বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দুয়ারে রেশন দিতে গিয়ে মিলল দুয়ারে মার, গ্রাহকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ
রেশন ডিলারের দোকানে রাখা সামগ্রী। 
রেশন ডিলারের দোকানে রাখা সামগ্রী। 

দুয়ারে রেশন দিতে গিয়ে মিলল দুয়ারে মার, গ্রাহকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

  • এই নিয়ে নালিশ পর্যন্ত ঠোকা হয়েছে। অথচ ঘটনার কারণ শুনে অবাক গ্রামবাসীরা।

দুয়ারে রেশন দিতে গিয়ে জুটল দুয়ারে মার। এই ঘটনা নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। রেশন দিতে এসে মার খেতে হবে!‌ এতে চমকে গিয়েছেন অনেকেই। প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, কী অপরাধে জুটেছে মার?‌ কারণ গ্রাহকের কাছে মার খেলেন খোদ রেশন ডিলার। এই নিয়ে নালিশ পর্যন্ত ঠোকা হয়েছে। অথচ ঘটনার কারণ শুনে অবাক গ্রামবাসীরা।

ঠিক কী ঘটেছে সেখানে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, মঙ্গলবার আমডাঙার কাছে বড়গাছিয়া গ্রামে রেশন বিলি করছিলেন মহম্মদ ইজরাইল নামে এক রেশন ডিলার। প্রত্যেকটি বাড়িতেই যান তিনি। সরকারি নির্দেশ বলে কথা। ততক্ষণে প্রায় ৪০টি বাড়িতে তিনি রেশন দুয়ারে পৌঁছে দিয়েছিলেন। তারপরই ঘটে বিপত্তি। সার্ভার ডাউন হয়ে যায়। সুতরাং সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে পারেননি তিনি। ফলে দেরি হয়ে যায়। এই দেরির কারণেই মহম্মদ ইজরাইলকে প্রহৃত হতে হয়ে গ্রাহকের কাছে।

অভিযোগ, সময়ে রেশন দুয়ারে পৌঁছে দিতে না পারায় রাগ হয় এক রেশন গ্রাহকের। বড়গাছিয়া গ্রামের বাসিন্দা সফিকুল ইসলাম তখন রেগে গিয়ে মারধর শুরু করেন রেশন ডিলারকে। রেশন দিতে কেন দেরি হচ্ছে?‌ এই প্রশ্ন তুলে বেধড়ক মারধর করেন। তাতে আহত হন রেশন ডিলার মহম্মদ ইজরাইল। এই ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

পুলিশ সূত্রে খবর, রেশন ডিলার মহম্মদ ইজরাইল লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। রেশন গ্রাহক সফিকুল ইসলাম তাঁকে মারধর করেছেন। এটা সরকারি কাজে বাধা দেওযার সামিল। এমনকী এই ঘটনা নিয়ে রেশন ডিলাররা তাঁদের নিরাপত্তার দাবিতে সরব হন। বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। অভিযুক্তকে এখানে ঢাকা হয়েছে। উল্লেখ্য, আগামী ১৬ নভেম্বর থেকে রাজ্যজুড়ে দুয়ারে রেশন প্রকল্প চালু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বন্ধ করুন