বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ৭৮ বছর বয়সে প্রয়াত BJP প্রার্থী, চন্দননগরের ১৭ নং ওয়ার্ডে ভোট নিয়ে সংশয়
বিজেপির পতাকা (HT_PRINT)

৭৮ বছর বয়সে প্রয়াত BJP প্রার্থী, চন্দননগরের ১৭ নং ওয়ার্ডে ভোট নিয়ে সংশয়

  • আচমকা বুকে ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন বিজেপি প্রার্থী। তখন তড়িঘড়ি তাঁকে চন্দননগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। 

চন্দননগর পুরভোটের বিজেপি প্রার্থী প্রয়াত। চন্দননগরের ১৭ নং ওয়ার্ডে পদ্ম প্রতীকে লড়াই করার কথা ছিল গোকুল পালের। প্রচারেও নেমেছিলেন তিনি। তবে ভোটের আগেই মারা গেলেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। এই আবহে এই ওয়ার্ডে ভোটগ্রহণ নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। প্রসঙ্গত, করোনা আবহে ভোট পিছিয়েছে চার পুরনিগমে। পূর্ব ঘোষিত সূতি অনুযায়ী ভোট অনুষ্ঠিত হলে আজকেই নির্বাচন হত চন্দননগরে। তবে তার আগেই মারা গেলেন বিজেপি প্রার্থী।

জানা গিয়েছে, গত বেশ কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন বিজেপি প্রার্থী গোকুল পাল। অসুস্থ হওয়ার আগে অবশ্য চন্দননগরের ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের রাস্তায় প্রচার করতে নেমেছিলেন তিনি। এই আবহে গতকাল রাত আটটা নাগাদ তিনি আচমকা বুকে ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট অনুভব করেন। তখন তড়িঘড়ি তাঁকে চন্দননগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতালে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় বিজেপি প্রার্থীর। এদিকে গোকুলবাবুর মৃত্যুর খবর শুনে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব হাসপাতালে পৌঁছে যান। বিজেপির হুগলি সাংগঠনিক জেলা সভাপতি তুষার মজুমদার গোকুল পালের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেন৷

উল্লেখ্য, করোনার জেরে ২২ জানুয়ারির বদলে ১২ ফেব্রয়ারি অনুষ্ঠিত হবে পুরনির্বাচন। তবে ভোট পিছিয়ে গেলেও আগেই প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রক্রিয়া শেষ হয়ে গিয়েছে। তা স্ক্রুটিনি করে প্রত্যাহারের দিনও পার হয়ে গিয়েছে। তাই এবার নতুন কেউ প্রার্থী হতে চাইলে তিনি কীভাবে মনোনয়ন জমা দেবেন, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

এদিনতুন প্রার্থী মনোয়ন জমা দিতে চাইলে কী হবে, সেই বিষয়ে সদুত্তর নেই হুগলি জেলাশাসক পি দীপাপ প্রিয়ার কাছেও। সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘এখনও ভোটের দেরি আছে।’ তিনি অবশ্য জানান, নির্বাচন কমিশনকে প্রার্থীর মৃত্যুর সংবাদ জানাবেন তিনি। তাঁর বক্তব্য, রাজ্য নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বন্ধ করুন