বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মুর্শিদাবাদে একই স্কুলে উচ্চ মাধ্যমিকে ফেল ৮০, বিক্ষোভের আগুনে ঝলসে আহত ২ পড়ুয়া
উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন পড়ুয়ারা। (ছবি সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন পড়ুয়ারা। (ছবি সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

মুর্শিদাবাদে একই স্কুলে উচ্চ মাধ্যমিকে ফেল ৮০, বিক্ষোভের আগুনে ঝলসে আহত ২ পড়ুয়া

  • উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন পড়ুয়ারা।

উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফল নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে পড়ুয়াদের একাংশের মনে। এই আবহে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ করতে দেখা গিয়েছে পড়ুয়াদের। এহেন এই বিক্ষোভেই ঘটল এক মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে আহত দুই পড়ুয়া। ঘটনাটি মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া। মহিষমারাতেও পড়ুয়াদের বিক্ষোভ দেখা গিয়েছে উচ্চ মাধ্যমিকে কম মার্কস পাওয়ায়। শনিবারের ঘটনায় আহত ছাত্রের একজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গিয়েছে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে গিয়ে আগুন জ্বালিয়েছিলেন পড়ুয়ারা। সেই আগুনেই ঝলসে যান পড়ুয়ারা।

জানা গিয়েছে হরিহরপাড়ায় অবস্থিত সরবপুর উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এবার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফর্ম ভরেছিলেন ১৮০ জন ছাত্র। সেখানে পাশ করেছেন মাত্র ১০০ জন। ফেল ৮০ জন। যাঁরা পাশ করেছেন, তাঁদেরও অনেকেরই অভিযোগ, আশা অনুযায়ী ফল হয়নি। এই অভইযোগে শুক্রবার থেকে বিক্ষোভ দেখায় পড়ুয়ারা। প্রধান শিক্ষক বিক্ষোভরত পড়ুয়াদের শনিবার স্কুলে আসতে বলেছিলেন। তবে শনিবার প্রধান শিক্ষক জানান, এবার আর কিছউ করা যাবে না। বিক্ষোভ প্রদর্শনকারী ছাত্রদের প্রধান শিক্ষক পরামর্শ দেন যাতে পরের বারের জন্যে ভালো করে পড়াশুনো করেন তাঁরা।

তবে কোনও কিছুতেই কান দিতে নারাজ পড়ুয়ারা। সেখানে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন পড়ুয়ারা। টায়ার জালান তাঁরা। সেই আগুনেই ঝলসে যান দুই পড়ুয়া। তাঁদের মধ্যে একজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। উল্লেখ্য, এবছরের উচ্চ মাধ্যমিকে এই মুর্শিদাবাদের রুমানাই হয়েছেন প্রথম স্থানাধিকারী। সেখানে এই পড়ুয়ারা উত্তীর্ণ না হতে পেরে বিক্ষোভে ফেটে পড়েছেন।

এদিকে প্রায় এই একই ঘটনা ঘটেছে মহিষমারায়। সেখানকার ঘোড়ামারা উচ্চ বিদ্যালয়ে উচ্চ মাধমিকের ফর্ম ভরেছিলেন ১৬১ জন পড়ুয়া। তাঁধের মধ্যে উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীর সংখ্যা মাত্র ৭৪। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে ক্ষুব্ধ পড়ুয়ারা হামলা চালান শিক্ষক-শিক্ষিকাদের উপর। স্কুলে তালা বন্দি করে আটক রাখা হয় প্রধান শিক্ষককে।

 

বন্ধ করুন