বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‘আমার বন্দুক দিয়ে আমাকে মেরে দে’, ঝালদা কাউন্সিলর খুন কাণ্ডে ভাইরাল আরও এক অডিয়ো

‘আমার বন্দুক দিয়ে আমাকে মেরে দে’, ঝালদা কাউন্সিলর খুন কাণ্ডে ভাইরাল আরও এক অডিয়ো

ঝালদার কংগ্রেস কাউন্সিলর হত্যাকাণ্ডে ভাইরাল আরও এক অডিয়ো

অভিযোগ, ঝালদা থানার আইসি নিহত কংগ্রেস কাউন্সিলর তপন কান্দুর স্ত্রী পূর্ণিমা কান্দুর বয়ান বদলের জন্য চাপ দিচ্ছেন।

ঝালদায় কংগ্রেস কাউন্সিলর খুন কাণ্ডে আরও এক অডিয়ো ফাঁস হয়ে গেল সোশ্যাল মিডিয়ায়। কংগ্রেস কাউন্সিলর তপন কান্দুর ভাইপো মিঠুন কান্দু এবং ঝালদা থানার আইসি সঞ্জীব ঘোষের কথোপকথন রয়েছে। ভাইরাল অডিয়োর সত্যতা যাচাই করেনি হিন্দুস্তান টাইমস বাংলা। তবে সংবাদমাধ্যমের কাছে নিহত কাউন্সিলরের ভাইপো অভিযোগ করেন, ঝালদা থানার আইসি তপনের স্ত্রী পূর্ণিমা কান্দুর বয়ান বদলের জন্য চাপ দিচ্ছেন। এই অডিয়ো ভাইরাল হতে আরও অস্বস্তিতে পড়ল পুরুলিয়া পুলিশ।

ভাইরাল অডিয়োতে শোনা যাচ্ছে যে একজন বলছেন, ‘আমার কাছে আমারই নামে অভিযোগ করছিস। এটা কীভাবে হয়? আমার উপর তোর রাগ, অভিমান আছে। তুই যদি মনে করিস, আমার চাকরি গেলে বা আমি সাসপেন্ড হলে, আমার ছেলে-বউ না খেতে পেলে তোর লাভ হবে, তাহলে তাই কর।’ অভিযোগ এই কথাগুলি বলেন ঝালদা থানার আইসি। এর জবাবে মিঠুন নাকি বলেন, ‘আমি কিছুই করছি না, কাকিমা করছে।’ অপরদিক থেকে পুরুষকণ্ঠে বলতে শোনা যায়, ‘তোর যদি মনে হয় তাহলে আমার কাছে এসে আমার বন্দুক দিয়ে আমাকে গুলি করে দে। তোর কাকার খুনের বদলা হয়ে যাবে।’

অভিযোগ, আইসি অভিযোগ ফিরিয়ে নেওয়ার কথা বলেন। ভাইরাল অডিয়ো ক্লিপে এক পুরুষ কণ্ঠকে বলতে শোনা যায়, ‘তোর কাকিমা দিয়ে শুধু টিপ ছাপ দিইয়ে নে।’ উল্লেখ্য, ঝালদা পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডে কংগ্রেস প্রার্থী তপন কান্দু এবং তৃণমূল প্রার্থী দীপক কান্দু একে অপরের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। সম্পর্কে তাঁরা কাকা-ভাইপো৷ তবে লড়াইয়ে জয়ী হন কংগ্রেস প্রার্থী তপন কান্দু। পৌরবোর্ড গঠিত হওয়ার আগেই ১৩ মার্চ, রবিবার দুষ্কৃতীদের গুলিতে নিহত হন কংগ্রেস কাউন্সিলর। এই আবহে জেরায় দীপক কান্দুর বয়ানে সন্দেহ হওয়ায় মঙ্গলবার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়৷

বন্ধ করুন