বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সরকারি সাহায্য নিতে রাজি, তৃণমূল নেতার পাশে বসে জানাল আনন্দ বর্মনের পরিবার
মৃত আনন্দ বর্মনের মা বাসন্তী বর্মন। 
মৃত আনন্দ বর্মনের মা বাসন্তী বর্মন। 

সরকারি সাহায্য নিতে রাজি, তৃণমূল নেতার পাশে বসে জানাল আনন্দ বর্মনের পরিবার

  • বৃহস্পতিবার রাজ্য সরকারের তরফে ঘোষণা করা হয়, শীতলকুচিতে গুলিচালনায় নিহতদের পরিবারগুলিকে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য ছাড়াও ১টি করে সরকারি চাকরি দেবে তারা।

সরকারি সাহায্য নিতে সম্মতি জানাল কোচবিহারের শীতলকুচিতে তৃণমূলের গুলিতে নিহত যুবক আনন্দ বর্মনের পরিবার। শুক্রবার নিহত কিশোরের মা ও দাদাকে পাশে বসিয়ে এমনটাই জানালেন কোচবিহার জেলা তৃণমূল সভাপতি পার্থসারথি রায়। এছাড়া গ্রামে আনন্দ বর্মনের নামে শহিদ বেদী তৈরি হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার কোচবিহারে তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে নিহত যুবক আনন্দ বর্মনের মা বাসন্তী বর্মন, দাদা গোবিন্দ বর্মন ও মামা জগদীশ রায়কে পাশে বসিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেন পার্থসারথিবাবু। সেখানে তিনি বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই পরিবারগুলির পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছিলেন। তিনি কথা রেখেছেন। আনন্দ বর্মনের পরিবার ন্যায়বিচার ও চাকরির দাবি করেছিল। সেই আবেদন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাখবেন বলে আশা করি। 

পার্থবাবু আরও জানান, শনিবার শীতলকুচির জোড়পাটকিতে যাবেন তিনি। সেখানে আনন্দ বর্মনের শহিদ বেদী কোথায় তৈরি হবে তা পরিবারের লোকেদের সঙ্গে কথা বলে ঠিক করবেন।

বৃহস্পতিবার রাজ্য সরকারের তরফে ঘোষণা করা হয়, শীতলকুচিতে গুলিচালনায় নিহতদের পরিবারগুলিকে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য ছাড়াও ১টি করে সরকারি চাকরি দেবে তারা। 

গত ১০ মার্চ ভোটগ্রহণ চলাকালীন শীতলকুচি কেন্দ্রের ১২৬ নম্বর বুথের সামনে তৃণমূলি দুষ্কৃতীদের গুলিতে মৃত্যু হয় আনন্দ বর্মন নামে এক ১৮ বছর বয়সী যুবকের। প্রথমবার ভোট দিতে বুথে গিয়েছিলেন তিনি। ভোট দেওয়ার আগেই প্রাণ যায় তাঁর। এর পর ওই বুথে উত্তেজনা বাড়লে গুলি চালায় কেন্দ্রীয় বাহিনী। তাতে মৃত্যু হয় ৪ গ্রামবাসীর। 

 

বন্ধ করুন