বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মধু সংগ্রহকারীদের ওপর জলদস্যুদের হামলা, লুঠ ৮ কুইন্টাল মধু, আহত ১১
 মধু সংগ্রহকারীদের মারধরের অভিযোগ। প্রতীকী ছবি

মধু সংগ্রহকারীদের ওপর জলদস্যুদের হামলা, লুঠ ৮ কুইন্টাল মধু, আহত ১১

  • এই অভিযোগ পাওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। জলদস্যুদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। 

মধু সংগ্রহ করতে গিয়ে সর্বস্ব লুঠ হয়ে গেল। মধু সংগ্রহকারীদের ওপর হামলা চালাল জলদস্যুরা। প্রায় ৮ কুইন্টাল মধু নিয়ে পালিয়েছে তারা। এর পাশাপাশি ১১ জন মধু সংগ্রহকারীকে ব্যাপক মারধর করা হয়েছে। কেউ মাথায় চোট পেয়েছেন, আবার অনেকের হাতের হাড় ভেঙে গিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে সুন্দরবনের আমলামেথিতে। এই জায়গাটি সজনেখালি থেকে গভীর জঙ্গলে। এই অভিযোগ পাওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। জলদস্যুদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রের খবর, পীরখালির কাছে গাজীর খালে নৌকা নোঙর করে ঘুমাচ্ছিলেন ওই মধু সংগ্রহকারীরা। সেই সময় জলদস্যুরা তাদের ওপর হামলা চালায়। জলদস্যুরা অপ্রস্তুত অবস্থায় থাকায় অসহায়ের মতো মার খেয়েছে। সেইভাবে কোনও প্রতিরোধ গড়তে পারেননি। এই ঘটনায় আক্রান্ত এক মধু সংগ্রহকারী জানান, তারা সকলে বালি-১ এর বাসিন্দা। অন্তত ২০ জন জলদস্যু তাদের হামলা চালিয়েছিল। মধু লুঠ এবং মারধরের পর জলদস্যুরা তাদের নৌকা টেনে নিয়ে গভীর জঙ্গলে ছেড়ে দেয়। তারপর নৌকার হাল এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র জলে ফেলে দেয়। একদিকে বাঘের আতঙ্ক অন্যদিকে, যন্ত্রণার মধ্যে কোনভাবে গাছের ডাল কেটে দাড় বানিয়ে তারা কোনওভাবে পীরখালি বনবিভাগের অফিসে যান।

আহত মধু সংগ্রহকারীদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার মধ্যে এখনও তিনজন ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। প্রসঙ্গত, জলপথে নজরদারি থাকা সত্ত্বেও কিভাবে জলদস্যুরা হামলা চালাল সেটা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। যদিও গোসাবার বিধায়ক সুব্রত মন্ডল এই ঘটনাকে এখনই জলদস্যুদের হামলা বলে মানতে রাজি নন। তিনি বলেন, ‘পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ প্রশাসন।’ তবে এরকম জলদস্যুদের হামলার ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন মধু সংগ্রহকারীরা।

বন্ধ করুন