বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > চলছে বৃষ্টি, জলোচ্ছ্বাস দিঘায়, ঘূর্ণিঝড় ‘‌জাওয়াদ’‌ মোকাবিলায় দিঘায় মন্ত্রী

চলছে বৃষ্টি, জলোচ্ছ্বাস দিঘায়, ঘূর্ণিঝড় ‘‌জাওয়াদ’‌ মোকাবিলায় দিঘায় মন্ত্রী

গভীর নিম্নচাপ হিসেবে রাজ্যে ঢুকবে ‘‌জাওয়াদ’‌। দিঘায় এনডিআরএফ।

দীঘায় জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর টিম এসে পৌঁছেছে। এলাকার মানুষদের মধ্যে সচেতনতা প্রচার চালাচ্ছেন তাঁরা।

গভীর নিম্নচাপ হিসেবে রাজ্যে ঢুকবে ‘‌জাওয়াদ’‌। তার জেরে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত মোকাবিলায় কোনও খামতি রাখতে চাইছেন না প্রশাসনের আধিকারিকরা। দীঘা সহ পূর্ব মেদিনীপুরের সমুদ্র তীরবর্তী এলাকায় মানুষেরা যাতে বিপদের মধ্যে না পড়েন, সেজন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন।

এদিন রাজ্যের মৎস্যমন্ত্রী অখিল গিরি দিঘা-সহ পূর্ব মেদিনীপুরের বেশ কিছু এলাকা পরিদর্শন করেন। এদিন তিনি জানান, ‘‌যে সব নীচু এলাকা রয়েছে, সেখানে সমুদ্রে জলোচ্ছ্বাসের ফলে যদি জল ঢুকে যায়, তাহলে সেই সব জায়গার লোকেদের অন্য জায়গায় সরিয়ে এনে আয়লা সেন্টারে আশ্রয় দেওয়া হবে। সেখানে বিদ্যুতের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। আশ্রিতদের জন্য একদিকে যেমন শুকনো খাবারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে, তেমনই রান্না করা খাবারেরও ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।’‌ তিনি জানান, চাঁদপুর, চামরাশালপুর, শংকরপুর-সহ বেশ কিছু জায়গা রয়েছে, সেখানে সমুদ্রের জল উপচে পড়ে গ্রামের মধ্যে ঢুকতে পারে। তবে এখনও পর্যন্ত সমুদ্রের জল উপচে পড়ে ঢোকার মতো অবস্থায় আসেনি। কারণ, এখন যেহেতু ভাটা চলছে। তাই বোঝা যাচ্ছে না। তবে পরিস্থিতি যদি খারাপ হয়, তা মোকাবিলা করার জন্য সবরকম ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।'

পাশাপাশি দিঘায় যেসব পর্যটকরা এসেছেন, তাঁরা যেন সমুদ্রের ধারে ঘোরাফেরা না করেন, সেই বার্তাও এদিন দেন মৎস্যমন্ত্রী। এই প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌আমরা খবর নিলাম, অনেক জায়গায় পর্যটকরা তাঁদের বুকিং বাতিল করেছেন। হোটেল মালিকদের বলেছি, এই সময় যত কম সংখ্যক পর্যটক আসেন, তত ভালো। যারা এসেছেন, তাঁরা সমু্দ্রের আশেপাশে না যান।’‌ ইতিমধ্যে দিঘায় জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর দল এসে পৌঁছেছে। এলাকার মানুষদের মধ্যে সচেতনতা প্রচার চালাচ্ছেন তাঁরা। ঘূর্ণিঝড়ের সময়ে কোন জিনিস করা উচিত, কোনটা করা উচিত নয়, সেবিষয়ে মানুষদের সচেতন করা হচ্ছে। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর পাশাপাশি এবার প্রশাসনের তরফেও সাধারণ মানুষের পাশে থাকার বার্তা দেওয়া হল।

বন্ধ করুন