বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > কেন এখানে বারবার পথ দুর্ঘটনা ঘটছে?‌ বিধায়কের কাছে জানতে চান মুখ্যমন্ত্রী
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)

কেন এখানে বারবার পথ দুর্ঘটনা ঘটছে?‌ বিধায়কের কাছে জানতে চান মুখ্যমন্ত্রী

সরকারি নথি থেকে জানা গিয়েছে, কলকাতার সঙ্গে বজবজকে যুক্ত করেছে বজবজ ট্রাঙ্ক রোড।

সম্প্রীতি উড়ালপুলে পর পর দুর্ঘটনা বহু মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। এখানে প্রায়ই পথ দুর্ঘটনা ঘটে। এবার তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী। কেন এখানে বারবার পথ দুর্ঘটনা ঘটছে?‌ তা জানতে চান মুখ্যমন্ত্রী। দক্ষিণ ২৪ পরগণায় জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে স্থানীয় বিধায়ক তৃণমূল কংগ্রেসের দুলাল দাস দুর্ঘটনা নিয়ে জানান মুখ্যমন্ত্রীকে। সূত্রের খবর, আগামীদিনে সম্প্রীতি উড়ালপুল ধরে বড় পণ্যবাহী গাড়ি বা লরি চলাচল বন্ধ হতে পারে।

সরকারি নথি থেকে জানা গিয়েছে, কলকাতার সঙ্গে বজবজকে যুক্ত করেছে বজবজ ট্রাঙ্ক রোড। সেটি যতটা চওড়া হওয়ার দরকার ছিল তার থেকে তুলনায় সংকীর্ণ। তাই যানজট এখানে লেগেই থাকত। তখন বাটানগর উড়ালপুল নির্মাণের কথা ভাবা হয়। জওহরলাল নেহেরু জাতীয় নগর নবায়ন মিশনে এই উড়ালপুল তৈরির অনুমোদন দেয় কেন্দ্র।

উড়ালপুলটি নির্মাণ করে এলঅ্যান্ডটি কোম্পানি। এই উড়ালপুল নির্মাণের খরচ ধরা হয় ২৫৫ কোটি টাকা। যার মধ্যে ৮৬.৮ কোটি টাকা বরাদ্দ করে কেন্দ্র সরকার এবং বাকি টাকা দেয় নির্মাণকারী সংস্থা। ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে উড়ালপুলের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। তবে উড়ালপুলের নির্মাণে মোট খরচ হয় ৩৩০ কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উড়ালপুলের উদ্বোধন করেন। এই সম্প্রীতি উড়ালপুলেই বারবার দুর্ঘটনা ঘটেছে। তার মধ্যে একটি দুর্ঘটনায় এক শিশু–সহ তিন জনের মৃত্যু হয়। এছাড়াও এখানে নানা দুর্ঘটনা ঘটে চলেছে প্রায়ই। যা কানে গিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর। তাই তিনি স্থানীয় বিধায়কের কাছে খোঁজখবর নেন। সম্প্রীতি উড়ালপুলের মোট দৈর্ঘ্য ৭.৫ কিলোমিটার ও চওড়া ১৫ ফুট। উড়ালপুলটি জিনঞ্জিরা বাজারের সঙ্গে বাটানগরকে যুক্ত করে।

বন্ধ করুন