বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > Abhishek Banerjee: বিজেপিকে চাপে রাখতেই কি উত্তরবঙ্গে বাড়ি ঘেরাওয়ের ডাক অভিষেকের
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (PTI)

Abhishek Banerjee: বিজেপিকে চাপে রাখতেই কি উত্তরবঙ্গে বাড়ি ঘেরাওয়ের ডাক অভিষেকের

  • চা শ্রমিকদের পিএফ ( প্রভিডেন্ট ফান্ড) ও গ্র্যাচুইটির সমস্যা না মিটলে উত্তরবঙ্গের বিজেপি সাংসদ, বিধায়কদের বাড়ি ঘেরাওয়ের ডাক দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সমস্যা মেটানোর সময়সীমাও স্থির করে দিয়েছেন তিনি।

চা শ্রমিকদের পিএফ ( প্রভিডেন্ট ফান্ড) ও গ্র্যাচুইটির সমস্যা না মিটলে উত্তরবঙ্গের বিজেপি সাংসদ, বিধায়কদের বাড়ি ঘেরাওয়ের ডাক দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সমস্যা মেটানোর সময়সীমাও স্থির করে দিয়েছেন তিনি। আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এই সমস্যা মেটাতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আইএনটিটিইউসি অনুমোদিত চা শ্রমিকদের সমাবেশের বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি চা বাগান নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেন। অভিষেক বলেন, ‘‘ নরেন্দ্র মোদী নিজে চাওয়ালা দাবি করে প্রধানমন্ত্রী হয়ে গেলেন। যাঁরা চা বাগানে কাজ করেন তাঁদের জন্য কিছুই করলেন না। ওঁদের আচ্ছে দিন এসেছে, আপনাদের আসেনি। আচ্ছে দিনে এসেছে জন বার্লা নিশীথ প্রামাণিক ও জয়ন্ত রায়দের।’’

সুর চড়া করে অভিষেক আরও বলেন, ‘‘ আপনারা অনেকেই পিএফ ও গ্র্যাচুইটি পান না। বিষয়টি কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে। অক্টোবর মাস পুজোর মাস। এই সময়টা বাদ দিয়ে নভেম্বর ডিসেম্বর মাসে পিএফ ও গ্র্যাচুইটি নিয়ে আন্দোলন জোরদার করুন। ৩১ ডিসেম্বরে মধ্যে যদি আপনাদের দাবি না মেটে, তবে সবাই মিলে জন বার্লা, নিশীথ প্রামাণিক ও জয়ন্ত রায়-সহ আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ি জেলার নয় বিধায়কদের বাড়ি ঘেরাও করুন। আমি আসব সেই কর্মসূচিতে।’’ প্রতিটি ঘেরাও কর্মসূচিতে ১৫ হাজার করে চা শ্রমিককে অংশগ্রহণ করার নির্দেশ দেন অভিষেক।

তিনি বলেন, চা বাগানে শপিং মল তৈরি করিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জন। সেই শপিং মল ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার বার্তা দেন অভিষেক।

রবিবারের সমাবেশে তিনি আশ্বাস দেন, তিন লক্ষ চা শ্রমিককে আইডেন্টিটি কার্ড তৈরি করে দেবে রাজ্য সরকার। তিন মাসের মধ্যে সেই কার্ড তৈরি হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে শ্রম দফতর নির্দেশও দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। বাগান মালিকরা যদি পিএফ-এর টাকা না দেয় তবে তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করার নির্দেশ দেন অভিষেক।

চা শ্রমিকদের সম্মেলনে নিজের বক্তব্যকে কেন এতো চড়া সুরে বাঁধলেন ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ? ১৩ সেপ্টেম্বর বিজেপির নবান্ন অভিযান। রীতিমতো আটঘাট বেঁধে পথে নামছে বিজেপি। এর মধ্যে জেলাগুলিতে এই অভিযানকে সফল করতে মিছিল-পথসভা হচ্ছে। তাই সুকান্ত-শুভেন্দুদের চাপে রাখতে উত্তরবঙ্গে দাঁড়িয়েই প্রচ্ছন্ন ‘হুমকি’ দিয়ে রাখলেন অভিষেক?

বিজেপি অবশ্য এই যুক্তি মানতে নারাজ। জলপাইগুড়ির এক বিজেপি নেতার প্রশ্ন, ‘‘ আমাদের বাড়ি ঘেরাও অবধি উনি জেলের বাইরে থাকবেন তো?’’

বন্ধ করুন