বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ট্যাক্সি, পোশাক বদলেও লাভ হল না, পুলিশের তৎপরতায় ধৃত বহরমপুরের খুনি সুশান্ত
গ্রেফতারির পরেও নির্বিকার বহরমপুর খুনে অভিযুক্ত সুশান্ত চৌধুরী। নিজস্ব চিত্র
গ্রেফতারির পরেও নির্বিকার বহরমপুর খুনে অভিযুক্ত সুশান্ত চৌধুরী। নিজস্ব চিত্র

ট্যাক্সি, পোশাক বদলেও লাভ হল না, পুলিশের তৎপরতায় ধৃত বহরমপুরের খুনি সুশান্ত

  • সুশান্ত স্বীকার করেছেন, ঘটনার ৩ দিন আগে মালদা থেকে বহরমপুরে আসেন তিনি। তার পর সুতপাকে ফলো করতে শুরু করেন। গোরাবাজারের বিস্তীর্ণ এলাকায় ঘুরে পথঘাট চেনেন।

বহরমপুরে ছাত্রী সুতপা চৌধুরী খুনে উঠে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। অভিযুক্তকে সুশান্ত চৌধুরীকে জেরা করে তার আগ্রাসী মনোভাবে অবাক তদন্তকারীরাও।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রাথমিক তদন্তেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল দীর্ঘদিন প্রস্তুতি নিয়ে সুতপার ওপর হামলা চালিয়েছে সুশান্ত। সেই তথ্যের ওপর ভিত্তি করে সোমবার রাতে অভিযুক্তকে জেরা শুরু করেন তদন্তকারীরা। জেরায় ধৃত জানিয়েছে, সুতপার সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তাঁর। এর পরেও একাধিক যুবকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল তরুণীর। সম্প্রতি এক যুবকের সঙ্গে নতুন করে সম্পর্কে জড়ান সুতপা। এর পরই তাঁকে প্রাণে মারার সিদ্ধান্ত নেন সুশান্ত।

সুশান্ত স্বীকার করেছেন, ঘটনার ৩ দিন আগে মালদা থেকে বহরমপুরে আসেন তিনি। তার পর সুতপাকে ফলো করতে শুরু করেন। গোরাবাজারের বিস্তীর্ণ এলাকায় ঘুরে পথঘাট চেনেন। এর পর সোমবার বিকেলে সুতপার ওপর হামলা চালান তিনি।

সুশান্তর দাবি, ‘সোমবার সন্ধ্যা ৬.৪০ মিনিট নাগাদ ধারাল অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে সুতপাকে হত্যা করার পর গোরাবাজারের পিছন দিকে ট্যাক্সি স্ট্যান্ড থেকে ট্যাক্সিতে ওঠেন তিনি। সেই ট্যাক্সিতেই রক্তমাখা লাল জামাটি বদলে ফেলেন। এর পর কিছুদূর গিয়ে পুলিশের চোখে ধুলো দিতে ট্যাক্সি বদল করেন।’

ওদিকে অভিযুক্তকে ধরতে জেলাজুড়ে নাকা চেকিং শুরু করেন পুলিশকর্মীরা। বহরমপুরের পাশাপাশি জঙ্গিপুর পুলিশ জেলাতেও শুরু হয় চেকিং। ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের ওপরে পুলিশের নাকা দেখতে পেয়ে ট্যাক্সি থেকে নেমে পড়েন সুশান্ত। পুলিশের চোখে ধুলো দিতে একটি পিকআপ ভ্যানের নীচে ঢুকে পড়েন। কিন্তু তাঁকে পিকআপ ভ্যানের নীচে ঢুকতে দেখে ফেলেন কয়েকজন পুলিশকর্মী। সেখান থেকে টেনে বার করে গ্রেফতার করেন অভিযুক্তকে। ধৃতের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে রক্তমাখা ছুরি, একটি খেলনা বন্দুক ও রক্তমাখা লাল জামা।

ওদিকে নিহত সুতপা চৌধুরীর বাবা জানিয়েছেন, মেয়ের সঙ্গে ওর বিয়ের দাবি সত্য নয়। দুজনের একসঙ্গে কিছু ছবি থাকতে পারে। সেই ছবি দেখিয়ে মেয়েকে ব্ল্যাকমেল করত সুশান্ত।

 

বন্ধ করুন