বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > ধনতেরাসে কেনা হয় ঝাঁটাও, জানেন কেন?
ঝাঁটার সাহায্যে শক্তিলাভ ও ধনাঢ্য হওয়ার গল্প শুনিয়েছিলেন কৃষ্ণ।
ঝাঁটার সাহায্যে শক্তিলাভ ও ধনাঢ্য হওয়ার গল্প শুনিয়েছিলেন কৃষ্ণ।

ধনতেরাসে কেনা হয় ঝাঁটাও, জানেন কেন?

  • মৎস্যপুরাণ অনুযায়ী ঝাঁটাকে লক্ষ্মীর প্রতীক মনে করা হয়। আবার বৃহৎ সংহিতা অনুযায়ী, ঝাঁটা সুখ-শান্তি বৃদ্ধি করে ও দুষ্ট শক্তির সর্বনাশ করে।

১৩ তারিখ ধনতেরাস। প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী এদিন কোনও বস্তু কিনলে, তা সহজে নষ্ট হয় না, বরং ১৩ গুণ বৃদ্ধি পায়। এ কারণে ধনতেরাসে সোনা, রুপো, জমি, গাড়ি, বাহন, বাসন ইত্যাদি ক্রয়ের গুরুত্ব রয়েছে। কিন্তু এগুলির মধ্যে ঝাঁটা কেনার প্রথাও রয়েছে।

মৎস্যপুরাণ অনুযায়ী ঝাঁটাকে লক্ষ্মীর প্রতীক মনে করা হয়। আবার বৃহৎ সংহিতা অনুযায়ী, ঝাঁটা সুখ-শান্তি বৃদ্ধি করে ও দুষ্ট শক্তির সর্বনাশ করে। আবার, এর ব্যবহারে দারিদ্রও দূর হয়। এ দিন বাড়িতে নতুন ঝাঁটা দিয়ে ঘর পরিষ্কার করলে ঋণমুক্তি সম্ভব।

পুরাণ অনুযায়ী, দ্রৌপদী-অর্জুনের বিয়েতে বাধা সৃষ্টি হওয়ায় কৃষ্ণ একটি উপায় বার করেছিলেন। এর পর ঝাঁটা দিয়ে বাড়ি পরিষ্কার করা হয়েছিল। মনে করা হয় এর পর দ্রৌপদী-অর্জুনের বিয়ে হয়। ঝাঁটার সাহায্যে শক্তিলাভ ও ধনাঢ্য হওয়ার গল্প শুনিয়ে ছিলেন। 

বাড়িতে ঝাঁটাকে লুকিয়ে রাখার ও সঠিক স্থানে রাখার প্রথা প্রচলিত রয়েছে। ঝাঁটা কখনও সোজা দাঁড় করিয়ে রাখা উচিত নয়। মনে করা হয়, ঝাঁটাকে দাঁড় করিয়ে রাখলে শত্রু বাধা উৎপন্ন হয়। এ জন্য ঝাঁটাকে শুইয়ে ও লুকিয়ে রাখা উচিত। এর ফলে দুষ্টশক্তি ও শত্রুদের কারণে সমস্যায় পড়তে হয় না।

বন্ধ করুন