বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > এবার গোসাবায় ঢুকে পড়ল দক্ষিণরায়, তীব্র গর্জনে বছর শেষে ঘরবন্দি মানুষ
রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার।

এবার গোসাবায় ঢুকে পড়ল দক্ষিণরায়, তীব্র গর্জনে বছর শেষে ঘরবন্দি মানুষ

  • বন দফতরের কর্মীরা তড়িঘড়ি বাঘকে খাঁচাবন্দি করতে ময়দানে নেমেছে। এমনকী পাতা হয়েছে ফাঁদও।

কুলতলিতে ৬ দিনের রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারকে ধরেছিলেন বন কর্মীরা। এবার আবার গোসাবা এলাকায় দেখা দিয়েছে দক্ষিণরায়। এবার সে লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে। আর তাতেই আতঙ্কে কাঁপছে স্থানীয় বাসিন্দারা। এই খবর দেওয়া হয় বন দফতরে। বন দফতরের কর্মীরা তড়িঘড়ি বাঘকে খাঁচাবন্দি করতে ময়দানে নেমেছে। এমনকী পাতা হয়েছে ফাঁদও।

স্থানীয় সূত্রে খবর, আজ, শুক্রবার বছরের শেষ দিন। তাই অন্য মেজাজে রয়েছেন সকলে। এই পরিস্থিতিতে বাঘ ঢুকে পড়েছে এলাকায়। আর তাতেই আতঙ্কে ঘরবন্দি গোসাবার বাসিন্দারা। গর্জন শোনা যাচ্ছে। কিন্তু ধরা যাচ্ছে না বাঘকে। খবর দেওয়া হয় বন দফতরে। সেখানের কর্মী–আধিকারিকরা এসে কাজ শুরু করেছেন। ফাঁদ পাতা হয়েছে।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে গোসাবার সাতজেলিয়ার চরগেরি এলাকার জঙ্গলে ঢুকে পড়ে এই রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার। তারপর থেকেই দক্ষিণরায়ের গর্জনে তীব্র আতঙ্ক ছড়ায় এলাকায়। তবে এখনও হদিশ মেলেনি বাঘের। কিন্তু পাওয়া গিয়েছে একাধিক পায়ের ছাপ। সম্ভবত ম্যানগ্রোভের জঙ্গলে লুকিয়ে রয়েছে বাঘটি বলে মনে করা হচ্ছে। জঙ্গলে জাল পাতা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই কুলতলিতে ঢুকে পড়েছিল দক্ষিনরায়। বহু চেষ্টায় মঙ্গলবার বন দফতরের ছোঁড়া ঘুমপাড়ানি গুলিতে বাগে আনা হয় বাঘটিকে। পরে বাঘকে ছেড়ে দেওয়া হয় জঙ্গলে। এবার আবার নতুন আতঙ্ক তৈরি হয়েছে গোসাবায়। ঘরবন্দি মানুষজন জানালা দিয়ে উঁকিঝুকি মারলেও কেউ ঘর থেকে বাইরে বেরচ্ছেন না। অনেকে আবার ঠাকুর ডাকতে শুরু করেছেন। কিন্তু কোথায় দক্ষিণরায়?‌ সেটাই খুঁজে দেখা হচ্ছে।

বন্ধ করুন