বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > রহড়ায় বোমা বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল, থানার ঢিলছোঁড়া দূরত্বে মৃত্যু যুবকের
ঘটনাস্থল রহড়া থানার ঢিল ছোঁড়া দূরত্ব।

রহড়ায় বোমা বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল, থানার ঢিলছোঁড়া দূরত্বে মৃত্যু যুবকের

  • আঘাতে আশঙ্কাজনক শেখ সাহিলকে (১৭) প্রথমে ব্যারাকপুর বিএন বসু মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে সাগর দত্ত হাসপাতালে স্থানান্তরিত করলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন। রহড়া থানার ঢিলছোঁড়া দূরত্বে এই ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছেন স্থানীয়রা।

ফের বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটল। এবারের ঘটনাস্থল রহড়া থানার ঢিল ছোঁড়া দূরত্ব। আর এই বোমার আঘাতে প্রাণ গেল এক যুবকের। এই ঘটনায় উত্তর ২৪ পরগনার রহড়া থানা এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। এমনকী সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। বোমা কোথা থেকে এখানে এল তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ।

ঠিক কী ঘটেছে রহড়ায়? স্থানীয় সূত্রে খবর, রহড়া থানার পিছন দিকের মাঠে আবর্জনার পরিষ্কার করতে গিয়ে একটি কৌটো দেখতে পান শেখ সাহিলের দাদু। তারপর সেই কৌটো বালতি করে বাড়িতে নিয়ে আসেন তিনি। আর সেই কৌটো খেলতে গিয়ে শেখ সাহিল বাড়ির সামনের ল্যাম্পপোস্ট ছুড়ে মারে। আর তাতে বিস্ফোরণ ঘটে। তার জেরে রক্তাক্ত হয়ে পড়ে শেখ সাহিল।

পরিবার তখন কী করল?‌ পরিবার সূত্রে খবর, আঘাতে আশঙ্কাজনক শেখ সাহিলকে (১৭) প্রথমে ব্যারাকপুর বিএন বসু মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে সাগর দত্ত হাসপাতালে স্থানান্তরিত করলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন। রহড়া থানার ঢিলছোঁড়া দূরত্বে এই ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছেন স্থানীয়রা।

পুলিশ সূত্রে খবর, ঘটনাস্থলে এখন পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। রহড়া থানার ঢিলছোড়া দূরত্বে কী করে বোমা এল?‌ কারা রেখে গেল বোমা?‌ এই সব প্রশ্নের উত্তর খোঁজ করা হচ্ছে। এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মৃত যুবকের পরিবারের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে। কারণ ওই বোমা তাঁর দাদু নিয়ে এসেছিলেন। প্রাথমিক তদন্তে ওঠা কৌটো বোমা বলে মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন