বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দিঘার হোটেলে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, Video ফাঁসের হুমকি, কাঠগড়ায় TMCP নেতা

দিঘার হোটেলে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, Video ফাঁসের হুমকি, কাঠগড়ায় TMCP নেতা

ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ। প্রতীকী ছবি (HT_PRINT)

দিঘার হোটেলে নিয়ে গিয়ে এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ। কাঠগড়ায় তৃণমূলের ছাত্র নেতা।

এবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতার বিরুদ্ধে বড় অভিযোগ। দিঘায় ছাত্রীকে মাদক খাইয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের এক ছাত্র নেতার বিরুদ্ধে। ওই ছাত্রী আদপে কাঁথির বাসিন্দা। কিন্তু তিনি কলকাতার একটি কলেজে সম্প্রতি ভর্তি হয়েছেন। তাঁকেই মাদক খাইয়ে ধর্ষণের অভিযোগ। এমনকী সেই ঘটনা মোবাইলবন্দি করা হয়েছে বলেও অভিযোগ। এরপর সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ভিডিয়ো ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দিয়ে চুপ করিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয় বলেও অভিযোগ। এরপর কাঁথি থানায় ওই টিএমসিপি নেতা ও তার দুই সঙ্গীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। কাঁথি মহিলা থানায় এনিয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে খবর। এদিকে একবার নয়, ভিডিয়ো ভাইরাল করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ওই নাবালিকাকে বার বার ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ।

এদিকে বার বার ধর্ষণের জেরে তার গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা থেকে গিয়েছে। ব্য়াপারটি আঁচ করে ওই ছাত্রীকে গর্ভনিরোধক ট্যাবলেট খাওয়ানো হয় বলে অভিযোগ। পরিবারের দাবি, অভিযোগ যাতে সামনে না আসে সেকারণে বার বার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। যখন তখন বাইকে চেপে যুবকরা এলাকায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। লোক দিয়েও হুমকি দেওয়া হয়েছে। গোটা ঘটনায় আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে ছাত্রীর পরিবার। এদিকে ওই ছাত্রনেতার সঙ্গে প্রভাবশালীদের যোগাযোগ রয়েছে বলে খবর। তার জেরেই সে অপরাধ করেও পার পেয়ে যাচ্ছে বলে পরিবারের দাবি।

এদিকে এই ঘটনায় শাসকদলের ছাত্র সংগঠনের নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠাকে কেন্দ্র করে নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ নিউ দিঘার একটি হোটেলে নিয়ে গিয়ে মাদক খাইয়ে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। দামি জিনিসপত্র কিনে দেওয়ার প্রলোভন দেখানো হত বলেও অভিযোগ। সেই প্রলোভন দেখিয়েই তাকে দিঘার হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল বলে পরিবারের লোকজনের দাবি। সেখানেই ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ। এদিকে নির্যাতিতার পরিবারের দাবি, গোটা বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বার বার হুমকি ফোন করা হয়েছিল। অবিলম্বে ওই যুবকের শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছে নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যরা।

এদিকে পুলিশ এনিয়ে তদন্ত শুরু করেছে। নাবালিকা ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে জোর চর্চা শুরু হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্য়মেই তাদের মধ্যে আলাপ হয় বলে খবর। আর তারপরই ছাত্রীকে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করে ওই ছাত্রনেতা। অভিযোগ এমনটাই।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

 

বন্ধ করুন