বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > অবিবাহিত আপনি? তাহলে নিজের বেডরুমে ভুল করেও এই জিনিসগুলি রাখবেন না!
বর্তমানে বাড়িতে ফেংশুইয়ের চল বেড়ে গিয়েছে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)
বর্তমানে বাড়িতে ফেংশুইয়ের চল বেড়ে গিয়েছে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

অবিবাহিত আপনি? তাহলে নিজের বেডরুমে ভুল করেও এই জিনিসগুলি রাখবেন না!

  • দেখে নিন লম্বা-চওড়া তালিকা।

বর্তমানে বাড়িতে ফেংশুইয়ের চল বেড়ে গিয়েছে। লাফিং বুদ্ধ, ক্রিস্টাল, কচ্ছপের মতো অনেক জিনিস ঘরে রাখা হয়। এইসব জিনিসকে চিনা বাস্তশাস্ত্র এবং ফেংশুইয়ে শুভ এবং কার্যকরী বলে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। সম্পর্ক এবং প্রেম আরও গাঢ় করতেও ফেংশুইয়ে বিভিন্ন উপায় আছে। ঘরে রাখা ছোটো-ছোটো জিনিসের উপর নজর দিলে সম্পর্ক মজবুত হতে পারে। বিশেষত অবিবাহিতদের সেদিকে নজর দিতে হবে।

১) যদি অবিবাহিত হন, তাহলে যে ঘরে (বেডরুমে) ঘুমোন, সেখানে কম্পিউটার এবং টিভি রাখবেন না।

২) বেডরুমে যদি কোনও ধরনের পার্টিশন থাকে বা বিম থাকে (সিলিং থেকে যা দুই ভাগে বিভক্ত করে), তাহলে তা নেতিবাচক প্রবণতা বাড়িয়ে তোলে। একই কথা প্রয়োজ্য বিছানার ক্ষেত্রেও। একই বিছানায় দুটি তোষক রাখা উচিত নয়। ফেংশুইয়ের নিয়ম অনুযায়ী, বিছানায় একটি তোষক থাকতে হবে। তার ফলে নেতিবাচকতা দূর হবে। প্রেমের সম্পর্ক আরও মধুর হয়ে উঠবে। বেডরুমে নদী, পুকুর, জলপ্রপাত, ঝরনা এবং জল সংগ্রহের ছবি রাখা উচিত নয়।

৩) বিছানার সামনে বাথরুমের দরজা থাকা উচিত নয়। যদি থাকে তো সবসময় বন্ধ রাখতে হবে।  

৪) বেডরুমে যদি আয়না লাগানো থাকে, তাতে যেন আপনার বিছানার প্রতিচ্ছবি না দেখা যায়। সেরকম হলে সম্পর্কে ঝামেলা দেখা দেয়। যদি আয়না সরানো না যায়, তাহলে সামনে পর্দা লাগিয়ে নিন। 

৫) বিছানার শেষ প্রান্ত যেন জানালা বা দেওয়ালের সঙ্গে ঠেকে না থাকে। তাতে নেতিবাচক মানসিকতা তৈরি হয়। আপনার বেডরুমে ‘লাভ বার্ড’ রাখতে পারেন।

৬) ঘরের দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে ফেংশুই রাখলে তা প্রেমজীবনের জন্য ভালো বলে বিবেচিত হয়। ওই জায়গায় ফেংশুই সাজিয়ে রাখুন। 

৭) দেওয়ালে গোলাপি, হালকা নীল রং করলে ইতিবাচক মানসিকতা বৃদ্ধি পায়।

(বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই প্রতিবেদনে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে, তা ফেংশুইয়ের নিয়ম মোতাবেক দেওয়া হয়েছে। তা যে পুরোপুরি মিলে যাবে বা সম্পূর্ণ সত্য ও নির্ভুল, সেই দাবি করা হচ্ছে না।)

বন্ধ করুন