বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > রেশন দিচ্ছেন না ডিলার, BDO-এর কাছে নালিশ 'মৃত' বৃদ্ধার
জীবিত রেশন ভোক্তাকে ‘‌মৃত’‌ বানানোর অভিযোগ, প্রশাসনের দ্বারস্থ ‘‌মৃতা’‌ ‌বৃদ্ধা!। ফাইল ছবি : রয়টার্স (Reuters) (Reuters)
জীবিত রেশন ভোক্তাকে ‘‌মৃত’‌ বানানোর অভিযোগ, প্রশাসনের দ্বারস্থ ‘‌মৃতা’‌ ‌বৃদ্ধা!। ফাইল ছবি : রয়টার্স (Reuters) (Reuters)

রেশন দিচ্ছেন না ডিলার, BDO-এর কাছে নালিশ 'মৃত' বৃদ্ধার

শুক্রবার ব্লক আধিকারিক ও ফুড ইনস্পেক্টরের কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন ‘‌মৃতা’‌ জুলেখা বেওয়া। অবশ্য রেশন ডিলার তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

জীবিত রেশন উপভোক্তাকে ‘‌মৃত’‌ বানানোর অভিযোগ উঠল এক রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে।সপ্তাহদুয়েক ধরে রেশন না পেয়ে অবশেষে প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন ‘‌‌মৃ‌ত’‌ অশীতিপর বৃদ্ধা।শুক্রবার ব্লক আধিকারিক ও ফুড ইনস্পেক্টরের কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন ‘‌মৃত’‌ জুলেখা বেওয়া। অবশ্য রেশন ডিলার তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ঘটনাটি ঘটেছে মালদহের হরিশচন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের অন্তর্গত মহেন্দ্রপুর গ্রামে। ওই গ্রামেরই বাসিন্দা ওই বৃদ্ধা রেশন না পেয়ে রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এ বিষয়ে জুলেখা বেওয়া বলেন, ‘‌আমি নাকি মরে গিয়েছি? কোথায় মরে গিয়েছি?‌ এই তো দিব্যি হেঁটে চলে বেড়াচ্ছি। চাল-ডাল দেবে না বলে বদমায়েশি করছে। সেজন্য এসব বলে বেড়াচ্ছে। ওদের ছেড়ে দেব না। আজ বিডিওকে জানিয়েছি। চাল-ডাল না পেলে খাব কী!’‌ এ প্রসঙ্গে খাদ্য সরবরাহ দফতরের পর্যবেক্ষক ও আধিকারিক রিঙ্কু বিশ্বাস বলেন, ‘‌ওই পরিবারের অভিযোগ আমরা পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কোনও রেশন ডিলারই এই কথা বলতে পারেন না। এই পরিবারের সকলের আধার কার্ড-সহ অন্যান্য নথি খতিয়ে দেখছি। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হবে।’‌

অবশ্য সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রেশন ডিলার জহুর খান। তাঁর বক্তব্য, ‘‌আমরা এইভাবে কাউকে জীবিত বা মৃত ঘোষণা করতে পারি না। ওই বৃদ্ধার রেশন কার্ড থাকলেও মেশিনে তাঁর নাম দেখাচ্ছিল না। সেজন্য আমরা খাদ্যদফতরে গিয়ে নাম মিলিয়ে দেখতে বলেছিলাম। সার্কুলার মেনেই বণ্টন চলছে। সবাইকে রেশন দেওয়া হচ্ছে।’‌


বন্ধ করুন