বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মাছ চুরির প্রতিবাদ করায় মালদহে পুলিশকর্মীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ
মাছ চুরির প্রতিবাদ করায় মালদহে পুলিশকর্মীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ। (ছবিটি প্রতীকী)
মাছ চুরির প্রতিবাদ করায় মালদহে পুলিশকর্মীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ। (ছবিটি প্রতীকী)

মাছ চুরির প্রতিবাদ করায় মালদহে পুলিশকর্মীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ

বিভীষণ ও তাঁর ভাইকে উদ্ধার করে বুলবুলচণ্ডী গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাঁদের মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এলাকার এক দল দুষ্কৃতীর হাতে আক্রান্ত হলেন এক পুলিশকর্মী। তাঁর ভাইকেও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। জানা গিয়েছে, পুকুরে মাছ চুরির প্রতিবাদ করেছিলেন ওই পুলিশ কর্মী। এই ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তবে এখনও পর্যন্ত অভিযুক্তদের ধরা সম্ভব হয়নি।

মালদহের হবিবপুরে ঋষিপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা বিভীষণ মণ্ডল। পেশায় তিনি পুলিশকর্মী ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই বাড়ির কাছে পুকুরে মাছ চাষ করতেন। বৃহস্পতিবার রাতে বিভীষণ দেখতে পান তাঁর পুকুরে মাছ চুরি করছেন এলাকার কিছু দুষ্কৃতী। সঙ্গে সঙ্গে তিনি প্রতিবাদ করেন। চুরির প্রতিবাদ করায় কয়েকজন এসে তাঁকে বেধড়ক মারধর করেছেন বলে বিভীষণ জানিয়েছেন। তাঁর অভিযোগ, তাঁকে মারধর করা হচ্ছে, এই কথা শুনতে পেয়েই তাঁর ভাই তপন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। সেখানেই দুষ্কৃতীরা তাঁর ভাইকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে থাকে। চিৎকার চেঁচামেচি শুনতে পেয়ে আশেপাশের বাসিন্দারা ছুটে যান। তাঁরাই বিভীষণ ও তাঁর ভাইকে উদ্ধার করে বুলবুলচণ্ডী গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাঁদের মালদহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিভীষণের অভিযোগ, এই চুরির ঘটনার সঙ্গে বুলেট মণ্ডল, মিঠুন মণ্ডল ও উত্তম মণ্ডল জড়িত। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে হবিবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু ঘটনার পর থেকে এরা প্রত্যেকেই পলাতক। ফলে তাঁদের কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

বন্ধ করুন