বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল। ফেসবুক থেকে
বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল। ফেসবুক থেকে

তৃণমূল নেতাদের বুনো হাতির মতো মারুন, নিদান বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতির

  • তৃণমূলের পালটা কটাক্ষ, কুকথা বলার পরেও নিজের পদে বহাল তবিয়তে রয়ে গিয়েছেন দিলীপবাবু। সেই দেখেই অনুপ্রাণিত হয়েছেন রাজ্য বিজেপির বাকি নেতারা।

রাজনীতির নামে বিষ উগরানোর পালা চলছেই। বিরোধীদের আক্রমণ করতে গিয়ে এবার তাদের বুনো হাতির মতো গুলি করে মারার নিদান দিলেন বীরভূম জেলা বিজেপি সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল।

শনিবার সাঁইথিয়ায় এক সভায় শ্যামাপদবাবু বলেন, ‘কোনও বুনো হাতি যখন ক্ষেতে দিয়ে তাণ্ডব করে, ঘরবাড়ি ভাঙে, মানুষকে খুন করে, তখন আমরা বনদফতরে খবর দিই। বনবিভাগের কর্মীরা এসে প্রথমে ঘুমপাড়ানি গুলি করে। যাতে হাতি ঘুমিয়ে যায়। আর হাতির যদি ঘুম না আসে তাহলে হাতিটাকে গুলি করে মেরে দেয়।’ এরপর তিনি বলেন, ‘এরকম কয়েকজন তৃণমূলের নেতা, আমি নাম করে বলে দেব। এখানে যদি গুন্ডামি করে, এখানে যদি ঘরবাড়ি ভাঙে, আমার কার্যকর্তাদের গায়ে যদি হাত দেয়, আমি আমার কর্মী ভাইদের বলব। প্রথমে ঘুমপাড়ানি ওষুধটা দেবেন। তাতে যদি কাজ না হয় চিরতরে ঘুম পাড়িয়ে দেবেন।’

ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ছড়িয়েছে রাজনৈতিক মহলে। সপ্তাহকয়েক আগে নদিয়ায় সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুরকারীদের গুলি করে মারার হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেই ঘটনার রেশ এখনো কাটেনি। বিভিন্ন সভায় নিজের বক্তব্যের স্বপক্ষে সাফাই দিয়ে বেড়াতে হচ্ছে দিলীপবাবুকে। এরই মধ্যে বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন বীরভূম জেলা বিজেপি সভাপতি।

তৃণমূলের পালটা কটাক্ষ, কুকথা বলার পরেও নিজের পদে বহাল তবিয়তে রয়ে গিয়েছেন দিলীপবাবু। সেই দেখেই অনুপ্রাণিত হয়েছেন রাজ্য বিজেপির বাকি নেতারা। যদি দিলীপবাবুর পথে হেঁটে তাঁর পদটি ভবিষ্যতে পাওয়া যায়। বর্তমানে তারই প্রতিযোগিতা চলছে বিজেপিতে।

বন্ধ করুন