বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বর্ধমান মেডিক্যাল অগ্নিকাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য, নিজেই গায়ে আগুন দিয়েছিলেন বৃদ্ধা
হাসপাতাল থেকে সন্ধ্যারানি দেবীর দেহ বার করে নিয়ে যাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা।

বর্ধমান মেডিক্যাল অগ্নিকাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য, নিজেই গায়ে আগুন দিয়েছিলেন বৃদ্ধা

  • তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, হাসপাতালের কোনও যন্ত্রে ত্রুটি বা শর্ট সার্কিটের জেরে আগুন ধরেনি। রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, কোনও রোগী হাসপাতালে ওয়ার্ডের ভিতরে নিজের গায়ে আগুন দিতে পারেন এটা আগে থেকে কারও পক্ষে অনুমান করা সম্ভব হয়নি।

বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের করোনা ওয়ার্ডে অগ্নিকাণ্ডে রিপোর্ট পেশ করল ৫ সদস্যের কমিটি। আর তাতে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। রিপোর্টে জানানো হয়েছে, সন্ধ্যারানি মণ্ডল নামে ওই রোগিনী নিজেই নিজের শরীরে আগুন লাগান। ওয়ার্ডের সিসিটিভি ক্যামেরায় সেই ছবি ধরা পড়েছে। তাতে নতুন করে করোনা ওয়ার্ডের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

রিপোর্টে জানানো হয়েছে, সন্ধ্যারানি মণ্ডল নামে ওই রোগী নিজেই নিজের দেহে আগুন ধরিয়েছেন। হাসপাতালের বেডে শুয়ে লাইটার ব্যবহার নিজের দেহে আগুন ধরান তিনি। তার পরই দাউদাউ করে জ্বলে ওঠে তাঁর শয্যা।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, হাসপাতালের কোনও যন্ত্রে ত্রুটি বা শর্ট সার্কিটের জেরে আগুন ধরেনি। রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, কোনও রোগী হাসপাতালে ওয়ার্ডের ভিতরে নিজের গায়ে আগুন দিতে পারেন এটা আগে থেকে কারও পক্ষে অনুমান করা সম্ভব হয়নি। তবে আগুন দেখতে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই ওয়ার্ডে থাকা বাকি তিন রোগীকে সরিয়েছেন হাসপাতালের কর্মীরা।

শনিবার ভোরে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের ৬ নম্বর ওয়ার্ডে আগুন লাগে। আগুনে পুড়ে মৃত্যু হয় সন্ধ্যারানি মণ্ডল নামে গলসির এক বাসিন্দার। প্রাথমিক ভাবে মশা মারার ধূপ থেকে আগুন বলে মনে করা হয়েছিল। কিন্তু তদন্তে উঠে এল অন্য তথ্য। ওদিকে ঘটনার পর গোটা হাসপাতালের অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য ভবন।

 

 

বন্ধ করুন