ত ব্যক্তির জীবনের ওঠা-পড়ার ব্যাপারেই ইঙ্গিত দিতে পারে এই রেখা। এমন ব্যক্তি ৪০-এর চৌকাঠ পার করার পরই সাফল্যের শীর্ষে পৌঁছন। এঁদের আর্থিক জীবনও ভালো কাটে।

৫. পঞ্চম রেখা- সাবধান! কোনও ব্যক্তির মস্তিষ্কে এই পঞ্চম রেখা থাকলে, তা অত্যন্ত ক্ষতিকর মনে করা হয়। এই রেখা জীবনে অবসাদ ও চিন্তার দিকে ইশারা করে। এমন ব্যক্তি বৈরাগ্য পর্যন্ত ধারণ করতে পারেন।

৬. ষষ্ঠ রেখা- নাকের দিক দিয়ে সোজা ওপরের দিকে যায় এই রেখা। এই রেখা ব্যক্তির ওপর দৈবীয় আশীর্বাদের ইঙ্গিত দেয়। এমন ব্যক্তি জীবনে অপ্রত্যাশিত সাফল্য লাভ করেন।

বন্ধ করুন