বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > আজ থেকে শুরু মহালক্ষ্মী ব্রত, জেনে নিন এই ব্রতের মাহাত্ম্য
মহালক্ষ্মী ব্রত দেবী লক্ষ্মীর আরাধনার জন্য বিশেষ বিবেচিত হয়। 

আজ থেকে শুরু মহালক্ষ্মী ব্রত, জেনে নিন এই ব্রতের মাহাত্ম্য

  • Mahalaxmi Vrat Katha : মহালক্ষ্মী ব্রত কেন করা হয় ? কী এই ব্রতের মাহাত্ম্য? কবে শুরু হয় এই ব্রত? এই ব্রত পালনের নিয়ম কী? জেনে নিন এখান থেকে ৷

মহালক্ষ্মী ব্রত দেবী লক্ষ্মীর আরাধনার জন্য বিশেষ বিবেচিত হয়। মহালক্ষ্মী ব্রত তারিখ শুরু আজ থেকে। অষ্টমী তিথি থেকে এই ব্রত শুরু। মহালক্ষ্মীর আশীর্বাদ পাওয়ার জন্য এই ব্রতকে বিশেষ বলে মনে করা হয়। এটিকে দীপাবলির চেয়েও বড় উৎসব বলে মনে করা হয়। কারণ এই দিনে মহালক্ষ্মীর পূজা করা হয়। আমাদের হিন্দু ধর্মে এই ব্রতের গুরুত্ব অপরিসীম। অষ্টমী তিথি থেকে শুরু হয়ে মহালক্ষ্মী অর্থাৎ গজলক্ষ্মী উপবাসের দিন শেষ হবে। এ বছর মহালক্ষ্মী ব্রত আসবে ১৭ সেপ্টেম্বর। 

এই দিন থেকে গাঁট বাঁধা শুরু হবে-

 এই ব্রত ৪ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু এবং ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে। শনিবার অষ্টমী তিথিতে উপবাসের সংকল্প নিয়ে বড় সুতোয় প্রথম গাঁট বেঁধে শুরু হবে। এর পর প্রতিদিনই গাঁটছড়া বাঁধতে হবে। মহালক্ষ্মী ব্রতের দিন শেষ গাঁটছড়া বেঁধে পূজার মাধ্যমে শেষ হবে এই ব্রত। বিবাহিত মহিলারা রাধা অষ্টমী থেকে এই ব্রত শুরু করবেন।

এটা বিশ্বাস করা হয় যে মহালক্ষ্মী ব্রত যথাযথ পরিশ্রম ও ভক্তি সহকারে পূর্ণ হলে দেবী লক্ষ্মী খুব খুশি হন। এই উপবাস পালনকারী মহিলাদের লক্ষ্মী দেবীর উদ্দেশ্যে শাড়ি, সিঁদুর, চুড়ি ইত্যাদি শৃঙ্গার সামগ্রী নিবেদন করতে হয়। ফুল অর্পণ করুন এবং প্রদীপ বা ধূপ নিবেদন করে যথাযথভাবে পূজা করুন। এর পরে মা মহালক্ষ্মীকে কমলগট্টা অর্থাত্‍ পদ্মের বীজ নিবেদন করুন এবং আরতি করুন। ভোগ নিবেদনের পর মা মহালক্ষ্মী স্তোত্র ও কথা পাঠ করা হয়।

মহালক্ষ্মী উপবাসে ধন লাভের নিশ্চিত প্রতিকার-

মহালক্ষ্মী ব্রতের সময় হাতির পিঠে বসা দেবী লক্ষ্মীর পূজা করুন। সেই সঙ্গে নিয়মানুযায়ী শ্রী যন্ত্রের পুজো করার পর বাড়িতে প্রতিষ্ঠা করুন। এতে করে সম্পদ ও সমৃদ্ধির অভাব হবে না।

 মহালক্ষ্মীর পূজার সময় রৌপ্য মুদ্রা একটা রেখে কেশর ও হলুদ দিয়ে পূজা করুন। তারপর এই কয়েন ক্যাশবক্সে রাখুন।।ধন-সম্পদ দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

 মহালক্ষ্মী উপবাসের দিন সন্ধ্যায় দেবী লক্ষ্মীর পায়ে সাতটি কড়ি অর্পণ করুন এবং তারপর আচারের সাথে পূজা করুন। পরে বাড়ির কোন কোণে এগুলি পুতে দিন। অর্থনৈতিক অবস্থার দ্রুত পরিবর্তন হবে।

 মহালক্ষ্মী ব্রতের দিন দেবী লক্ষ্মীকে পদ্মফুল অর্পণ করুন। এছাড়াও, সাদা মিষ্টি নিবেদন করুন। এতে দ্রুত মা লক্ষ্মী খুশি হন।

 মহালক্ষ্মী উপবাসের ১৬ দিনের প্রতিদিন সন্ধ্যায় বাড়ির মূল দরজায় বা বাড়ির যেকোন কোণে গরুর ঘিয়ের একটি প্রদীপ জ্বালান। এটি করলে সম্পদ বৃদ্ধি পায়।

মহালক্ষ্মী ব্রত কথা

প্রাচীনকালে একদা এক গ্রামে এক দরিদ্র ব্রাহ্মণ বাস করত। সেই ব্রাহ্মণ নিয়মিত শ্রী বিষ্ণুর পূজা করতেন। তাঁর উপাসনা ও ভক্তিতে খুশি হয়ে ভগবান শ্রী বিষ্ণু তাঁর কাছে আবির্ভূত হন এবং ব্রাহ্মণকে তাঁর ইচ্ছা জানাতে বলেন।

ব্রাহ্মণ তার বাড়িতে লক্ষ্মী দেবীর অধিষ্ঠানের ইচ্ছা প্রকাশ করলেন। এই কথা শুনে শ্রী বিষ্ণু ব্রাহ্মণকে লক্ষ্মী লাভের উপায় বললেন। যেখানে শ্রী হরি বলেছিলেন যে মন্দিরের সামনে একজন মহিলা আছেন। আপনি তাকে আপনার বাড়িতে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানান এবং সেই মহিলা হলেন দেবী লক্ষ্মী।

দেবী লক্ষ্মী আপনার বাড়িতে আসার পর, আপনার বাড়ি টাকা এবং শস্যে ভরে যাবে।এই বলে শ্রী বিষ্ণু চলে গেলেন। পরদিন ভোর চারটায় মন্দিরের সামনে গেলেন ব্রাহ্মণ । লক্ষ্মীদেবী খাবার খেতে এলে ব্রাহ্মণ তাকে তার বাড়িতে আসার জন্য অনুরোধ করেন ব্রাহ্মণ ।ব্রাহ্মণের কথা শুনে লক্ষ্মীদেবী বুঝতে পারলেন যে এই সব শ্রী বিষ্ণুর নির্দেশে হয়েছে।

লক্ষ্মীদেবী ব্রাহ্মণকে বললেন, তুমি মহালক্ষ্মী উপবাস কর। ১৬ দিন ব্রত পালন করে ষোড়শ দিনে রাতে চাঁদকে অর্ঘ্য নিবেদন করলে আপনার মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হবে। ব্রাহ্মণ দেবীর নির্দেশ অনুসারে উপবাস ও পূজা করলেন এবং দেবীকে উত্তরমুখী করে ডাকলেন, লক্ষ্মীদেবী তার প্রতিজ্ঞা পূরণ করলেন। সেই দিন থেকে নিয়মানুযায়ী এই ব্রত পালন করলে ব্যক্তির মনোবাঞ্ছা পূরণ হয়।

 

বন্ধ করুন