বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পেট্রাপোল সীমান্তে ধরা পড়ল পাচার হওয়া ১২৬ কেজি বাংলাদেশি ইলিশ
পশ্চিমবঙ্গে ইলিশের খরা দেখা দিলেও মরশুমের গোড়া থেকেই জালে ভালো ফসল তুলছেন বাংলাদেশের মৎস্যজীবীরা।
পশ্চিমবঙ্গে ইলিশের খরা দেখা দিলেও মরশুমের গোড়া থেকেই জালে ভালো ফসল তুলছেন বাংলাদেশের মৎস্যজীবীরা।

পেট্রাপোল সীমান্তে ধরা পড়ল পাচার হওয়া ১২৬ কেজি বাংলাদেশি ইলিশ

  • গভীর রাতে পেট্রাপোল সীমান্তে চেকিংয়ের সময় ধরা পড়ে ইলিশ বোঝাই ট্রাক।

বাংলাদেশ থেকে কমপক্ষে ১২৬ কেজি ইলিশ বেআইনি পথে ভারতে ঢোকার মুখে আটক করল সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। বুধবার গভীর রাতে পেট্রাপোল সীমান্তে চেকিংয়ের সময় ধরা পড়ে ইলিশ বোঝাই ট্রাক।

বিএসএফ-এর ডিআইজি (দক্ষিণবঙ্গ সীমান্ত) এস এস গুলেরিয়া জানিয়েছেন, ‘গত কয়েক বছরে বৃহত্তম এবং চলতি বছরে প্রথম এত বড় পরিমাণে পাচার করা ইলিশ ধরা পড়ল। ট্রাকচালককে এবং পাচার হওয়া ইলিশ স্থানীয় পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।’

চলতি মরশুমে বাজারে বাঙালির প্রিয় ইলিশের অভাব চোখে পড়ার মতো। বাংলাদেশ থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণে মাছ না পৌঁছানোর কারণে দামও বাড়ছে হু হু করে। ২০১২ সালে ভারতে ইলিশ রফতানি করার উপরে নিষেধাজ্ঞা চাপায় বাংলাদেশ সরকার। ২০১৯ সালে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়। তবু পশ্চিমবঙ্গের রসনাপ্রেমীদের পাতে ব্রাত্যই থাকছে মাছের রানি।

বিএসএফ-এর তরফে জানানো হয়েছে, বুধবার রাতে রুটিন চেকিংয়ে ধরা পড়ে বেআইনি ইলিশ-সহ ট্রাকটি। থলেভরা ইলিশ লুকানো ছিল চালকের কেবিনে। তল্লাশিতে তা উদ্ধার হয়েছে। চালকের কোনও শুল্ক বিভাগের ছাড়পত্র ছিল না বলে জানা গিয়েছে।

কোভিড সংক্রমণ ঠেকাতে দেশব্যাপী লকডাউন জারি হওয়ায় দূষণের প্রভাব কমার ফলে এ বছরে নদীতে ইলিশের জোগান বাড়বে বলে পূর্বাভাস করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু মরশুম শুরু হওয়ার পরে দুই মাস কেটে গেলেও বাজারে পর্যাপ্ত ইলিশের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। যদিও শোনা যাচ্ছে, মরশুমের গোড়া থেকেই জালে ভালো ফসল তুলছেন বাংলাদেশের মৎস্যজীবীরা।

বন্ধ করুন