বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > Rishi Panchami 2022: এই ব্রতে পূর্বজন্মের পাপ ধুয়ে যায়, চলুন জেনে নেওয়া যাক নেপথ্যের কাহিনি
ঋষি পঞ্চমীর উপবাস মহিলাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ 

Rishi Panchami 2022: এই ব্রতে পূর্বজন্মের পাপ ধুয়ে যায়, চলুন জেনে নেওয়া যাক নেপথ্যের কাহিনি

  • Rishi Panchami 2022: ঋষি পঞ্চমীর উপবাস মহিলাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই ব্রত পালনে পূর্বজন্মের পাপ ধুয়ে যায় এবং সকল মনোবাঞ্ছা পূরণ হয়। আসুন জেনে নেওয়া যাক এই ব্রত সম্পর্কে।

হিন্দু ক্যালেন্ডার অনুসারে, ঋষি পঞ্চমী ভাদ্রপদ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চম দিনে পালিত হয়। ঋষি পঞ্চমীর উপবাস গণেশ চতুর্থীর পরের দিন পড়ে। এই বছর ২০২২ সালে, ঋষি পঞ্চমীর উপবাস ০১ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার অর্থাৎ আজকে। ঋষি পঞ্চমীর দিনে সাতজন ঋষির পূজা করার নিয়ম আছে। এর সাথে এটিও বিশ্বাস করা হয় যে এই দিনে গঙ্গা স্নান করলে পাপ ধুয়ে যায়। একই সঙ্গে ঋতুস্রাবের সময় অসাবধানতাবশত হয়ে যাওয়া ভুলের জন্য ক্ষমা প্রার্থনার জন্যও এই ব্রত পালন করেন নারীরা। আসুন জেনে নিই ঋষি পঞ্চমীর পূজা পদ্ধতি ও উপবাসের গল্প।

যিনি ঋষি পঞ্চমী উপবাস করেন তার জন্য গঙ্গায় স্নান করা শুভ বলে মনে করা হয়। যদি কোনো কারণে না থাকে, তাহলে বাড়িতে স্নানের জলে গঙ্গাজল মিশিয়ে স্নান করা যেতে পারে। গোবর মাটি, তুলসী মাটি, অশ্ব্ত্থের মাটি, গঙ্গা মাটি, গোপী চন্দন, তিল, আমলকি, গঙ্গাজল, গোমূত্র মিশিয়ে সকাল সকাল ১০৮ বার মাটি দিয়ে রগড়ে ধুয়ে ফেলতে হয়। এরপর স্নান সেরে গণেশের পূজা করা হয়। গণেশ পূজার পর সপ্তঋষিদের পূজা ও গল্প পাঠ করা হয়। পূজার পর কলা, ঘি, চিনি ও দক্ষিণা ব্রাহ্মণ বা ব্রাহ্মণকে দান করা হয়। দিনে একবার খাবার খাওয়া যায়। এতে দুধ, দই, চিনি ও শস্যদানা খাওয়া হয় না। ফল ও বাদাম খাওয়া যেতে পারে।

ঋষি পঞ্চমী ব্রত কথা

ব্রহ্ম পুরাণ অনুসারে, রাজা সীতাশ্ব একবার ব্রহ্মাজীকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন - পিতা, সমস্ত উপবাসের মধ্যে সেরা এবং অবিলম্বে ফলদায়ক উপবাস কোনটি? তিনি বলেন, ঋষি পঞ্চমীর উপবাস সকল ব্রতের মধ্যে শ্রেষ্ঠ এবং পাপ বিনাশকারী। ব্রহ্মাজী বললেন, হে মহারাজ, বিদর্ভ দেশে উত্তঙ্ক নামে এক গুণী ব্রাহ্মণ বাস করতেন। তাঁর স্ত্রী সুশীলা ছিলেন গুণী। তার একটি পুত্র সন্তান ছিল। তার মেয়ে বিয়ের পর বিধবা হয়ে যায়। অসুখী ব্রাহ্মণ দম্পতি তাদের কন্যাসহ গঙ্গার তীরে কুঁড়েঘর বানিয়ে বসবাস শুরু করেন। কিছুকাল পর উত্তঙ্ক  জানতে পারলেন যে, তার মেয়ে ঋতুমতী হওয়া সত্ত্বেও পূজার পাত্র স্পর্শ করত। এ কারণে তার শরীরে পোকা হয়েছে। ধর্মীয় শাস্ত্র অনুসারে, ঋতুমতী মহিলা প্রথম দিনে চন্ডালিনীর মতো, দ্বিতীয় দিনে ব্রহ্মঘাতিনী এবং তৃতীয় দিনে ধোপানীর মতো অপবিত্র। চতুর্থ দিনে স্নান করে সে পবিত্র হয়। শুদ্ধ চিত্তে ঋষি পঞ্চমীর উপবাস পালন করলে পাপমুক্ত হওয়া যায়। পিতার আদেশে, তার কন্যা রীতিমত উপবাস করে ঋষি পঞ্চমীর পূজা করেন। কথিত আছে, এই ব্রতের প্রভাবে তিনি সব দুঃখ থেকে মুক্ত হয়েছিলেন। এছাড়াও পরের জন্মে তিনি অবারিত সৌভাগ্য লাভ করেন।

 

 

বন্ধ করুন