বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > TET scam: স্নাতকোত্তর হয়েও পর্ষদের তালিকায় মাধ্যমিকে ফেল! DI অফিসে ছুটলেন শিক্ষক

TET scam: স্নাতকোত্তর হয়েও পর্ষদের তালিকায় মাধ্যমিকে ফেল! DI অফিসে ছুটলেন শিক্ষক

সেই শিক্ষক

ওই শিক্ষকের নাম বরুণচন্দ্র রায়। তিনি উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের ডালিমগাঁ-র দেওগা অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক পদে কর্মরত। তিনি ২০১৭ সালে উত্তর দিনাজপুরের করণদিঘির একটি প্রাথমিক স্কুলে চাকরি পান। পরে দেওগা অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি হয়ে আসেন।

হাইকোর্টের নির্দেশে ২০১৪ সালের টেটের জেলাভিত্তিক কাট অফ মার্কস প্রকাশ করেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। তাতে দেখা গিয়েছে, অনেক চাকরি প্রাপক উচ্চ মাধ্যমিকে শূন্য পেয়েছেন। আবার অনেকেই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে ১০ শতাংশের কম নম্বর পেয়ে প্রাথমিকে চাকরি করছেন। আর তা দেখে হতবাক হয়ে গেলেন এক শিক্ষক। পর্ষদের গলদে বিপাকে পড়লেন ওই শিক্ষক। ফলে নিজের যাবতীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে ডিআই অফিসে ছুটলেন ওই শিক্ষক। আর ওই শিক্ষকের শিক্ষাগত যোগ্যতা দেখে হতবাক স্বয়ং স্কুল পরিদর্শকও। এই ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে। ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুরের।

ব্যাপারটা কী?

জানা গিয়েছে, ওই শিক্ষকের নাম হল বরুণচন্দ্র রায়। তিনি উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের ডালিমগাঁ-র দেওগা অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক পদে কর্মরত। তিনি ২০১৭ সালে উত্তর দিনাজপুরের করণদিঘির একটি প্রাথমিক স্কুলে চাকরি পান। পরে দেওগা অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি হয়ে আসেন। এদিকে, শিক্ষক নিয়োগ কাণ্ডে দুর্নীতি প্রকাশ্যে আসতেই হাইকোর্টের নির্দেশে জেলা ভিত্তিক তালিকা প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। তাতে দেখা যায় ওই শিক্ষক মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকে ১০ শতাংশ কম নম্বর পেয়েছেন। বিষয়টি জানতে পেরে হতবাক হয়ে যান ওই স্কুল শিক্ষক। বুধবার সন্ধ্যায় তিনি উত্তর দিনাজপুরের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের দফতরে গিয়ে হাজির হন। সেখানে জেলা স্কুল পরিদর্শকের কাছে যাবতীয় শিক্ষাগত যোগ্যতার নথি পেশ করেন ওই শিক্ষক। তাঁর দাবি, তিনি স্নাতকোত্তর, ডিএলএড প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তা সত্ত্বেও পর্ষদ যে তালিকা প্রকাশ করেছে তাতে তাঁর নাম রয়েছে। অন্যদিকে, স্কুল পরিদর্শক শিক্ষকের শিক্ষাগত যোগ্যতার নথি দেখে কার্যত বিস্মিত হয়ে যান। তিনি ফোন মারফত আধিকারিকদের এই বিষয়টি জানিয়েছেন। যদিও তিনি জানান, এখনও তালিকা হাতে পাননি। তবে এই তালিকা প্রকাশ করে প্রশ্নের মুখে পড়েছে পর্ষদ। তাহলে যে তালিকা প্রকাশ করেছে সেগুলি আদৌ কি ঠিক? তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের টেট পরীক্ষায় নিয়োগ হয়েছে ২০১৬ সালে। সেই সময় চাকরি পেয়েছিলেন ৪২৫০০ জন। তবে নিয়োগে দুর্নীতি প্রকাশ্যে আসতেই বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নম্বর সহ জেলা ভিত্তিক তালিকা প্রকাশ করার নির্দেশ দেন। তারপরে তালিকা প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। যেখানে দেখা যায় বহু শিক্ষক রয়েছেন যারা মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিকে ফেল এবং প্রশিক্ষণহীন।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বাংলার মুখ খবর

Latest News

বার্ষিক আয় ১৫ লাখ হলে কোন আকর কাঠামোয় লাভ বেশি? নতুন না পুরনো... বুঝে নিন হিসেব পারিবারিক কারণে প্রেমে বাধা আসতে পারে, দেখুন কী বলছে আজকের প্রেম রাশিফল ‘‌আমি সফল হবই’‌, প্রথমদিন বিধানসভায় পা রেখেই আত্মবিশ্বাসের কথা শোনালেন মধুপর্ণা ‘‌বিহারের ছেলে হয়ে ভাল লাগছে’‌, আর্থিক প্যাকেজ নিয়ে খুশি তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ ‘একা মা, স্বামী ঠকিয়েছে…’! কবে থেকে ইন্দ্রনীলের সঙ্গে সমস্যা, মুখ খুললেন বরখা ছক্কা মারলেই আউট! ২৩৪ বছরের পুরনো ক্রিকেট ক্লাবে চালু হল ‘গলি ক্রিকেট’-র নিয়ম 'আয়কর ফাঁকির উপায়' বন্ধ হল বাজেটে, জেনে মাথায় হাত পড়তে পারে অনেকের Paris Olympics 2024-এর ম্যাসকট 'দ্য অলিম্পিক ফ্রাইরেজ', চিনে নিন গেমসের প্রতীককে ১৯তলার ব্যালকনি থেকে ঝাঁপিয়ে আত্মহত্যার কথা ভেবেছিল- বিস্ফোরক তথ্য শামির বন্ধুর 'ঘরের মাঠ' গ্রেটার নয়ডায় টেস্ট খেলবেন রশিদ খানরা: রিপোর্ট

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.