বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Anubrata Mondal's close aid: অনুব্রতের স্ত্রী'কে বাঁচাতে ৬৬ লাখ টাকা দিয়ে কী ভুল করেছি? প্রশ্ন ব্যবসায়ীর
অনুব্রত মণ্ডল। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে পিটিআই)

Anubrata Mondal's close aid: অনুব্রতের স্ত্রী'কে বাঁচাতে ৬৬ লাখ টাকা দিয়ে কী ভুল করেছি? প্রশ্ন ব্যবসায়ীর

  • Anubrata Mondal's close aid Rajib Bhattacharya: গরুপাচার মামলায় অনুব্রতের গ্রেফতারির পর যে কয়েকজনের নাম উঠেছে, তাঁদের মধ্যে আছেন রাজীব ভট্টাচার্য। ২০১৯ সালে অনুব্রতের স্ত্রী যখন কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি ছিলেন, তখন ৬৬ লাখ টাকার বিল মিটিয়েছিলেন তিনি।

অনুব্রত মণ্ডলের স্ত্রী'র চিকিৎসায় ৬৬ লাখ টাকা দিয়ে কী ভুল করেছেন? এমনই প্রশ্ন তুললেন বীরভূমের তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতির ঘনিষ্ঠ নেতা তথা ব্যবসায়ী রাজীব ভট্টাচার্য। চক্রান্তের অভিযোগ তুলে রাজীব বলেন, ‘মৃতপ্রায় মানুষকে বাঁচানোর জন্য টাকা দিয়ে কী ভুল করেছি?’

রবিবার বীরভূমের আমোদপুরে মিছিল এবং পথসভা করে তৃণমূল। দলের সেই মঞ্চ থেকেই রাজীব বলেন, 'একজন মৃতপ্রায় মানুষকে টাকা দিয়ে সাহায্য করে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলাম। কী ভুল করেছিলাম? আমার কাছে টাকা থাকায় দিয়েছিলাম। তাতে কী অন্যায় হয়েছে?' তিনি দাবি করেছেন, যতবার সিবিআই তলব করেছে, ততবার জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হয়েছেন। অনুব্রতকেও বেআইনিভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন রাজীব। তিনি বলেন, 'আন্দোলন তিনগুণ করা হবে। তৃণমূল কংগ্রেস আছি, তৃণমূল কংগ্রেসেই থাকব।'

রাজীব ভট্টাচার্য কে?

গরুপাচার মামলায় অনুব্রতের গ্রেফতারির পর যে কয়েকজনের নাম উঠেছে, তাঁদের মধ্যে আছেন রাজীব। সিবিআই সূত্রের দাবি, পাঁচ-ছয়জন ব্যবসায়ীর মাধ্যমে গরুপাচারের টাকা বিনিয়োগ করা হত। সেই তালিকায় রাজীবের নামও উঠে এসেছে। ২০১৯ সালে অনুব্রতের স্ত্রী যখন কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি ছিলেন, তখন ৬৬ লাখ টাকার বিল মিটিয়েছিলেন তিনি। তা নিজের আয়কর রিটার্নেও উল্লেখ করেছিলেন।

আরও পড়ুন: Sukanya Mondal: কীভাবে ৫ কোটি টাকার সম্পত্তি কিনলেন?‌ সুকন্যা মণ্ডলকে জিজ্ঞাসা করল সিবিআই

অথচ একসময় মামুলি লটারি টিকিট বিক্রেতা ছিলেন রাজীব। সেখান থেকে রকেটের গতিতে উত্থান হয়েছে। ফুলেফেঁপে উঠেছে সম্পত্তি। একাংশের দাবি, মাথায় কেষ্টর হাত পড়ার পর থেকেই রকেট গতিতে উত্থান হয়েছে রাজীবের। বেড়েছে সম্পত্তির পরিমাণ। সিবিআই সূত্রে খবর, বীরভূমের আট থেকে ১০ টি চালকলে রাজীবের বিনিয়োগ আছে। সেই বিপুল পরিমাণ অর্থ রাজীব কীভাবে পেলেন, তা খতিয়ে দেখছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। 

আরও পড়ুন: Anubrata Mondal: অনুব্রতর দুটি মোবাইল যাবে ফরেনসিক ল্যাবে, সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগ

জেলে কেষ্ট

গরুপাচার মামলায় আপাতত জেলে আছেন বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত তথা কেষ্ট। আগামী বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) তাঁকে ফের আদালতে পেশ করা হবে। তাঁকে যখন আগেরবার আদালতে পেশ করা হয়েছিল, তখন সিবিআইয়ের আইনজীবী কালীচরণ মিশ্র দাবি করেছিলেন, অনুব্রতের এখনই জামিন হয়ে গেলে গরুপাচার মামলায় তদন্ত বাধাপ্রাপ্ত হবে। তদন্ত করা যাবে না। সেইসঙ্গে সিবিআই দাবি করেছিলেন, অনুব্রতের অঙ্গুলিহেলনে গরু পাচার করা হত। হাট থেকে গরু পাচার করা হত বাংলাদেশে। 

বন্ধ করুন