বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বহরমপুর বাইপাস তৈরিতে কাটল জমিজট, ক্ষতিপূরণ পেলেন কৃষকরা, দ্রুতই সম্পন্ন হবে কাজ
বহরমপুর বাইপাসের জন্য কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার অনুষ্ঠান। ছবি সৌজন্যে ফেসবুক।

বহরমপুর বাইপাস তৈরিতে কাটল জমিজট, ক্ষতিপূরণ পেলেন কৃষকরা, দ্রুতই সম্পন্ন হবে কাজ

  • ওই সমস্ত কৃষকদের ফসলের ক্ষতিপূরণ বাবদ ১৪,০০০ টাকা করে দেওয়া হয়েছে।

বহরমপুর বাইপাস তৈরির জন্য ২০১৫ সালে জমি অধিগ্রহণ করেছিল সরকার। কিন্তু, জমিজটের কারণে দীর্ঘদিন ধরে সেই কাজ আটকে ছিল। জমি অধিগ্রহণের পড়ে বহু কৃষক বাইপাসের জমিতে চাষ করে যাচ্ছিলেন। ফলে বাইপাস তৈরিতে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। এবার সেই জট কেটে গেল। যে সমস্ত কৃষকরা জমিতে চাষ করেছিলেন তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হল।

ওই সমস্ত কৃষকদের ফসলের ক্ষতিপূরণ বাবদ ১৪,০০০ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। প্রায় আড়াইশো কৃষককে বৃহস্পতিবার ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। এরজন্য বহরমপুরে আধারমানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ছিলেন নবগ্রামের বিধায়ক কানাইচন্দ্র মন্ডল, স্থানীয় সাংসদ খলিলুর রহমান, জেলা প্রশাসন এবং জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষরা।

অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে বিধায়ক জানান, 'ক্ষতিপূরণ দেওয়া নিয়ে কৃষকদের বোঝানো হয়েছে। তারা তাতে সম্মতি জানিয়েছেন। তারা বাইপাসের জমি ছেড়ে দিয়েছেন।' জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও তিনি কথা বলেছেন বলে জানিয়েছেন। অন্যদিকে, জমিজট কেটে যাওয়ার ফলে দ্রুত বহরমপুর বাইপাস রাস্তার কাজ সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় সড়কের মালদহ ডিভিশনের প্রকল্প আধিকারিক দীনেশ হংসরিয়া । তিনি জানান, ' জমি পাওয়ার ফলে বাইপাস রাস্তা এবং সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে আগামী দেড় বছরের মধ্যে তা সম্পন্ন করার পরিকল্পনা রয়েছে।

বহরমপুরে বাইপাস তৈরির পরিকল্পনা দীর্ঘদিনের। পরিকল্পনা অনুযায়ী, বলরামপুর থেকে বাইপাস রাস্তা শুরু হওয়ার কথা। যা বহরমপুর শহর থেকে প্রায় ৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ২০০৯ সালে এই পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিল জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। এরপর ২০১৫ সালে জমি অধিগ্রহণ করা হয়।

বন্ধ করুন