বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > হবে ২৫,০০০ কর্মসংস্থান, তাজপুর গভীর বন্দর তৈরির জন্য টেন্ডার ডাকল রাজ্য
হবে ২৫,০০০ কর্মসংস্থান, তাজপুর গভীর বন্দর তৈরির জন্য টেন্ডার ডাকল রাজ্য। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
হবে ২৫,০০০ কর্মসংস্থান, তাজপুর গভীর বন্দর তৈরির জন্য টেন্ডার ডাকল রাজ্য। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

হবে ২৫,০০০ কর্মসংস্থান, তাজপুর গভীর বন্দর তৈরির জন্য টেন্ডার ডাকল রাজ্য

  • ৩৫০ মিটার প্রস্থ ও প্রায় ১৬ মিটার নাব্যতা থাকায় তাজপুর একটি গভীর সমুদ্র বন্দর হিসাবে কাজ করতে পারবে।

তাজপুরে সমুদ্রবন্দর গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। এবার সেই বন্দর তৈরির জন্য গ্লোবাল টেন্ডার ডাকল রাজ্য সরকার। ১,০০০ একর জমির উপর গড়ে উঠবে এই সমুদ্র বন্দর।

প্রশাসন সূত্রে খবর, এই বন্দর তৈরির জন্য প্রথম পর্যায়ে ৬টি ও পরের পর্যায়ে ৯টি বার্থ তৈরি করা হবে। এই প্রকল্পের জন্য প্রথম পর্যায়ে ১০ হাজার কোটি টাকা ও পরের পর্যায়ে ৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে। প্রশাসনের মতে, এই বন্দর তৈরি হয়ে গেলে রাজ্যে প্রায় ২৫ হাজার কর্মসংস্থান তৈরি হবে। এবার এই বন্দর তৈরির জন্য গ্লোবাল টেন্ডার ডাকল রাজ্য সরকার। ওয়েস্ট বেঙ্গল মেরিটাইম বোর্ড তাজপুর বন্দর তৈরির জন্য যে গ্লোবাল টেন্ডার ডেকেছে তার আবেদন জমা দিতে হবে আগামী ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে। সেই আবেদন খতিয়ে দেখে নির্মাণকারী সংস্থাকে বরাত দেওয়া হবে। পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) মডেলে তৈরি হবে বন্দর। নির্মাণকারী সংস্থাকে ৯৯ বছরের জন্য বন্দর লিজ দেওয়া হবে।

২০১৭ সালে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাজপুরে সমুদ্র বন্দর তৈরির কথা জানিয়েছিলেন। প্রথমে ঠিক হয়েছিল, কেন্দ্র ও রাজ্য যৌথ উদ্যোগে তৈরি হবে এই বন্দর।  ২০২০ সালে রাজ্য সরকার একাই বন্দর তৈরির সিদ্ধান্ত নেয়। ৩৫০ মিটার প্রস্থ ও প্রায় ১৬ মিটার নাব্যতা থাকায় তাজপুর একটি গভীর সমুদ্র বন্দর হিসেবে কাজ করতে পারবে। রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগের ফলে কোলাঘাট থেকে দিঘা পর্যন্ত জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। এই বন্দর তৈরি হয়ে গেলে কলকাতা ও হলদিয়ার পাশাপাশি আরও একটি বন্দর পাবে রাজ্য।

াবে রাজ্য।

বন্ধ করুন