বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > এবার বৃদ্ধা পেলেন ‘‌দুয়ারে আদালত’‌ পরিষেবা, ৪০ বছরের মামলা মিটল অনায়াসেই
ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সচিব তথা বিচারক সুনীলকুমার শর্মা।
ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সচিব তথা বিচারক সুনীলকুমার শর্মা।

এবার বৃদ্ধা পেলেন ‘‌দুয়ারে আদালত’‌ পরিষেবা, ৪০ বছরের মামলা মিটল অনায়াসেই

  • ৪০ বছর ধরে বেদখল বাস্তু জমি মাত্র সাতদিনে মুক্ত করলেন বিচারক। তাও দুয়ারে গিয়ে।

দুয়ারে রেশন, দুয়ারে সরকার, দুয়ারে ত্রান, দুয়ারে ভ্যাকসিন, দুয়ারে কেএমসি—মানুষ শুনেছেন এবং দেখেছেন। কিন্তু দুয়ারে আদালত কেউ দেখেছেন?‌ এমনই ঘটনা ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরে। ৪০ বছর ধরে বেদখল বাস্তু জমি মাত্র সাতদিনে মুক্ত করলেন বিচারক। তাও দুয়ারে গিয়ে। গ্রামে গিয়ে সেই জমি আসল মালিকের হাতেও তুলে দিলেন তিনি। মালকিন বৃদ্ধা গৌরী নায়েকের চোখ থেকে তখন জল পড়ছে। তাঁর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া, ‘‌জন্মেও ভাবিনি জমি ফেরত পাব।’‌ এই ঘটনার সাক্ষী থাকল জামবনি ব্লকের ইটামারো গ্রামের বাসিন্দারা। আদালত শুনলেই গ্রামের মানুষের মনে একটা অদ্ভুত জড়তা কাজ করে। সেখানে আদালতকে দুয়ারে পৌঁছে সাধারণ মানুষের অধিকারের কথা স্মরণ করিয়ে দিলেন ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সচিব তথা বিচারক সুনীলকুমার শর্মা।

স্থানীয় সূত্রে খবর, ইটামারো গ্রামের বাসিন্দা গৌরী নায়েক ও অনিল বেরার বাড়ি পাশাপাশি। গত ৪০ বছর ধরে গৌরীর বাস্তু জমির কিছুটা জায়গা দখল করে বেড়া দিয়ে রেখেছিলেন অনিল। অনিলকে বারবার দখলে রাখা জায়গা ছেড়ে দিতে বলা হলেও কোন সুরাহা হয়নি গৌরীদেবীর। সম্প্রতি গৌরীর পাশের জমিতে অনিল বেরা সরকারি বাড়ি তৈরি করছিলেন। গৌরী নায়েক বিনামূল্যে আইনি পরিষেবার কথা জানতে পারেন। তারপর তিনি জামবনি ব্লকের পার্শ্ব–আইনি সহায়ক মোহিত বেজের মাধ্যমে এসে উপস্থিত হন ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের দফতরে।

গত ৮ জুলাই সমস্যার কথা লিখিতভাবে গৌরীদেবী জানান ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সচিব তথা বিচারক সুনীলকুমার শর্মাকে। বৃদ্ধার অভিযোগের ভিত্তিতে প্রি–লিটিগেশন মামলা দায়ের করা হয়। এমনকী জামবনি ব্লকের বিএলআরও’‌র কাছে ওই জমি সংক্রান্ত রির্পোট তলব করেন বিচারক। ১৩ জুলাই রির্পোট পাওয়ার পর আজ ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সচিব তথা বিচারক সুনীলকুমার শর্মা গ্রামে গিয়ে দু’পক্ষকে ডেকে সমস্যার সমাধান করেন। জমি ফেরত পেয়ে খুশি বৃদ্ধা গৌরী। ঝাড়গ্রাম জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সচিব তথা বিচারক সুনীলকুমার শর্মা বলেন, ‘গত ৪০ বছর ধরে জমি সংক্রান্ত সমস্যা ছিল দু’পক্ষের মধ্যে। ৩ ফুট চওড়া ৪০ ফুট লম্বা জায়গা দখল করে রাখা হয়েছিল। আজকে দু’পক্ষের উপস্থিতিতে বিষয়টির নিষ্পত্তি করা হয়েছে। গৌরী নায়েকের জমি ফেরত দেওয়া হয়েছে।’

বন্ধ করুন