বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মানুষের অসুবিধা হবে, মুখ্যমন্ত্রীর উদ্বেগে বাতিল নদিয়ার ৭ দিনের লকডাউন
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌একসঙ্গে ২ দিনের বেশি লকডাউন করবেন না। টানা ৪–৫ দিন লকডাউন থাকলে মানুষের অসুবিধা হয়।’‌ ছবি : পিটিআই (PTI)
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌একসঙ্গে ২ দিনের বেশি লকডাউন করবেন না। টানা ৪–৫ দিন লকডাউন থাকলে মানুষের অসুবিধা হয়।’‌ ছবি : পিটিআই (PTI)

মানুষের অসুবিধা হবে, মুখ্যমন্ত্রীর উদ্বেগে বাতিল নদিয়ার ৭ দিনের লকডাউন

  • ১৩ ও ১৪ অগস্ট নদিয়া জেলার নির্দিষ্ট কিছু এলাকা বর্ধিত কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করে সেখানে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৮ থেকে ১৪ অগস্ট— নদিয়ায় টানা এই ৭ দিন লকডাউনের ঘোষণা বাতিল করলেন জেলাশাসক বিভু গোয়েল। তবে তিনি জানিয়েছেন, ১৩ ও ১৪ অগস্ট নদিয়া জেলার নির্দিষ্ট কিছু এলাকা বর্ধিত কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করে সেখানে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বুধবারই নদিয়া জেলা প্রশাসনের তরফে জেলার ৮টি পুর এলাকা ও প্রায় ৩০টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ৭ দিনের টানা লকডাউন করার কথা ঘোষণা করা হয়। কিন্তু পরের দিনই নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌একসঙ্গে ২ দিনের বেশি লকডাউন করবেন না। টানা ৪–৫ দিন লকডাউন থাকলে মানুষের অসুবিধা হয়।’‌ তাঁর এই ঘোষণায় টানা লকডাউনের সিদ্ধান্ত রদ করে নদিয়া জেলা প্রশাসন।

যদিও বুধবারের ঘোষণার পরপরই সাত দিনের ওষুধ–খাবার ঘরে তুলতে দোকান–বাজারে রীতিমতো ঝাঁপিয়ে পড়ে লোকজন। কৃষ্ণনগর, রানাঘাট, শান্তিপুর, চাকদা, কল্যাণীর মতো জনবহুল এলাকায় দেখা যায় একই ছবি। বিধিনিষেধের কোনও পরোয়া না করে এমন ভিড় হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন ওঠে লকডাউন ঘোষণার যৌক্তিকতা নিয়ে।

বন্ধ করুন