বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'বহিরাগত রবীন্দ্রনাথ' মন্তব্যে বিশ্বভারতীর উপাচার্যের পদত্যাগ ‘সুনিশ্চিত‘ করুন, গণ ইমেল মুখ্যমন্ত্রীকে
বিশ্বভারতীর উপাচার্যের পদত্যাগ ‘সুনিশ্চিত‘ করুন, গণ ইমেল মুখ্যমন্ত্রীকে (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
বিশ্বভারতীর উপাচার্যের পদত্যাগ ‘সুনিশ্চিত‘ করুন, গণ ইমেল মুখ্যমন্ত্রীকে (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

'বহিরাগত রবীন্দ্রনাথ' মন্তব্যে বিশ্বভারতীর উপাচার্যের পদত্যাগ ‘সুনিশ্চিত‘ করুন, গণ ইমেল মুখ্যমন্ত্রীকে

  • শান্তিনিকেতনে গিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামারও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে 'বহিরাগত' বলার জন্য এমনিতেই সপ্তাহখানেক ধরে তুমুল বিতর্ক চলছে। এবার সেই 'অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ' মন্তব্যের জন্য বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর অপসারণের দাবি তুলল জাতীয় বাংলা সম্মেলন। তা নিয়ে সংগঠনের তরফে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যাকে গণ ইমেলও করা হল।

গত ১৭ অগস্ট পৌষমেলার মাঠে পাঁচিল দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিশ্বভারতী চত্বরে ভাঙচুর চালানো হয়েছিল। সেই ঘটনার ছ'দিনের মাথায় বিবৃতি দিয়ে উপাচার্য অভিযোগ করেন, রাজনৈতিক মদতেই তাণ্ডব চালানো হয়েছে। 'রাজনৈতিক কর্তারা' দুর্বত্তদের 'উৎসাহিত' করেছিলেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। 

সাত পাতার বার্তালাপে পাঁচিল দেওয়ার স্বপক্ষে যুক্তি পেশ করেন উপাচার্য। টেনে আনেন রবীন্দ্রনাথের প্রসঙ্গও। আর তারইমধ্যে উপাচার্য বলেছেন, 'পাঠকদের মনে করিয়ে দিয়ে শুরু করি যে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিজে বহিরাগত ছিলেন; তিনি যদি ওই অঞ্চল পছন্দ না করতেন তবে বিশ্বভারতী বিকশিত হত না।'

সেই 'বহিরাগত' মন্তব্যের পরই বিতর্ক শুরু হয়। উপাচার্যের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে বর্তমান ও প্রাক্তন পড়ুয়াদের একাংশ। প্রতিবাদ জানিয়েছে জাতীয় বাংলা সম্মেলনও। 'শিষ্টাচার বহির্ভূত, অগণতান্ত্রিক ও কুরুচিপূর্ণ' মন্তব্যের জন্য উপাচার্যের বিরুদ্ধে দ্রুত ও উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জি জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীকে গণ ইমেল পাঠানো হচ্ছে। একইসঙ্গে বিদ্যুৎবাবুর পদত্যাগের বিষয়টিও 'সুনিশ্চিত' করার আর্জি জানানো হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে জাতীয় বাংলা সম্মেলনের সম্পাদক সিদ্ধব্রত দাস জানিয়েছেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে 'বহিরাগত' হিসেবে অভিহিত করায় সমগ্র দেশের বাঙালিদের ভাবাবেগে আঘাত লেগেছে। শুধু তাই নয়, বিদ্যুৎবাবু শান্তিনিকেতনে বসবাসকারী বাঙালিদের নিয়েও কুরুচিকর মন্তব্য করেছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন সংগঠন সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘পদত্যাগ করার দাবি জানিয়ে উপাচার্যকে মেল পাঠানো হচ্ছে। পাশাপাশি আগামিদিনে শান্তিনিকেতনে গিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামতে চলেছি আমরা।'

বন্ধ করুন