কানে কানে কত কথা, জানুন সবিস্তারে।
কানে কানে কত কথা, জানুন সবিস্তারে।

কান দেখেই বোঝা যায় ব্যক্তিত্ব, জানুন কী ভাবে

  • কোনও ব্যক্তির কান দেখে তাঁর ব্যক্তিত্ব জানা যেতে পারে।

সামুদ্রিক শাস্ত্রের সাহায্যে ব্যক্তির বিভিন্ন অঙ্গের গঠন, আকৃতি, রং দেখে সেই ব্যক্তির স্বভাব, গুণ এমনকি ভবিষ্যৎ সম্পর্কেও জ্ঞান অর্জন করা যায়। কোনও ব্যক্তির কান দেখে তাঁর ব্যক্তিত্ব জানা যেতে পারে। কেমন আপনার কানের আকৃতি এবং তা কী বলে আপনার সম্পর্কে, জানুন এখানে--

ছোট কান: সামুদ্রিক শাস্ত্রে যে ব্যক্তির কান ছোট তাঁদের কিপ্টের শ্রেণিতে রাখা হয়েছে। এঁরা অর্থ গচ্ছিত রাখতেই বেশি ভালোবাসেন। এমন ব্যক্তি নিজের প্রয়োজনেও ততক্ষণ সেই অর্থ ব্যবহার করেন না, যতক্ষণ না তা অত্যন্ত জরুরী হয়ে পড়ে। এমন ব্যক্তির সামাজিক জীবন অত্যন্ত দুর্বল হয়। এঁরা প্রত্যেকটি ব্যক্তি এবং কাজকে সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখেন। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে এঁরা বিশ্বাসযোগ্য হন।

অত্যধিক ছোট কান: এমন ব্যক্তিকে ধর্মীয় প্রবৃত্তির মনে করা হয়। যে কোনও ধর্মীয় কাজের জন্য এঁরা সব সময় এগিয়ে থাকেন। কিন্তু ধর্মীয় কাজের মাধ্যমেই মোটা টাকা রোজগার করেন। এঁরা লোভী এবং চাতুর্যের সঙ্গে কাউকে ঠকাতে পারেন। তবে চঞ্চল স্বভাবের জন্য অনেক সময় সমস্যায় পড়েন।

লম্বা কান: যাঁদের কান লম্বা তাঁরা পরিশ্রমী এবং কর্মঠ হন। কোনও কাজেই এঁরা পিছু হন না এবং যে কাজ হাতে নেন তা পুরো করেই ছাড়েন। তাঁরা বুদ্ধিমান হন। কোনও ব্যক্তির কথার গভীর অর্থ বিশ্লেষণ করেই নিজের প্রতিক্রিয়া দেন।

চওড়া কান: যে ব্যক্তির কানের প্রস্থ তাদের দৈর্ঘ্যের চেয়ে বেশি, তাঁরা ভাগ্যশালী হন। নিজের পরিশ্রমের সাহায্যে জীবনে সমস্ত প্রকার সুখ-সুবিধা লাভ করেন। এমন কোনও সুযোগই হাতছাড়া করেন না, যাতে লাভ হতে পারে। চওড়া কান সাফল্যের ইঙ্গিত বহন করে।

মোটা কান: মোটা কানের ব্যক্তি সাহসী হন। তাদের মধ্যে অসাধারণ নেতৃত্ব ক্ষমতা থাকে। এমন ব্যক্তি মোটিভেশনাল স্পিকার, রাজনেতা বা লেখক হয়ে থাকেন। তবে এদের কান-পাতলা বললেও অতিশয়োক্তি হবে না। যে কোন কাজই এঁরা উৎসাহের সঙ্গে শুরু করেন।

গজকর্ণ কান: শরীরে অপেক্ষাকৃত বড় কান শুভ। এমন ব্যক্তি নিজের কাজে সফল এবং দীর্ঘায়ু হন। সমাজে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন। ভালো বক্তার পাশাপাশি এঁরা ভালো শ্রোতাও হন। সব কথা শোনার পরই নিজের প্রতিক্রিয়া জানান। উচ্চ পদাধিকারীদের কান এমন হয়।

বাঁদরের মতো কান: এমন ব্যক্তি লোভী হন। এঁদের নজর সব সময় অন্যের ধন-সম্পত্তির ওপরে থাকে। এঁরা অত্যন্ত রাগী হন। এঁদের কথা না-শুনলে রাগের মাথায় মারপিট পর্যন্ত করতে পারেন।

বন্ধ করুন