বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Jagaddal Incident: জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে শিশুকন্যাকে যৌন নির্যাতন জগদ্দলে, তদন্তে নামল পুলিশ

Jagaddal Incident: জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে শিশুকন্যাকে যৌন নির্যাতন জগদ্দলে, তদন্তে নামল পুলিশ

নাবালিকাকে যৌন নির্যাতন করার অভিযোগ উঠল।

এই ঘটনার কথা লিখিতভাবে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। জগদ্দল থানা এলাকায় গিয়ে তদন্ত শুরু করেছে। ওই দুষ্কৃতীর খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়েছে। শিশুটির বয়ান নথিভুক্ত করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে শাস্তির দাবি করা হয়েছে। স্থানীয় মানুষজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। শিশুটির ক্ষতিও করে দিতে পারত ওই দুষ্কৃতী।

জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে নাবালিকাকে যৌন নির্যাতন করার অভিযোগ উঠল। লক্ষ্মীপুজোর দিন এই নাবালিকাকে জঙ্গলে টেনে নিয়ে গিয়ে যৌন নির্যাতন করা হয়। এই নিষ্ঠুর কাজ করার অভিযোগ উঠল এক দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে। এমনকী এই ঘটনা কাউকে জানালে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় ওই দুষ্কৃতী বলে অভিযোগ। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জগদ্দলে।

ঠিক কী ঘটেছে জগদ্দলে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, উত্তর ২৪ পরগনার জগদ্দলে নির্যাতিতা শিশুটি তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। নৈহাটি–রাউতা বিআরএস কলোনি এলাকার বাসিন্দা শিশুটিও তার পরিবার। রবিবার সকালে তার বাবাকে খুঁজতে শিশুটির বাড়িতে এসেছিল ওই দুষ্কৃতী। কিন্তু তখন নির্যাতিতা শিশুটির বাবা বাড়িতে ছিলেন না। নাবালিকা ওই দুষ্কৃতীকে জানায়, বাবা বাইরে কাজে গিয়েছে। তখন দুষ্কৃতী তাকে জিজ্ঞেস করে, সে জায়গাটি চেনে কিনা। শিশুটি চেনে বলে জানাতেই তার বাবাকে খোঁজার জন্য তাকে নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় ওই দুষ্কৃতী। তারপর মাগুরবাগানের জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে ওই দুষ্কৃতী শিশুটিকে যৌন নির্যাতন করে বলে অভিযোগ।

কী বলছে নির্যাতিতার পরিবার?‌ পরিবার সূত্রে খবর, যৌন নির্যাতন করার পর ওই দুষ্কৃতী শিশুটিকে বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে ছেড়ে পালিয়ে যায়। তখন শিশুটি কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি ফেরে বলে জানিয়েছেন তার দিদি। বাড়ি ফেরার পর তার সারা গায়ে নোংরা লেগে থাকতে দেখেন। এমনকী শিশুটিকে বমি করতে দেখে সন্দেহ হয় পরিবারের সদস্যদের। তখন শিশুটিকে কী হয়েছে জিজ্ঞেস করলে বাবা–মাকে সব কথা খুলে বলে সে। এই দুষ্কৃতী তাকে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়েছে বলার পর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।

পুলিশ কী তথ্য পেয়েছে?‌ পুলিশ সূত্রে খবর, এই ঘটনার কথা লিখিতভাবে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। জগদ্দল থানা এলাকায় গিয়ে তদন্ত শুরু করেছে। ওই দুষ্কৃতীর খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়েছে। শিশুটির বয়ান নথিভুক্ত করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে শাস্তির দাবি করা হয়েছে। স্থানীয় মানুষজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। শিশুটির ক্ষতিও করে দিতে পারত ওই দুষ্কৃতী।

বন্ধ করুন