বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ভয়াবহ বিস্ফোরণ কোচবিহারে, ঝলসে গেল মুখ, তৃণমূলের কোন্দলের জের ?
এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের কোন্দল থামছে না কিছুতেই (ছবি সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস) (প্রতীকী ছবি )
এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের কোন্দল থামছে না কিছুতেই (ছবি সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস) (প্রতীকী ছবি )

ভয়াবহ বিস্ফোরণ কোচবিহারে, ঝলসে গেল মুখ, তৃণমূলের কোন্দলের জের ?

  • গত লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকে এলাকায় বিজেপিও শক্তিশালী হতে শুরু করেছে।

ফের বোমাবাজির ঘটনা কোচবিহারে। স্থানীয় সূত্রে খবর, মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটা নাগাদ আচমকাই বিকট শব্দ। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ধোঁয়ায় ঢেকে যায় চারদিক। এরপর বাসিন্দারা ঘরের বাইরে এসে দেখেন দুজন যুবক রাস্তায় অচৈতন্য অবস্থায় পড়ে রয়েছে। কোচবিহার ১ ব্লকের দেওয়ানহাট এলাকার ঘটনা। তবে এই ঘটনার পেছনে কী কারণ রয়েছে তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। বাসিন্দাদের একাংশের দাবি এলাকায় তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল লেগেই রয়েছে। সম্ভবত তারই পরিণতিতে এই ঘটনা। অন্যদিকে গত লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকে এলাকায় বিজেপিও শক্তিশালী হতে শুরু করেছে। হামলার পেছনে বিজেপি রয়েছে কি না তা নিয়েও নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

এদিকে জখম ২জন যুবককে আপাতত এমজেএন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একজন যুবকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। একজন যুবকর মুখ বোমার আঘাতে ঝলসে গিয়েছে। অপরজনের বুকে, গলায় গভীর ক্ষত হয়ে গিয়েছে। দুই হাতেও আঘাত লেগেছে। এদিকে হাসপাতলে ভর্তি আক্রান্ত এক যুুবক বলেন,' আমরা খেলতে যাচ্ছিলাম। সেই সময় সাত-আটটা বাইক আমাদের ঘিরে ধরে। তারপরই বোমা মেরে পালিয়ে যায়। তারপর আর বিশেষ কিছু মনে নেই। তবে আমার বন্ধু তৃণমূল করে। কে বা কারা বোমা মারল, কেনই বা মারল কিছুই বুঝতে পারছি না।' এদিকে গোষ্ঠীকোন্দলের অভিযোগ মানতে চাননি তৃণমূল নেতৃত্ব। এলাকায় পুলিশি টহলদারি শুরু হয়েছে। 

 

ফের বোমাবাজির ঘটনা কোচবিহারে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটা নাগাদ আচমকাই বিকট শব্দ। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ধোঁয়ায় ঢেকে যায় চারদিক। এরপর বাসিন্দারা ঘরের বাইরে এসে দেখেন দুজন যুবক রাস্তায় অচৈতন্য অবস্থায় পড়ে রয়েছে। কোচবিহার ১ ব্লকের দেওয়ানহাট এলাকার ঘটনা। তবে এই ঘটনার পেছনে কী কারণ রয়েছে তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। বাসিন্দাদের একাংশের দাবি এলাকায় তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল লেগেই রয়েছে। সম্ভবত তারই পরিণতিতে এই ঘটনা। অন্যদিকে গত লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকে এলাকায় বিজেপিও শক্তিশালী হতে শুরু করেছে। তার পরিণতিতেই এই ঘটনা কি না তা নিয়েও নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

এদিকে জখম ২জন যুবককে আপাতত এমজেএন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একজন যুবকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। একজন যুবকর মুখ বোমা আঘাতে ঝলসে গিয়েছে। অপরজনের বুকে, গলায় গভীর ক্ষত হয়ে গিয়েছে। দুই হাতেও আঘাত লেগেছে। এদিকে হাসপাতলে ভর্তি আক্রান্ত এক যুুবক বলেন, আমরা খেলতে যাচ্ছিলাম। সেই সময় সাত-আটটা বাইক আমাদের ঘিরে ধরে। তারপরই বোমা মেরে পালিয়ে যায়। তারপর আর বিশেষ কিছু মনে নেই। তবে আমার বন্ধু তৃণমূল করে। কে বা কারা বোমা মারল, কেনই বা মারল কিছুই বুঝতে পারছি না। এদিকে গোষ্ঠীকোন্দলের অভিযোগ মানতে চাননি তৃণমূল নেতৃত্ব। এলাকায় পুলিশি টহলদারি শুরু হয়েছে। 

|#+|

 

 

 

 

 

 

 

 

 

বন্ধ করুন