বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ঘরবন্দি শিশুদের বাড়ছে ওজন, রয়েছে করোনার শঙ্কাও, স্কুল খোলার আর্জি বিশেষজ্ঞদের
অনলাইনে চলছে ক্লাস। (ছবিটি প্রতীকী, সাংকেত ওয়াংখেড়ে/হিন্দুস্তান টাইমস)
অনলাইনে চলছে ক্লাস। (ছবিটি প্রতীকী, সাংকেত ওয়াংখেড়ে/হিন্দুস্তান টাইমস)

ঘরবন্দি শিশুদের বাড়ছে ওজন, রয়েছে করোনার শঙ্কাও, স্কুল খোলার আর্জি বিশেষজ্ঞদের

বিশেষজ্ঞদের মতে, নানা রোগের পাশাপাশি স্থূলকায় শিশুদের কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়তে পারে৷

লকডাউনে ঘরে বসে থেকে ওজন বাড়ছে কলকাতার শিশুদের৷ এর ফলে তাদের স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তিত শিশুরোগ বিশেষজ্ঞরা৷ এমনকী যে সমস্ত শিশুরা কোভিড আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভরতি হয়েছে, তাদের মধ্যেও বড় অংশই স্থূলকায়৷ এমনটাই বলছেন চিকিৎসকরা। পশ্চিমে নতুন না হলেও ভারতের মতো দেশে শিশুদের স্থূলতা নতুন সমস্যা৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোভিডের কারণে এই সমস্যা আরও বেড়েছে৷

পশ্চিমবঙ্গে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে স্কুল বন্ধ। ফলে শিশুরা কার্যত ঘরে বসেই সময় কাটাচ্ছে৷ অনলাইন ক্লাসের সুযোগ থাকলেও শরীরচর্চা হয়নি৷ দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল পার্ক৷ অন্যদিকে সবসময় ঘরে থাকার কারণে আগের চেয়ে তারা বাড়তি খাবার খেয়েছে৷ খরচের উপায় না থাকায় তাদের শরীরে জমেছে ক্যালোরি৷ ফলে শিশুরা ক্রমশ মোটা হয়ে যাচ্ছে৷ চিকিৎসকরা বলছেন, শিশুদের এই পরিবর্তন অনেক অভিভাবক বুঝতে পারছেন না৷ কিন্ত ওজন বৃদ্ধির মাধ্যমে আদতে বহু রোগকে ডেকে আনছে তারা৷ বিশেষত শহরাঞ্চলের শিশু, যারা বদ্ধ ফ্ল্যাটে বাস করে, তাদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা দেখা দিচ্ছে৷

স্থূলত্বে অসুখের বাস

শিশুদের ক্ষেত্রে একটানা বসে অনলাইন ক্লাস বা টিভি দেখার ফলে চোখের সমস্যা দেখা দিচ্ছে৷ শিশুদের মেজাজও মাত্রাতিরিক্ত তিরিক্ষি হয়ে উঠছে৷ চিকিৎসকেরা জানাচ্ছেন, রোদের সংস্পর্শে এলে ভিটামিন ডি সংশ্লেষ ঘটে৷ ঘরবন্দি হয়ে থাকার ফলে এর ঘাটতি দেখা দিচ্ছে৷ এই অকাল স্থূলতা শিশুদের মধ্যে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, থাইরয়েড, করোনারি আর্টারির মতো রোগের জন্ম দেবে বলে আশঙ্কা রয়েছে৷

কোভিডের আশঙ্কা কতটা?

বিশেষজ্ঞদের মতে, নানা রোগের পাশাপাশি স্থূলকায় শিশুদের কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়তে পারে৷ এমনকী স্থূলতা কোভিডের সংক্রমণকে আরও বিপজ্জনক করে তুলতে পারে৷ শিশুমঙ্গল হাসপাতালের শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ অর্ণব রায় বলেন, ‘কোভিডে এখনও পর্যন্ত বাচ্চারা কম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ যে সমস্ত বাচ্চারা কোভিডে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভরতি হয়েছে, তাদের মধ্যে একটা বড় অংশই স্থূলকায়৷ কিডনি-হার্টের রোগ ছাড়া শিশুদের আর যে ধরনের কোমর্বিডিটি দেখা গিয়েছে, তার মধ্যে স্থূলত্বের সমস্যাই সবচেয়ে বেশি৷ স্থূলকায় বাচ্চাদেরই কোভিডে বেশি ক্ষতি হয়েছে, ক্রিটিকাল কেয়ারে ভর্তি পর্যন্ত করতে হয়েছে৷’

বাজুক স্কুলের ঘণ্টা

চিকিৎসকরা বলছেন স্কুলে পড়াশোনোর পাশাপাশি শিশুদের যে  কিছুটা হলেও দৌড়ঝাঁপ হয়, তার কোনও বিকল্প হয় না৷ এতে তাদের সর্বাঙ্গীন বিকাশ ঘটে৷ তাই শিশুদের স্কুলে পাঠানোর উপর জোর দিচ্ছেন তাঁরা৷ তবে তৃতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কায় পুজোর আগে স্কুল খুলছে না, স্পষ্ট করেছে রাজ্য সরকার৷ কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, তৃতীয় ঢেউ এলেই যে শিশুরা বেশি আক্রান্ত হবে, এই আশঙ্কা অমূলক যদি না ভাইরাসের চরিত্রে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটে৷ ওয়েস্ট বেঙ্গল অ্যাকাডেমি অফ পেডিয়াট্রিকস-এর প্রাক্তন সভাপতি ডাক্তার অর্জুন মাঙ্গলিক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘স্কুল খুলে দেওয়া হোক, অনুরোধ করছি৷ রোজ না খুলুক, তিনদিন খোলা রাখুন৷ বাচ্চারা বেরোনোর সুযোগ যেন পায়৷ তবে শপিং মলে গেলে হবে না৷ ইনডোর বা ভিডিও গেম খেলতে পাঠানো চলবে না৷ খোলা জায়গায় পাঠান বাচ্চাদের৷ গ্রামাঞ্চলে রাস্তায় বের হোক, ভিড় এড়িয়ে পার্কে নিয়ে যান বাচ্চাকে৷ কিন্তু যেভাবেই হোক, বাড়ির বাইরে বের করুন৷’

তৃতীয় ঢেউয়ে শিশুদের নিয় শঙ্কা!

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অধীন ন্যাশনাল ডিজ্যাস্টার ম্যানেজমেন্টের আশঙ্কা, শিশুরা তৃতীয় ঢেউয়ে বেশি আক্রান্ত হবে৷ যদিও এই আশঙ্কা নিয়ে ভিন্নমত আছে৷ ডা. মাঙ্গলিক বলেন, ‘ভ্যাকসিন না হলেও বাচ্চাদের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে৷ তার প্রমাণ মিলেছে৷ কাজেই বাচ্চাদের ঘরে আটকে রাখলেও তারা কোভিডে আক্রান্ত হয়েছে৷ অভিভাবকদের থেকেই সম্ভবত তারা সংক্রমিত হয়েছে৷’

চিকিৎসক অর্ণব রায় বলেছেন, ‘জন্মের পর থেকে বিভিন্ন রকমের টিকা শিশুর শরীরে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে৷ সাধারণ ঠান্ডা লাগার ভাইরাসও ক্রস ইমিউনিটি তৈরি করে বাচ্চাদের শরীরে৷ তাই তৃতীয় ঢেউ এলেও শিশুদের সংক্রমণের হার তেমন কিছু বাড়বে না৷' তার পরামর্শ, ভিড় এড়িয়ে ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে অভিভাবকরা যেন নিয়মিত বাইরে বের হন৷ মেধার সঙ্গে তাদের নিয়মিত শরীরচর্চার সুযোগও করে দিতে হবে৷ তা না হলে এই শিশুরা দীর্ঘমেয়াদী সমস্যায় ভুগতে পারে৷

বন্ধ করুন