বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বাংলাদেশি জাহাজকে ঘেরাও ৫ ভারতীয় নৌকার, মাঝ নদীতে প্রতিবাদ ক্ষুব্ধ মৎস্যজীবীদের
মাঝ নদীতে বাংলাদেশি জাহাজ আটকাল ভারতীয় নৌকা (ছবি সৌজন্যে টুইটার)

বাংলাদেশি জাহাজকে ঘেরাও ৫ ভারতীয় নৌকার, মাঝ নদীতে প্রতিবাদ ক্ষুব্ধ মৎস্যজীবীদের

  • পাঁচটি নৌকা বাংলাদেশি জাহাজটিকে ঘিরে ধরে মাঝ নদীতেই। জানা গিয়েছে, বাংলাদেশি জাহাজটির নাম এমভি সি প্রাইড।

দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার সাগরের ঘোড়ামারা দ্বীপের কাছে এক বাংলাদেশি জাহাজকে ‘আটক’ করল ভারতীয় মৎস্যজীবীদের নৌকা। জাহাজের কারণে মাছেল জাল কেটে গিয়েছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় মৎস্যজীবীরা। এর জেরেই ক্ষোভে ফুঁসতে থাকেন মৎস্যজীবীরা। পরে মৎস্যজীবীরা মাঝ নদীতেই ঘিরে ধরে সেই নৌকাটা। জানা গিয়েছে, পাঁচটি নৌকা বাংলাদেশি জাহাজটিকে ঘিরে ধরে। জানা গিয়েছে, বাংলাদেশি জাহাজটির নাম এমভি সি প্রাইড।

ক্ষুব্ধ মৎস্যজীবীদের দাবি ছিল, তাঁদের জালের জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। বিভিন্ন প্রশাসনিক পর্যায়ে ঘটার বিষয়ে জানানো হয়। খবর পৌঁছায় কলকাতা পোর্টট্রাস্ট, কাকদ্বীপের মহকুমা শাসক, জেলা মৎস্য আধিকারিকের অফিসে। খবর পেয়ে দুপুরে সাগরের এসডিপিও দেবাঞ্জন চট্টোপাধ্যায় ঘটনাস্থলে পৌঁছন। এরপর জাহাজ কর্তৃপক্ষ মৎস্যজীবীদের ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হন। এরপর মৎস্যজীবীরা বিক্ষোভ তুলে নেয়।

জানা গিয়েছে, যে মৎস্যজীবীর জাল জাহাজের ডানায় কাটা পড়েছে, তাঁর নাম পুলক দাস। সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানান, তাঁর নৌকার নাম এফবি মা মালতী। তাঁর একটি বিন্দি জাল পুরোপুরি নষ্ট করে দেয় বাংলাদেশি জাহাজটি। কেটে যাওয়া জালটির দাম প্রায় ৬৫ হাজার টাকা। এই কারণেই বিক্ষোভ দেখিয়ে ক্ষতিপূরণের দাবি করা ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না বলে দাবি করেন তিনি। এদিকে বিক্ষোভ উঠে গেলেও জাহাজটি দীর্ঘক্ষণ সেই স্থানেই আটকে থাকে। কারণে মাছ ধরার জাল এমন ভাবে ডানায় আটকে যে সেটি চালু করা যাচ্ছে না।

বন্ধ করুন