বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বারো বছরে সুন্দরবনে ৬.৫ লাখ গাছ বসিয়ে ‘ম্যানগ্রোভ ম্যান’ হয়ে উঠলেন ভূগোল শিক্ষক
‘ম্যানগ্রোভ ম্যান’ উমাশংকর মণ্ডল৷ (ছবি সৌজন্য পায়েল সামন্ত/ডয়চে ভেলে)
‘ম্যানগ্রোভ ম্যান’ উমাশংকর মণ্ডল৷ (ছবি সৌজন্য পায়েল সামন্ত/ডয়চে ভেলে)

বারো বছরে সুন্দরবনে ৬.৫ লাখ গাছ বসিয়ে ‘ম্যানগ্রোভ ম্যান’ হয়ে উঠলেন ভূগোল শিক্ষক

  • পেশায় শিক্ষক হলেও সবাই তাকে ‘ম্যানগ্রোভ ম্যান’ নামে চেনে৷

নির্বিচারে গাছকাটা, নদীতে বাঁধ নির্মাণ-সহ নানা কারণে ধ্বংসের মুখে সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল৷ সুন্দরবনের বাস্তুতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আপ্রাণ চেষ্টায় পশ্চিমবঙ্গের এক পরিবেশপ্রেমী৷

ভূগোল পড়ান তিনি৷ পেশায় শিক্ষক হলেও সবাই তাকে ‘ম্যানগ্রোভ ম্যান’ নামে চেনে৷ নাম উমাশংকর মণ্ডল৷ গত ১২ বছর ধরে সাড়ে ছয় লাখ ম্যানগ্রোভ রোপণ করেছেন৷ ২৬ জুলাই আন্তর্জাতিক ম্যানগ্রোভ দিবসের প্রাক্কালে 'ম্যানগ্রোভ ম্যান' বললেন তাঁর পরিকল্পনার কথা৷

আয়লা, আমফান ও তার পরবর্তী ঘূর্ণিঝড় ইয়াস সুন্দরবনের মারাত্মক ক্ষতি করেছে৷ এমন দুর্যোগ মোকাবিলায় পরিবেশবিদরা বারবারই ম্যানগ্রোভ লাগানোর কথা বলছেন৷ খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ম্যানগ্রোভ রোপণের উপর জোর দিয়েছেন৷ কিন্তু এসবের বহু আগে থেকেই  উমাশংকর মণ্ডল ম্যানগ্রোভ রোপণ ও পরিচর্যা করে চলেছেন৷ এ লক্ষ্যে ৪২ বছরের উমাশংকর ‘পূর্বাশা ইকো হেল্পলাইন সোসাইটি' নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা গড়ে তেুলেছেন৷ স্থানীয়দের সহযোগিতায় ম্যানগ্রোভ রোপণের আদর্শ মডেল গড়ে তোলার পাশাপাশি এলাকার আর্থ-সামাজিক ছবিটাই পাল্টে দিয়েছেন ম্যানগ্রোভ ম্যান৷

বাস্তুতন্ত্র ও অর্থনৈতিক উন্নতি

উমাশংকরের বাড়ি সুন্দরবনের গোসাবার সাতজেলিয়া দ্বীপের চরঘেরিতে৷ ২০০৯ সালে ঘূর্ণিঝড় আয়লার ভয়াবহ অভিজ্ঞতার পর তিনি পরিবেশ রক্ষায় সচেষ্ট হন৷ সেই সময় নদীতে ভেসে আসা ম্যানগ্রোভের বীজ সংগ্রহ করেন তিনি৷ স্থানীয় ২২০ জন মানুষকে একত্র করে বীজ ও গাছ লাগানোর বিপুল কর্মকাণ্ড শুরু করেন৷

উমাশংকর ডয়চে ভেলেকে বলেন,‘ম্যানগ্রোভ লাগানো ও পরিচর্যা দীর্ঘমেয়াদি কাজ৷ শুধু ভাটার সময়েই গাছ লাগানো যায়৷ প্রথমে সাড়ে ১০ হেক্টর জায়গায় আমরা গাছ লাগাই৷ প্রাকৃতিকভাবে সেগুলি এখন বেড়ে চারগুণ হয়েছে৷’

বাস্তুতন্ত্রের পুনরুদ্ধারের উমাশঙ্কর বরাবরই অর্থনৈতিক উন্নতিকে গুরুত্ব দিয়েছেন৷ রাজকাঁকড়া, চিংড়ি, ভেটকি, ঝিনুক, সাপ ইত্যাদি বিভিন্ন জলজ প্রাণীদের বাসস্থান মানুষের অত্যাচারে ধ্বংস হতে বসেছিল৷ ম্যানগ্রোভ সৃজনে প্রাণীদের বসবাসের পরিবেশ ফিরিয়ে দিয়ে আদতে জনজাতির অর্থনীতিকেই সমৃদ্ধ করছেন উমাশংকর৷

ম্যানগ্রোভ লাগানোর জন্য তিনি যে মডেল তৈরি করেছেন সেটাও বেশ বৈচিত্র্যময়৷ স্থানীয় মানুষদের দিয়ে তিনি ম্যানগ্রোভ লাগানোর প্রকল্পটি এগিয়েছেন৷ বিনিময়ে সেই মানুষদের হাতে শীতের কম্বল, স্যানিটারি ন্যাপকিন কিংবা পুজোর জামাকাপড় তুলে দিয়েছেন৷ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা আর চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার ব্যবস্থাও করেছেন৷ শিশুদের হাতে তুলে দিয়েছেন বইখাতা৷

এত বড় কাজে কীভাবে অর্থ জোগাড় হয়? ক্রাউড ফান্ডিংয়ের মাধ্যমে অর্থাৎ ব্যক্তি পর্যায়ের ছোটো ছোটো অনুদান সংগ্রহ করে তহবিল গড়ে তোলেন তিনি৷ বর্তমানে সোনাগাঁ এবং কাকমারি এলাকায় ম্যানগ্রোভ লাগানোর কাজ শুরু হয়েছে৷ ২৬ জুলাই বিশ্ব ম্যানগ্রোভ দিবসেও ১০ হাজার গাছ লাগানোর পরিকল্পনা উমাশংকরের৷ ম্যানগ্রোভ রোপণ করলে আড়াইশো পরিবার পাবেন লেবু, চালতা ও সবেদার চারা৷

শুধু গাছ লাগিয়েই যে পরিবেশের উন্নতি সম্ভব নয় তাও বলছেন উমাশংকর৷ ‘শুধু গাছের পিছনে টাকা খরচ করলে হবে না৷ মানুষের জীবনের উন্নতি ঘটাতে হবে৷ নইলে তাঁরা গাছের পরিচর্যা করতে আসবেন না৷’

‘লোভ আর প্রযুক্তির অপব্যবহারে ধ্বংস পরিবেশ’

এই উদ্যোগে সর্বস্তরের মানুষের ব্যাপক সাড়া পেয়েছেন বলে দাবি করেছেন ওই শিক্ষক৷ নিজের পরিবার সদস্যরা ছাড়াও সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছে তার ছাত্রছাত্রীরা৷ এমন মহৎ চেষ্টার ফলে তিনি হয়ে উঠেছেন ম্যানগ্রোভ লাগিয়ে সবুজ বনানী ফিরিয়ে আনার অনুপ্রেরণা৷ সুন্দরবন গবেষক অধ্যাপক জয়ন্ত গৌর বলেন, ‘উনি (উমাশংকর) প্রত্যন্ত গ্রামে গিয়ে গ্রামবাসীদের খাবার, বইখাতা দিয়ে সাহায্য করেন৷ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে যখন যেখানে দরকার, সেখানে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে গাছ লাগান৷ অর্থনৈতিকভাবে মানুষকে সমৃদ্ধ করার উদ্যোগ নেন৷ একক প্রচেষ্টা হিসেবে এটি সত্যিই প্রশংসনীয়৷’

মানুষের লোভ ও প্রযুক্তিকে পরিবেশের বর্তমান দুর্দশার জন্য দায়ী বলে মনে করেন পরিবেশের বন্ধু উমাশংকর৷ ইউরোপ থেকে এশিয়া -- বিশ্বজুড়ে বন্যার পিছনেও এটাই কারণ বলে মত তাঁর৷ 'ম্যানগ্রোভ ম্যানের' প্রশ্ন, ‘প্রকৃতির উপর প্রযুক্তি এবং পরিকল্পনা প্রয়োগ করার আগে পরিবেশবিদ বা ভূতত্ত্ববিদদের সঙ্গে আলোচনা করা হয় না কেন? অপরিকল্পিত বাঁধ নির্মাণের জন্যই সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভের সংখ্যা কমে গিয়েছে৷ ইলিশ চোখে পড়ে না৷ জীবকূলের ক্ষতি হয়েছে।’

ম্যানগ্রোভ ধ্বংসের জন্য সুন্দরবন অঞ্চলের অবৈধ ভেড়ি নির্মাণকে দায়ী করেন উমাশংকর৷ তিনি বলেন, ‘সুন্দরবনের সুন্দরী গাছগুলি আগামী ২০ বছরে নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতে পারে৷ এই ক্ষতিপূরণ সম্ভব নয়৷ জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে দূষণ পাল্লা দিয়ে বেড়েছে৷ এখনই যদি মানুষ পরিবেশ রক্ষায় সচেতন না হয়, তাহলে পরিণাম খুবই ভয়ংকর হতে চলেছে৷’

বন্ধ করুন