বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > তারাপীঠে যেতে হলে করোনা রিপোর্ট বাধ্যতামূলক
তারাপীঠ। (ছবি সৌজন্য ভিডিয়ো)
তারাপীঠ। (ছবি সৌজন্য ভিডিয়ো)

তারাপীঠে যেতে হলে করোনা রিপোর্ট বাধ্যতামূলক

  • জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, তারাপীঠ, শান্তিনিকেতন ও কঙ্কালিতলায় করোনা কিয়স্ক পয়েন্ট থাকছে।

এবার থেকে তারা মায়ের দর্শন পেতে হলে পুণ্যার্থীদের করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট থাকা চাই। রিপোর্ট পজিটিভ এলেই আইসোলেশনে পাঠাবে প্রশাসন। একই নিয়ম জারি করা হয়েছে শান্তিনিকেতন ও কঙ্কালিতলাতেও। এখানেও করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট হাতে থাকা চাই। তবেই মিলবে দর্শনের ছাড়পত্র। মঙ্গলবার থেকেই কার্যকর হচ্ছে এই নিয়ম।

রাজ্যে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। সংক্রমণের মাত্রা হাজারের নীচে নেমে যাওয়ায় আস্তে আস্তে বিধিনিষেধ শিথিল হচ্ছে। ফলে এই সময় বীরভূমের বিভিন্ন স্থানে পর্যটকরা ভিড় জমাতে শুরু করেছে। পর্যটকদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে নতুন নিয়ম চালু করল স্থানীয় প্রশাসন। ভিড়ে সংক্রমণ যাতে না বাড়ে সেজন্য আগেভাগেই ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন। জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, তারাপীঠ, শান্তিনিকেতন ও কঙ্কালিতলায় করোনা কিয়স্ক পয়েন্ট থাকছে। তারাপীঠে যেতে চাওয়া পর্যটকদের জন্য কিয়স্ক করা হয়েছে ফুলিরডাঙা বাস টার্মিনাসে। এছাড়াও কিয়স্ক করা হয়েছে আতলা মোড় ও বালিয়া মোড়ে। পাশাপাশি শান্তিননিকেতনে এই কিয়স্ক করা হয়েছে কাশীপুর বাইপাস ও জামবুনি টোলট্যাক্স পয়েন্টে। এছাড়াও কঙ্কালিতলার জন্য মন্দির সংলগ্ন এলাকায় কিয়স্ক করা হয়েছে। এই সব কিয়স্কে করোনা পরীক্ষার পর ফল যদি নেগেটিভ আসে, তাহলেই তাঁদের মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি মিলবে।

জানা গিয়েছে, প্রশাসনের তরফে করোনা পরীক্ষার পাশাপাশি পর্যটকদের কাছ থেকে ভ্যাকসিন সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করা হবে। শান্তিনিকেতন ছাড়া যে দুটি স্থান বেছে নেওয়া হয়েছে, সেই দুটি স্থানই ধর্মীয় স্থান। ধর্মীয় স্থানে এই ধরনের উদ্যোগ রাজ্যে প্রথম বলেই ওয়াকিবহাল মহলের ধারনা। ইতিমধ্যে দক্ষিণেশ্বর ও কালীঘাটের মন্দিরও ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। তবে সেখানে অবশ্য করোনা পরীক্ষা করানোর মতো ব্যবস্থা রাখা হয়নি।

বন্ধ করুন