বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > Santan Saptami : আজ সন্তান সপ্তমী ব্রত, জেনে নিন এই ব্রতের মাহাত্ম্য
বিশ্বাস করা হয় এই ব্রত পালন করলে শিশুর আয়ু দীর্ঘ হয় এবং স্বাস্থ্যও ভালো থাকে। 

Santan Saptami : আজ সন্তান সপ্তমী ব্রত, জেনে নিন এই ব্রতের মাহাত্ম্য

  • Santan Saptami : সন্তান সব তুমি ব্রত কিভাবে পালন করবেন ? কেন সন্তানের জন্য এই ব্রত পালন করা হয় ? এই ব্রতের পিছনে কি  কাহিনী লুকিয়ে রয়েছে চলুন জেনে নেওয়া যাক৷

ভাদ্রপদ মাসের শুক্লপক্ষের সপ্তমী তিথিতে সন্তান সপ্তমীর উপবাস পালন করা হয়। বিশ্বাস করা হয় এই ব্রত পালন করলে শিশুর আয়ু দীর্ঘ হয় এবং স্বাস্থ্যও ভালো থাকে।

 সন্তান সপ্তমী ২০২২ ভাদ্রপদ মাসের শুক্লপক্ষের সপ্তমী তিথিতে পালন করা হয়। এবার এই ব্রত হবে ৩রা সেপ্টেম্বর শনিবার। এই উপবাসটি সন্তান সন্তেন, অপরাজিতা সপ্তমী এবং মুক্তবরণ সপ্তমী নামেও পালিত হয়। রাজস্থানে এটিকে লীন সতীন বা দুবরি সপ্তমীও বলা হয়। শিশুদের মঙ্গল কামনায় এই উৎসব করা হয়। জেনে নিন এই ব্রতের পদ্ধতি ও বিশেষত্ত্ব সম্পর্কে।

পঞ্চাং অনুসারে, ভাদ্রপদ মাসের শুক্লপক্ষের সপ্তমী তিথি ২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ১২.২৮ থেকে শুরু হয়ে ৩ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকেল পর্যন্ত থাকবে। শনিবার অনুরাধা নক্ষত্র হওয়ায় এই দিনে অমৃত নামের একটি শুভ যোগ তৈরি হবে। এই যোগে সন্তানের জন্য এই ব্রত অত্যন্ত শুভ হবে।

সপ্তমীর ভোরে ঘুম থেকে উঠে উপবাসের সংকল্প নিন এবং স্নান করে পূজা করুন। ঘরের জায়গা পরিষ্কার করে লাল কাপড় বিছিয়ে দিন। শিব পরিবারের সাথে শিবের মূর্তি বা ছবি স্থাপন করুন।

জল ভর্তি একটি কলস নিয়ে তাতে একটি স্বস্তিক চিহ্ন তৈরি করুন এবং আম পল্লব এবং একটি নারকেল রাখুন। খাঁটি ঘির প্রদীপ জ্বালিয়ে ফুল, চাল, পান ও সুপারি অর্পণ করুন।

শিবকে বস্ত্র হিসাবে লাল মলি (লাল সুতো) নিবেদন করুন। খির-পুরির নৈবেদ্য এবং ময়দা ও গুড়ের মিষ্টি নিবেদন করুন। সন্তান সপ্তমীর ব্রত কথা পাঠ করুন। সবশেষে আরতি করে পূজার সমাপ্তি করুন।

এই দিনে ব্রত রাখুন। ইচ্ছেমতো ফল খেতে পারেন। আবার সন্ধ্যায় শিবের পূজার পর প্রসাদ গ্রহণ করতে পারেন। এভাবে সন্তান সপ্তমীর ব্রত পালন করলে শিশুর স্বাস্থ্য ভালো থাকে।

সন্তান সপ্তমী ব্রতকথা-

প্রাচীনকালে অযোধ্যাপুরীর প্রতাপশালী রাজা ছিলেন নহুশ। তার স্ত্রীর নাম ছিল চন্দ্রমুখী। তাঁর রাজ্যে বিষ্ণুদত্ত নামে এক ব্রাহ্মণ বাস করতেন, তাঁর স্ত্রীর নাম ছিল রূপবতী। রানী চন্দ্রমুখী এবং রুপবতীর মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল, একদিন তারা দুজনেই সরযু নদীতে স্নান করতে গিয়েছিলেন। যেখানে অন্যান্য মহিলারাও স্নান করছিলেন।

ওই নারীরা সেখানে পার্বতী-শিবের মূর্তি বানিয়ে এই ব্রত করতেন, রানী চন্দ্রমুখী ও রুপবতী ওই নারীদের কাছে নাম ও পূজার পদ্ধতি জানতে চাইলে এক নারী বলেন, সন্তানের জন্য করা হয় এই উপবাস। এই উপবাসের কথা শুনে রানি চন্দ্রমুখী ও রুপবতীও আজীবন এই উপবাস পালনের সংকল্প করেন এবং শিবের নামে একটি দড়ি বেঁধে দেন। কিন্তু বাড়িতে পৌঁছে তারা সংকল্পের কথা ভুলে গেল। যার কারণে মৃত্যুর পর মুরগির যোনিতে রাণী বানরের যোনিতে ব্রাহ্মণীর জন্ম হয়।

পরে উভয় প্রাণীই যোনি ত্যাগ করে মানুষের যোনিতে ফিরে আসে। চন্দ্রমুখী মথুরার রাজা পৃথ্বীনাথের রাণী হন এবং রূপবতী আবার ব্রাহ্মণের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন। এই জন্মে রাণী ঈশ্বরী নামে এবং ব্রাহ্মণী ভূষণ নামে পরিচিত ছিলেন। ভূষণার বিয়ে হয়েছিল রাজপুরোহিত অগ্নিমুখীর সঙ্গে। 

আগের জন্মে সংকল্প ভুলে যাওয়ায় এ জন্মেও রাণীর কোনো সন্তান হয়নি। যদিও উপবাসটি ভূষণার মনে ছিল, যার কারণে তিনি আটটি সুন্দর এবং সুস্থ পুত্রের জন্ম দেন। একদিন ভূষণা রাণী ঈশ্বরীর সাথে দেখা করতে গেলেন, সন্তান না থাকার জন্য তার প্রতি দুঃখ প্রকাশ করলেন। এতে রাণী ভূষণার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে তার সন্তানদের হত্যার চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি বাচ্চাদের চুলও নষ্ট করতে পারেননি।

পরে তিনি ভূষণাকে ডেকে পুরো ঘটনা খুলে বললেন, তারপর ক্ষমা চাওয়ার পর তাকে জিজ্ঞেস করলেন- তোমার ছেলেমেয়েরা মরেনি কেন? ভূষণা তাকে তার পূর্বজন্মের কথা মনে করিয়ে দিয়ে আরো বলেন, এই ব্রতের প্রভাবে তুমি চাইলেও আমার ছেলেদের হত্যা করতে পারোনি। ভূষণার মুখ থেকে পুরো বিষয়টি জানার পর, রাণী ঈশ্বরীও সেইভাবে সন্তানের সুখের জন্য এই ব্রতটি পালন করেন, তারপর এই উপবাসের প্রভাবে রাণী গর্ভবতী হন এবং একটি সুন্দর সন্তানের জন্ম দেন। সেই সময় থেকে এই উপবাস পুত্র লাভের পাশাপাশি সন্তানের সুরক্ষার জন্য প্রচলিত।

 

 

বন্ধ করুন