বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Dilip Ghosh: ‘‌যার বিরুদ্ধে প্রশ্ন উঠবে উত্তর দিতে হবে’‌, কোন বিধায়কদের বার্তা দিলেন দিলীপ?

Dilip Ghosh: ‘‌যার বিরুদ্ধে প্রশ্ন উঠবে উত্তর দিতে হবে’‌, কোন বিধায়কদের বার্তা দিলেন দিলীপ?

বিজেপির সর্বভারতীয় সহ– সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

ডায়মন্ডহারবার, কাঁথি–সহ রাজ্যের একাধিক জায়গার সভা থেকে অভিষেক বারবার বলেছেন, তৃণমূল কংগ্রেস দরজা খুললে এই রাজ্যে উঠে যাবে বিজেপি দলটাই। শুভেন্দু অধিকারীর গড়ে দাঁড়িয়ে দলীয় কর্মীদের জিজ্ঞেস করেছিলেন, দরজা কী খুলব? যার উত্তরে হ্যাঁ পেয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, ঠিক সময় দরজা খুলবে দল।

পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই রাজ্য–রাজনীতিতে ব্যাপক শোরগোল পড়ে গিয়েছে। কারণ মঙ্গলবার বিকেলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্যামাক স্ট্রিটের অফিসে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন বিজেপির দুই বিধায়ক। তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে দুই বিধায়কের একঘণ্টার বেশি সময় ধরেই বৈঠক চলেছে বলে সূত্রের খবর। আর আজ, বুধবার এই নিয়ে কড়া বার্তা দিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ– সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তা নিয়ে আরও জলঘোলা হতে শুরু করেছে। কারণ এই দুই বিধায়ক যদি ২৪ ঘন্টার মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেন তাহলে পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রাক্কালে বড় প্রভাব পড়বে বিজেপির ভোটবাক্সে বলে মনে করা হচ্ছে।

কিন্তু কারা এই দুই বিধায়ক?‌ সূত্রের খবর, পশ্চিম মেদিনীপুরের এক তারকা বিধায়ক এবং উত্তরবঙ্গের অপর এক বিধায়ক দেখা করেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। দলবদল করলে তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসে কী পদ পেতে পারেন সেটা জেনেই ঘাসফুল তাঁরা ঘাসফুল শিবিরে যেতে চান। আলিপুরদুয়ারের বিজেপি বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলাল এবং খড়গপুরের বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায়ের নাম নিয়ে ইতিমধ্যেই গুঞ্জন তৈরি হয়েছে। যদিও এই নাম দুটি মুখে আনেননি দিলীপ ঘোষ।

ঠিক কী বলেছেন দিলীপ ঘোষ?‌ এই বিধায়কদের যাওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হয় মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষকে। তখন এই খবর প্রসঙ্গে বুধবার খড়গপুর শহরে বসে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ–সভাপতি দিলীপ ঘোষ সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘‌যার দিকে আঙ্গুল উঠবে তাকে উত্তর দিতে হবে। কে গিয়েছেন, কোথায় গিয়েছেন সেটা আমি জানি না। হয়তো শীত পড়েছে তাই একসঙ্গে চা খেতে গিয়েছে। দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে কখনও আঙুল ওঠে না। আমার দায় নেই কারও মন রাখার। আমি চৌরাস্তায় দাঁড়িয়ে যা বলি সোজা বলি। সামাজিক, সার্বজনীন জীবনে যাঁরা আছেন তাঁদের বিরুদ্ধে প্রশ্ন উঠলে উত্তর দিতে হবে।’‌

উল্লেখ্য, ডায়মন্ডহারবার, কাঁথি–সহ রাজ্যের একাধিক জায়গার সভা থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বারবার বলেছেন, তৃণমূল কংগ্রেস দরজা খুললে এই রাজ্যে উঠে যাবে বিজেপি দলটাই। শুভেন্দু অধিকারীর গড়ে দাঁড়িয়ে দলীয় কর্মীদের জিজ্ঞেস করেছিলেন, দরজা কী খুলব? যার উত্তরে হ্যাঁ পেয়ে দলীয় কর্মীদের আশ্বস্ত করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, ঠিক সময় দরজা খুলবে দল। এবার এই ঘটনা নিয়ে সেই দরজা খোলার বিষয়টি সামনে আসছে। বিজেপি ছাড়ার পর প্রথমে ক্যামাক স্ট্রিটে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই বৈঠক করেছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। তারপর তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন তিনি।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন