বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‘‌‌একি এখানে সাপ কেন? সর্বনাশ’‌, ফনা তুলতেই আর্ত চিৎকার রেল পুলিশ কর্মীর
রেল পুলিশে দফতরে সাপ। 
রেল পুলিশে দফতরে সাপ। 

‘‌‌একি এখানে সাপ কেন? সর্বনাশ’‌, ফনা তুলতেই আর্ত চিৎকার রেল পুলিশ কর্মীর

  • মঙ্গলবার রেল পুলিশের কম্পিউটার রুমে সাপ ঢুকে পড়েছিল। তবে সেটা কেউ টের পাননি।

এবার সাপ ঢুকে পড়ল রেল পুলিশে দফতরে। বিষয়টি প্রথমে কেউ বুঝতে পারেননি। কিন্তু কম্পিউটার রুমে কাজ করার সময়ই সে ফনা তুলে প্রস্তুত। এই দেখে কম্পিউটার অপারেটর উৎপল দাস রীতিমতো ঘামতে শুরু করেন। ক্ষণিকের জন্য কি করবেন বুঝতে পারেননি। শুধু চেঁচিয়ে বলেন, ‘‌একি এখানে সাপ কেন? সর্বনাশ।‌’‌ আর তাতেই আতঙ্ক ছড়াল ব্যান্ডেলে রেল পুলিশের দফতরে।

ঠিক কী ঘটেছে সেখানে?‌ জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রেল পুলিশের কম্পিউটার রুমে সাপ ঢুকে পড়েছিল। তবে সেটা কেউ টের পাননি। তবে কাজ করতে করতে কম্পিউটার অপারেটর উৎপল দাস লক্ষ করেন, মনিটরের পিছন থেকে কী যেন উঁকি দিচ্ছে। উঠে দাঁড়াতেই তাঁর সামনে ফনা তুলে নিজ রূপ ধারণ করে সাপ। থানা জুড়ে তখন হুলস্থুল বেঁধে গিয়েছে। সাপ তাড়াতে নানা কাণ্ড করতে থাকেন পুলিশকর্মীরা। কিন্তু প্রত্যেকেই ধরতে ব্যর্থ হন।

এরপর ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন পুলিশকর্মীরা। আর খবর দেন স্থানীয় এক সর্পবিদকে। ব্যান্ডেলের বাসিন্দা অরুণ প্রসাদ নামে সর্পবিদ সাপটি ধরার পর বলেন, ‘‌ওটা দাঁড়াশ সাপ এবং নির্বিষ। সম্ভবত খাবারের খোঁজে এখানে ঢুকে পড়েছিল।’ তবে এই ঘটনার পর আতঙ্ক যেন এখনও কাটেনি। কোনও আস্তে শব্দ কানে এলেই সবাই উঠে দাঁড়াচ্ছেন।

ঘটনার বিষয়ে ওই থানার কম্পিউটার অপারেটর উৎপল দাস বলেন, ‘আমার সারা শরীর ঘেমে গিয়েছিল। কি করব বুঝতে পারছিলাম না। থানার পাশে ঝোপঝাড় আছে। সেখান থেকেই সম্ভবত সাপটি এসেছে। এবার না হয় দাঁড়াশ সাপ। কেউটে যে আসবে না তার নিশ্চয়তা কোথায়?‌ এখনও আমার ঘোর কাটেনি। ভয় কাজ করছে।’

বন্ধ করুন