রাজ্যের বিধায়ক-মন্ত্রীদের ৩০ শতাংশ বেতন কম নেওয়ার আর্জি ধনখড়ের (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
রাজ্যের বিধায়ক-মন্ত্রীদের ৩০ শতাংশ বেতন কম নেওয়ার আর্জি ধনখড়ের (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

Coronavirus Update: রাজ্যের বিধায়ক-মন্ত্রীদের ৩০ শতাংশ বেতন কম নেওয়ার আর্জি ধনখড়ের

গত ৩১ মার্চ মমতা জানিয়েছিলেন, বিধায়ক বা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনি কোনও বেতন নেন না। পাশাপাশি প্রাক্তন সাংসদ হিসেবে প্রাপ্য পেনশনের টাকাও নেন না বলে দাবি করেন তিনি।

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও সাংসদদের বেতন কমিয়ে দেওয়ার পথে হেঁটেছে কেন্দ্র। রাজ্য সরকারকেও একই পথ অনুসরণ করার আর্জি জানালেন জগদীপ ধনখড়।

আরও পড়ুন : Coronavirus Update: ভারত করোনার ওষুধ না দিলে 'বদলা'-র হুঁশিয়ারি ট্রাম্পের

মঙ্গলবার সকালে একটি টুইটবার্তায় ধনখড় বলেন, 'করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী, সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা এক বছর ৩০ শতাংশ বেতন কম নেবেন। রাষ্ট্রপতি, উপ-রাষ্ট্রপতি ও রাজ্যপালরাও এক বছর ৩০ শতাংশ কম বেতন নেবেন। করোনার বিরুদ্ধে সরকারের লড়াই আরও জোরদার করতে পশ্চিমবঙ্গের বিধায়ক ও মন্ত্রীদেরও ৩০ শতাংশ বেতন কম নেওয়ার আর্জি জানাচ্ছি।' সেই টুইটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ট্যাগও করেন রাজ্যপাল।

সোমবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও সাংসদদের বেতন ৩০ শতাংশ কম করার সিদ্ধান্ত নেয় নরেন্দ্র মোদী সরকার। সেই অর্থ করোনা মোকাবিলায় সম্মিলিত তহবিলে (কনসোলিডেটেড ফান্ড) জমা পড়বে বলে জানায় কেন্দ্র। তবে রাজ্যগুলির ক্ষেত্রেও একইরকমভাবে বেতন কাঁটছাঁট করা হবে কিনা, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর।

আরও পড়ুন : ভিডিও- করোনার বিরুদ্ধে লড়ছেন, নিজের পরিবারের কথা বলতে গিয়ে ভেঙে পড়লেন AIIMS-এর ডাক্তার

উল্লেখ্য, গত ৩১ মার্চ মমতা জানিয়েছিলেন, বিধায়ক বা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনি কোনও বেতন নেন না। পাশাপাশি প্রাক্তন সাংসদ হিসেবে প্রাপ্য পেনশনের টাকাও নেন না বলে দাবি করেন তিনি।

বন্ধ করুন