বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > খুনের পর ফোন করে মুক্তিপণ দাবি, বাগুইআটিতে ২ কিশোরের মৃত্যুতে দাবি পুলিশের
নিহত অতনু ও অভিযুক্ত সত্যেন্দ্র।

খুনের পর ফোন করে মুক্তিপণ দাবি, বাগুইআটিতে ২ কিশোরের মৃত্যুতে দাবি পুলিশের

  • তিনি বলেন, ‘গত ২২ অগাস্ট সত্যেন্দ্র অতনুকে জানায় সেদিন মোটরসাইকেলটি কিনে দেবে সে। বিকেলে একটি গাড়িতে করে অতনুকে নিয়ে রওনা হয়। অতনুর সঙ্গী হয় তার পিসতুতো ভাই অভিষেক। গাড়িতে আগের থেকে আরও কয়েকজন যুবক ছিল বলে জানা গিয়েছে।

বাগুইআটিতে অপহরণের পর ২ কিশোরকে খুনের ঘটনায় সাংবাদিক বৈঠক করে বিস্ফোরক দাবি করলেন বিধাননগর কমিশনারেটের গোয়েন্দা প্রধান বিশ্বজিৎ ঘোষ। তিনি জানিয়েছেন, অপহরণের দিনই ২ কিশোরকে খুন করে অপহরণকারীরা। খুনের পরও মুক্তিপণ চাইতে থাকে তারা। যদিও তা অনুমান করা সম্ভব হয়নি পুলিশের পক্ষে। তাই কিশোরদের নিরাপত্তার কথা ভেহে সন্তর্পণে তদন্ত করছিলেন গোয়েন্দারা। তাই তদন্ত শেষ করতে সময় লেগেছে।

এদিন বিশ্বজিৎবাবু বলেন, ‘গত ২২ অগাস্ট অতনু দে ও অভিষেক নস্কর নামে ওই ২ কিশোরকে অপহরণ করা হয়। ২৪ অগাস্ট পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন অতনুর বাবা। অভিষেক অতনুর পিসতুতো ভাই।’

বিশ্বজিৎবাবু জানিয়েছেন, ‘সাধারণ এই ধরণের ঘটনায় পুলিশ অত্যন্ত সন্তর্পণে তদন্ত করে। অপহরণকারীরা যাতে পুলিশের তৎপরতা টের না পায় সেজন্যই এই বাড়তি গোপনীয়তা। অপহৃতদের সুরক্ষার কথা ভেবে এই পন্থা অবলম্বন করেন তদন্তকারীরা।’

তিনি বলেন, ‘তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে অতনুকে একটি মোটরসাইকেল কিনে দেওয়ার জন্য ৫০,০০০ টাকা অগ্রিম নিয়েছিল সত্যেন্দ্র চৌধুরী নামে প্রতিবেশী এক যুবক। কিন্তু অতনুতে প্রতিশ্রুত মোটরসাইকেলটি কিনে দিচ্ছিল না সে। এই নিয়ে প্রতিবেশী সত্যেন্দ্রর সঙ্গে অতনুর সম্পর্কে অবনতি হয়েছিল।’

আরও ৫৪ জনকে ২৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রাথমিকে নিয়োগ দিতে নির্দেশ আদালতের

তিনি বলেন, ‘গত ২২ অগাস্ট সত্যেন্দ্র অতনুকে জানায় সেদিন মোটরসাইকেলটি কিনে দেবে সে। বিকেলে একটি গাড়িতে করে অতনুকে নিয়ে রওনা হয়। অতনুর সঙ্গী হয় তার পিসতুতো ভাই অভিষেক। গাড়িতে আগের থেকে আরও কয়েকজন যুবক ছিল বলে জানা গিয়েছে। তার মধ্যে একজন ছিল অভিজিৎ বসু নামে স্থানীয় এক যুবক।’

সোমবার সোর্সের মাধ্যমে খবর পেয়ে অভিজিৎকে গ্রেফতার করেন তদন্তকারীরা। জেরায় সে জানায়, ‘২২ অগাস্ট ২ কিশোরকে নিয়ে প্রথমে রাজারহাটের বিভিন্ন রাস্তায় কিছুক্ষণ ঘোরে তারা। তার পর তাদের নিয়ে যায় একটি মোটরসাইকেলের শো রুমে। সেখানে মিনিট দশেক কথা বলে বেরিয়ে যায় তারা। এর পর বাসন্তী এক্সপ্রেসওয়ে ধরে ঘুরতে থাকে তারা। রাত ৯টা - ১০টার মধ্যে ওই দুই কিশোরকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করে সত্যেন্দ্রসহ অন্য যুবকরা। এর পর দেহ গাড়িতে নিয়েই বেশ কিছুক্ষণ ঘোরাঘুরি করে তারা। তার পর আলাদা ২টি জায়গায় খালের ধারে দেহগুলি ফেলে দেয়। অভিজিৎকে জেরা করে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার বসিরহাট জেলা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা যায় তাদের হেফাজতে ১২ দিন ধরে পড়ে রয়েছে ৩টি বেওয়ারিশ দেহ। তার মধ্যে ১টি অতনুর বলে মনে হয়। মঙ্গলবার দেহ সনাক্ত করেছে অতনুর পরিবার।’

বিশ্বজিৎবাবু জানিয়েছেন, ‘এর পর অতনুর পরিবারকে ফোন করে অপহরণের গল্প ফাঁদে সত্যেন্দ্র। মেসেজ করে বিভিন্ন সময় ১ লক্ষ টাকা থেকে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত মুক্তিপণ চায়। কিন্তু ২ কিশোরের সঙ্গে কথা বলাতে পারেনি তারা। এর জেরে মুক্তিপণ দিতে অস্বীকার করে ২ কিশোরের পরিবার।’

বিশ্বজিৎবাবু জানিয়েছেন, ‘প্রাথমিকভাবে মনে হয় ৫০,০০০ টাকার জন্য ২ কিশোরকে খুন করা হয়েছে। তবে এর পিছনে অন্য কারণও থাকতে পারে। আমরা সত্যেন্দ্রসহ ২ অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছি।’

ওদিকে মৃতের পরিবারের দাবি, ২৩ অগাস্ট থানায় গেলে তাদের অভিযোগ নিতে চায়নি পুলিশ। বিশ্বজিৎবাবু বলেন, ‘তেমনটা হয়ে থাকলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

বন্ধ করুন