বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > '২১ জুলাই' তুমি কার? তৃণমূলের ‘শহিদ দিবস’-এর পালটা 'শহিদ তর্পণ'-এর ঘোষণা বিজেপির
২১ জুলাই নিয়ে তৃণমূল-বিজেপি টানাপোড়েন (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)
২১ জুলাই নিয়ে তৃণমূল-বিজেপি টানাপোড়েন (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)

'২১ জুলাই' তুমি কার? তৃণমূলের ‘শহিদ দিবস’-এর পালটা 'শহিদ তর্পণ'-এর ঘোষণা বিজেপির

  • তৃণমূলের ২১ জুলাইয়ের শহিদ দিবস পালনের পালটা কর্মসূচি করতে চলেছে বিজেপিও।

তৃণমূলের ২১ জুলাইয়ের শহিদ দিবস পালনের পালটা কর্মসূচি করতে চলেছে বিজেপিও। সোমবারই এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি। যেভাবে তৃণমূল কংগ্রেস এবার বাংলার গণ্ডি ছাড়িয়ে ২১ জুলাইয়ের অনুষ্ঠানকে ভিন রাজ্যে পৌঁছে দিয়েছে, বিজেপিও সেই একই পথে হেঁটে তাঁদের মৃত কর্মীদের শ্রদ্ধা অর্পণ করবেন দেশ জুড়ে। জানা গিয়েছে দিলীপ ঘোষ রাজঘাটে 'শহিদদের' প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করবেন। বিজেপির দাবি, তৃণমূল জমানায় এখনও পর্যন্ত ১৮০ জনের বেশি বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই এই দিবস পালনের পথে হাঁটছে বিজেপি।

এর আগে তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছিল যে গুজরাতের ৩২টি জেলায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শহীদ দিবসের ভাষণ প্রচার করা হবে। পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি রাজ্যে সেই ভাষণ প্রচারিত হবে। একুশের মঞ্চকে ব্যবহার করে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পৌঁছাতে চেষ্টা করছে রাজ্যের শাসক দল। ইতিমধ্যেই শাসকদলের তরফ থেকে দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, অসম, ত্রিপুরা সহ একাধিক রাজ্যে একুশের ভার্চুয়াল সভা পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেই উদ্যোগের পালটা এবার ময়দানে নামল গেরুয়া শিবির।

১৯৯৩ সালের‌ ২১ জুলাই যুব কংগ্রেসের একটি কর্মসূচিতে গুলিতে চালানো হয়েছিল। যাতে মৃত্যু হয়েছিল ১৩ জনের। সেই কর্মসূচির নেতৃত্বে ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর থেকে তৃণমূলের জন্ম থেকে এই দিনটিকে ‘শহিদ দিবস’ হিসাবে পালন করা হয়ে আসছে। এই আবহে বুধবার বিজেপিও ময়দানে নেমেছে। দিল্লি থেকে ভাষণ দেবেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী-সহ রাজ্যের অন্য বিজেপি নেতারাও ভাষণ দেবেন। দুপুর দেড়টা থেকে বিকেল ৪ পর্যন্ত চলবে এই কর্মসূচি। ভার্চুয়ালি এতে যোগ দেবেন রাজ্যের সব জেলার মণ্ডল ও বুথস্তরের নেতা, কর্মীরা।

বন্ধ করুন