বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দলীয় সভায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে গ্রেফতার বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু
বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। ফাইল ছবি
বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। ফাইল ছবি

দলীয় সভায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে গ্রেফতার বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু

সায়ন্তনবাবু বলেন, 'এরাজ্যে বিজেপিকে রোখার মতো সংগঠন আর তৃণমূলের নেই। তাই নির্লজ্জের মতো পুলিশকে ব্যবহার করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।'

পূর্বঘোষিত রাজনৈতিক কর্মসূচিতে যোগ দিতে গিয়ে পথে গ্রেফতার হলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। রবিবার বিজেপির অভিনন্দন যাত্রায় যোগ দিতে কোচবিহারের শীতলকুচির গোঁসাইয়ের হাট যাচ্ছিলেন তিনি। পথে তাঁকে আটকায় পুলিশ। জানানো হয়ে সভাস্থলে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পুলিশি বাধা অমান্য করে এগোতে গেলে তাঁকে গ্রেফতার করে মাথাভাঙা থানার পুলিশ। শেষে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সভায় ভাষণ দেন সায়ন্তনবাবু।

রবিবার বিকেলে শীতলকুচির গোঁসাইয়ের হাট হাইস্কুলের মাঠে আয়োজন করা হয়েছিল বিজেপির অভিনন্দন যাত্রা। CAA-র সমর্থনে এই সভায় বক্তব্য রাখার কথা ছিল রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র সায়ন্তন বসুর। সেজন্য শীতলকুচির দিকে গাড়ি করে এগোতেই সিতাই মোড়ে তাঁকে আটকায় মাথাভাঙা থানার পুলিশ।

এর পরই পুলিশের সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়ান সায়ন্তনবাবু। পুলিশি বাধা অতিক্রম করে এগোনোর চেষ্টা করলে তাঁকে গ্রেফতার করে মাথাভাঙা থানায় নিয়ে যান পুলিশকর্মীরা।

সেখানে সায়ন্তনবাবু সংবাদমাধ্যমের সামনে ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে জানান, ‘রাজ্যে কোথাও গণতন্ত্র নেই। এক ফ্যাসিস্ত শাসন চলছে। আমি গোঁসাইয়ের হাট যাচ্ছিলাম। পুলিশ বেআইনি ভাবে আমাকে রুখেছে। আমি এর বিচার চেয়ে আদালতে যাব।’

সায়ন্তনবাবুর দাবি, ‘রাজ্যে বিজেপিকে রোখার মতো আর সংগঠন নেই তৃণমূলের। তাই নির্লজ্জের মতো পুলিশকে দলীয় কাজে ব্যবহার করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।’ তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের শাসনে দিনের পর দিন রেলপথ ও রাস্তায় তাণ্ডব চালাল একদল দুষ্কৃতী। আর বিরোধী দলের নেতা পূর্বঘোষিত কর্মসূচিতে যোগ দিতে গেলে তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে। এতেই স্পষ্ট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কী চান।’


বন্ধ করুন