বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সায়ন্তন বসুকে ঘিরে চরমে উঠল বিক্ষোভ, গো–ব্যাক স্লোগান শুনে এলাকা ছাড়েন
সায়ন্তন বসু।
সায়ন্তন বসু।

সায়ন্তন বসুকে ঘিরে চরমে উঠল বিক্ষোভ, গো–ব্যাক স্লোগান শুনে এলাকা ছাড়েন

  • মঙ্গলবার খড়দহে দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে যান এই বিজেপি নেতা। আর সেখানে গিয়ে নানা কথা বলার সময় বাধার মুখে পড়েন সায়ন্তন বসু।

বিপুল জনসমর্থন নিয়ে হ্যাট্রিক করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তার পর থেকেই দেখা গিয়েছে, বিজেপি নেতারা যেথানে তৃণমূল কংগ্রেস এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে নানা কটূক্তি করতে গিয়েছেন সেখানে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন। অর্থাৎ মানুষ আর এইসব কথা শুনতে চাইছেন না। এবার সেই পরিস্থিতির মুখোমুখি হলেন বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু।

মঙ্গলবার খড়দহে দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে যান এই বিজেপি নেতা। আর সেখানে গিয়ে নানা কথা বলার সময় বাধার মুখে পড়েন সায়ন্তন বসু। এমনকী তাঁকে কালো পতাকা দেখানো হয়। উঠে ‘গো–ব্যাক’ স্লোগানও। তাঁর হাত থেকে কেড়ে নেওয়া হল মালাও। আর তাতে তিনি বেশ হকচকিয়ে যান। এমন ঘটনা যে ঘটতে পারে তা তিনি কল্পনাও করতে পারেননি।

তবে গোটা ঘটনায় স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী–সমর্থকদের বিরুদ্ধেই অভিযোগ তুলেছেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। যদিও স্থানীয় সূত্রে খবর, সেখানে সব সাধারণ মানুষ ছিলেন। যাঁরা এই সরকার বিরোধী কথা শুনতে চাইছিলেন না। আশা করেছিলেন নতুন কিছু বলবেন। সেটা না হওয়ায় অশান্তি চরমে ওঠে। অথচ সরকার থেকে সাধারণ মানুষ সাহায্য পাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন তাঁরা। এই প্রতিকূল পরিস্থিতির জেরে তিনি কর্মসূচি পালন না করেই পাততাড়ি গোটান ওখান থেকে। এই ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠল খড়দহে।

আজ খড়দহে শ্যামসুন্দর ফেরিঘাটে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মূর্তিতে মাল্যদান করতে গিয়েছিলেন বিজেপির রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সেখানেই বিক্ষোভের মুখে পড়েন তিনি। স্থানীয় একদল বাসিন্দা সায়ন্তনকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখান। ক্ষোভ উগরে দেন। তাঁর কথা কেউ শুনতেই চাইছিল না। তাঁর হাত থেকে মালা কেড়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। চিৎকার করে ‘গো–ব্যাক’ স্লোগান দেন মানুষজন। তখন সায়ন্তন বসু রবীন্দ্রনাথের মূর্তিতে মালা না পরিয়েই ফিরে যান।

বন্ধ করুন