বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > Thursday Vrat Udyapan : বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা ও পুজোর বিধি জানুন জ্যোতিষমতে, কোন উপায়ে হবে লক্ষ্মীলাভ?
বেদ ও পুরাণ অনুসারে বৃহস্পতিবারের উপবাস অত্যন্ত ফলদায়ক। 

Thursday Vrat Udyapan : বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা ও পুজোর বিধি জানুন জ্যোতিষমতে, কোন উপায়ে হবে লক্ষ্মীলাভ?

  • Thursday Vrat Udyapan : বৃহস্পতিবারের ব্রতে কি কি নিয়ম মানতে হয়? কেন বৃহস্পতিবারের ব্রত এত ফলদায়ী? কিভাবে করবেন বেশ বৃহস্পতিবারের ব্রত? জেনে নিন এখান থেকে।

বিশ্বাস অনুসারে, যে ব্যক্তি বৃহস্পতিবার আন্তরিক চিত্তে ভগবান বিষ্ণুর আরাধনা করেন তার সমস্ত ইচ্ছা পূরণ হয়। বৃহস্পতিবারের উপবাস টানা ১৬ বৃহস্পতিবার রাখা হয় এবং ১৭ তম বৃহস্পতিবার উদযাপন দেওয়া হয়। আপনি যদি বৃহস্পতিবার উপবাস রাখেন তবে আপনাকে অবশ্যই বৃহস্পতিবারের কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। 

বৃহস্পতিবার স্নান করার পরে, ভগবান বিষ্ণুর একটি মূর্তি বা ছবি স্থাপন করুন। এবার ভগবান বিষ্ণুকে হলুদ বস্ত্র, হলুদ ফুল ও হলুদ নিবেদন করুন। এর সাথে ভগবান বিষ্ণুকে গুড় ও ছোলা নিবেদন করুন। হলুদে জল মিশিয়ে ভগবানকে অভিষেক করুন এবং হাতে গুড় ও ছোলা নিয়ে বৃহস্পতিবার উপবাসের ব্রতকথা পাঠ করুন। সবশেষে আরতি করার পর ফল খেতে পারেন।

 

বেদ ও পুরাণ অনুসারে বৃহস্পতিবারের উপবাস অত্যন্ত ফলদায়ক। বৃহস্পতিবার উপবাস পালন করলে ভক্তরা সকল কষ্ট থেকে মুক্তি পায় এবং তাদের কুণ্ডলীতে বৃহস্পতি গ্রহের দোষ দূর হয়। ভগবান বিষ্ণুর কৃপায় ভক্তরা সব সুখ পান।

ব্রত কথা: বহুকাল আগে এক নগরে এক প্রতাপশালী ও ধনী রাজা রাজত্ব করতেন। তিনি বৃহস্পতিবার উপবাস রাখতেন এবং অভাবীদের সাহায্য করতেন। দান-খয়রাত করতে তিনি কোন কমতি রাখতেন না। কিন্তু তার স্ত্রী এসব পছন্দ করতেন না। একদিন রাজা শিকার করতে গেলে বৃহস্পতি দেব সন্ন্যাসী হয়ে তাঁর বাড়িতে আসেন। রানী ঋষিকে বললেন যে তিনি রাজার দান খয়রাতের প্রতি বিরক্ত, তাই এমন কিছু প্রতিকারের পরামর্শ দিতে হবে যা দ্বারা ঘরে রাখা সমস্ত অর্থ নষ্ট হয়ে যায়। রাণীর কথা শোনার পর বৃহস্পতি দেব বললেন, তুমি এই টাকা ভালো কাজে ব্যবহার কর যাতে তোমাদের উন্নতি হয়। কিন্তু রানী বলেছিলেন যে তার এই অর্থের প্রয়োজন নেই।

রাণীর কথা শুনে বৃহস্পতি দেব বললেন, তুমি যদি তাই চাও, তাহলে প্রতি বৃহস্পতিবার গোবর দিয়ে তোমার ঘর মোছ,  রাজাকে বৃহস্পতিবার চুল দাড়ি কামাতে বোলো, তোমার চুল ধুইয়ে দাও বৃহস্পতিবার, তোমার যা কাপড় আছে তা ধোপাকে দাও প্রতি বৃহস্পতিবার। সন্ন্যাসীর কথা শুনে, রাণী প্রতিদিন একই কাজ করতে লাগলেন এবং শীঘ্রই তার সমস্ত ধন-সম্পদ ধ্বংস হয়ে গেল। তারপর রাজা খাবারের ব্যবস্থা করতে অন্য দেশে গেলেন। অন্য দেশে রাজা বন থেকে কাঠ কেটে শহরে বিক্রি করতে লাগল।

এমন এক সময় এসেছিল যখন রাণী এবং তার দাসীকে সাত দিন না খেয়ে থাকতে হয়েছিল। তখন রানী তার দাসীকে তার বোনের কাছে পাঠিয়ে তাকে সাহায্য চাইতে বললেন। রানীর কথা শুনে দাসী তার বোনের কাছে গেল। বৃহস্পতিবার দাসী রাণীর বোনের বাড়িতে পৌঁছালেন, যখন রাণীর বোন বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা শুনছিলেন, যার কারণে তিনি দাসীর কথার উত্তর দিতে পারেননি। দাসী বাড়ি ফিরে এসে রানীকে সব বললে রাণী খুব রেগে গেলেন। পুজো শেষ করে রাণীর বোন তার বাড়িতে এসে বলতে লাগলেন, বৃহস্পতিবারের ব্রতকথা শুনছিলেন, তাই উত্তর দিতে পারেননি।

তারপর রানী তার বোনকে পুরো ব্যাপারটা খুলে বললেন, তারপর বোন বললেন বৃহস্পতি দেব প্রতিটি মানুষের মনের ইচ্ছা পূরণ করেন। এরপর রানির বোন জানালেন বৃহস্পতিবার উপবাস রাখার পদ্ধতি। তার বোনের নির্দেশিত পদ্ধতি অনুযায়ী রাণী ও তার দাসী বৃহস্পতিবার উপবাস রাখেন। যার ফলে ভগবান বৃহস্পতি দেব তাঁর প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে তাদের অবস্থা ফিরে যাবার আশীর্বাদ দিলেন।

(উপরোক্ত তথ্য ধর্মীয় আস্থা ও লৌকিক মান্যতার উপর আধারিত)

 

বন্ধ করুন