বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > Devuthani Ekadashi: দেবোত্থানী একাদশীতে কেন হয় তুলসী বিবাহ, জানুন এর পিছনের পৌরাণিক কাহিনি

Devuthani Ekadashi: দেবোত্থানী একাদশীতে কেন হয় তুলসী বিবাহ, জানুন এর পিছনের পৌরাণিক কাহিনি

দেবোত্থানী একাদশী ৪ নভেম্বর ২০২২   

devuthani ekadashi : লক্ষ্মী স্বরূপ তুলসী ভগবান বিষ্ণুর খুব প্রিয়। দেবোত্থানী একাদশীতে ভগবান বিষ্ণুর শালিগ্রাম রূপের সঙ্গে কেন বিয়ে হয় তুলসীর, জেনে নিন এখান থেকে।

দেবোত্থানী একাদশী ৪ নভেম্বর ২০২২ এবং ভগবান শালিগ্রাম এবং মাতা তুলসীর বিবাহও এই দিনে হয়। দেবোত্থানী একাদশীতে, ভগবান বিষ্ণু চার মাস যোগ নিদ্রার পর জেগে ওঠেন, এই দিন থেকে চর্তুমাস শেষ হয়। সমস্ত শুভ কাজ আবার শুরু হয়। 

শিব পুরাণ অনুসারে দেবোত্থানী একাদশীর গুরুত্ব

শিবপুরাণ অনুসারে, শঙ্খাসুরের আতঙ্কে সমস্ত দেব-দেবী খুব বিরক্ত হয়েছিলেন, তারপর সবাই মিলে এই অসুরের অবসানের জন্য ভগবান বিষ্ণু এবং ভগবান শঙ্করের কাছে প্রার্থনা করেছিলেন। এরপর কয়েকদিন ধরে ভগবান বিষ্ণু ও অসুর শঙ্খাসুরের মধ্যে প্রচণ্ড যুদ্ধ হয় এবং ভাদ্রপদ মাসের শুক্লপক্ষের একাদশীতে ভগবান বিষ্ণুর হাতে শঙ্খাসুর নিহত হন। উভয়ের মধ্যে দীর্ঘ যুদ্ধের কারণে ভগবান বিষ্ণু খুবই ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন। তিনি ক্ষীরসাগরের কাছে এসে বিশ্রাম নিতে লাগলেন এবং তারপর ঘুমিয়ে গেলেন। এই সময়ে ভগবান শিব সৃষ্টির কাজ নিজের কাঁধে নিয়েছিলেন। চার মাস যোগ নিদ্রার পর, কার্তিক শুক্লপক্ষের একাদশীতে ভগবান বিষ্ণু জেগে ওঠেন। ভগবান বিষ্ণুর জাগরণে, ভগবান শঙ্কর সহ সমস্ত দেব-দেবী তাঁর উপাসনা করেন এবং আবার তাঁর হাতে সৃষ্টি পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করেন। এ কারণে প্রতি বছর কার্তিক মাসের শুক্লপক্ষের একাদশী দেব প্রবোধিনী, দেবোত্থানী একাদশী নামে পরিচিত।

বৃন্দা ভগবান বিষ্ণুকে অভিশাপ দিয়ে পাথর করেছিলেন

ভগবান বিষ্ণু চার মাস যোগ ঘুমের পর জেগে ওঠেন এবং এই তিথিকে বলা হয় দেবোত্থানী একাদশী। দেবোত্থানী একাদশীতে ভগবান বিষ্ণুর শালিগ্রাম রূপের সাথে তুলসী মাতার বিয়ে হয়। দেবোত্থানী একাদশীতে তুলসী বিবাহের পিছনে একটি কিংবদন্তি রয়েছে। কিংবদন্তি অনুসারে, প্রাচীনকালে তুলসী, যার নাম বৃন্দা, তিনি ছিলেন শঙ্খচুড় নামক এক অসুরের স্ত্রী। শঙ্খচূড় ছিল দুষ্ট ও অধার্মিক, দেবতা ও মানুষ, সবাই এই অসুর দ্বারা জর্জরিত ছিল। তুলসীর পবিত্রতার কারণে সকল দেবতা মিলেও শঙ্খচূড়কে বধ করতে পারেননি। সমস্ত দেবতা একত্রিত হয়ে ভগবান বিষ্ণু ও শিবের কাছে এসে অসুরকে বধ করার উপায় জিজ্ঞাসা করলেন। সেই সময় ভগবান বিষ্ণু শঙ্খচূদের রূপ ধারণ করেন এবং তুলসীর সতীত্ব বিলীন করেন। যার ফলে শঙ্খচূদের ক্ষমতা শেষ হয়ে যায় এবং শিব তাকে হত্যা করেন। পরে তুলসী যখন এই কথা জানতে পারেন, তখন তিনি ভগবান বিষ্ণুকে পাথর হয়ে যাওয়ার অভিশাপ দেন। বিষ্ণু তুলসীর অভিশাপ মেনে নিয়ে বললেন তুমি পৃথিবীতে আমার পত্নী রূপে পূজিত হবে এবং তোমার পূজাও হবে। নেপালের গণ্ডকী এখনও পৃথিবীতে রয়েছে। শালিগ্রাম শুধু গণ্ডকী নদীতেই পাওয়া যায়।

তুলসী-শালিগ্রাম বিবাহের তাৎপর্য

কার্তিক মাসের শুক্লপক্ষের দেবোত্থানী একাদশীতে তুলসী বিবাহ করার তাৎপর্য রয়েছে। এই দিন মহিলারা  ভগবান বিষ্ণু রূপে শালিগ্রাম এবং বিষ্ণুপ্রিয়া তুলসীর বিবাহের অনুষ্ঠান করেন।

পূর্ণ আচারের সাথে, একটি সুন্দর মণ্ডপ করে বিয়ের অনুষ্ঠান করা হয়। বিবাহে অনেক গান, স্তোত্র এবং তুলসী নমাষ্টক সহ বিষ্ণু সহস্রনাম পাঠ করার বিধান রয়েছে।

শাস্ত্র মতে তুলসী-শালিগ্রাম বিবাহ করালে পুণ্য লাভ হয়, দাম্পত্য জীবনে প্রেম থাকে। এছাড়াও যে সমস্ত ভক্তরা তুলসীবিবাহ অনুষ্ঠান করে তারা শেষ পর্যন্ত মোক্ষ লাভ করে এবং ভগবান বিষ্ণুর কৃপায় তাদের সমস্ত ইচ্ছা পূরণ হয়। এটি বিবাহিত জীবনে আসা বাধা থেকে মুক্তি দেয়।

শ্রী হরির ভোগে তুলসী থাকা বাধ্যতামূলক, ভগবানের মালা ও পায়ে তুলসী নিবেদন করা হয়।

এটা বিশ্বাস করা হয় যে তুলসী বিবাহ করালে কন্যা দানের মতো পুণ্য লাভ হয়। আপনি যদি আজ পর্যন্ত কন্যাদান না করে থাকেন তবে একাদশীতে তুলসী বিবাহ করিয়ে পুণ্য অর্জন করতে পারেন।

 

বন্ধ করুন