বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'উপসর্গহীন করোনা আক্রান্ত' শুভেন্দু-সহ তৃণমূলত্যাগীদের তীব্র আক্রমণ অভিষেকের
ডায়মন্ড হারবারের সভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। (ছবি সৌজন্য ফেসবুক)
ডায়মন্ড হারবারের সভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। (ছবি সৌজন্য ফেসবুক)

'উপসর্গহীন করোনা আক্রান্ত' শুভেন্দু-সহ তৃণমূলত্যাগীদের তীব্র আক্রমণ অভিষেকের

  • অভিষেক জানান, তৃণমূল ভাইরাস-মুক্ত হচ্ছে।

এবার শুভেন্দু অধিকারীকে উপসর্গহীন করোনাভাইরাসের আক্রান্তের সঙ্গে তুলনা করলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। জানালেন, ‘উপসর্গহীন বেইমান’-দের চিহ্নিত করে ফেলেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

রবিবাসরীয় দুপুরে নিজের লোকসভা কেন্দ্র ডায়মন্ড হারবারের সভা থেকে শুভেন্দুকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন যুব তৃণমূল সভাপতি। হাইভোল্টেজ টক্করকে আরও এককদম এগিয়ে নিয়ে গিয়ে শুভেন্দুর মতো তৃণমূলত্যাগীদের উপসর্গহীন করোনা রোগীর সঙ্গে তুলনা করেন অভিষেক। বলেন, ‘হঠাৎ করে এত প্রেম! বাবা! বলছে, অমিত শাহ আমার দাদা। অমিত শাহ তোমার দাদা হলে তাহলে ভাইপো কে? অমিত শাহের ছেলে? আমি তো জিজ্ঞাসা করতে চাই। ২০১৪ সাল থেকে অমিত শাহের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে। আপনারা জানেন, এই যে করোনা চলছে, করোনায় অনেক জায়গায় রোগটা ছড়িয়ে পড়েছে। যেমন মুম্বইয়ের ধারাভি বলে একটা বস্তি ছিল, রোগটা ছড়িয়ে পড়েছিল। এখন অনেকটা নিয়ন্ত্রণে আছে। কলকাতায় দেখবেন আমাদের স্প্রেড (সংক্রমণ) বেড়েছিল, হাওড়ায় বেড়েছিল। তার কারণ কী? করোনায় ৮০ শতাংশ লোক উপসর্গহীন। উপসর্গ নেই তাঁদের - উপসর্গহীন। আমাদের দলেও কিছু উপসর্গহীন বেইমানেরা ছিল। এই বেইমানগুলোকে আমরা চিহ্নিত করেছি।’

সরকারিভাবে শুভেন্দু বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই লড়াইটা কার্যত হয়ে দাঁড়িয়েছে যুব তৃণমূল সভাপতি বনাম কাঁথির অধিকারী পরিবারের বড় ছেলের। কেউ পিছু হটছেন না। একে অপরের উদ্দেশ ছুড়ে দিচ্ছেন কটাক্ষ। সেই রেশ ধরে অভিষেক জানান, তৃণমূল ভাইরাস-মুক্ত হচ্ছে। সৌমিত্র খাঁ'র মন্তব্য উত্থাপন করে অভিষেকের বক্তব্য, বিজেপি সাংসদ তো নিজেই বলেছেন যে তৃণমূলে থাকাকালীন বিষ্ণুপুরে গেরুয়া শিবিরকে জিততে সাহায্য করেছিলেন শুভেন্দু। সঙ্গে শুভেন্দুকে উদ্দেশ করে যোগ করেন, ‘বলছে তৃণমূল করতে লজ্জা করছে। তোমার বাবা ও ভাই তো এখনও তৃণমূল করেন, একই বাড়িতে থাকতে লজ্জা লাগে না!?’

বন্ধ করুন